সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

ফ্রান্সে পালিয়ে থাকা পিনাকী ভট্টাচার্য নামের এক ব্যক্তি এবং তার দুই সাগরেদের বিরুদ্ধে ডিজিট্যাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। মামলার অন্য দুই আসামী মুশফিকুল ফজল আনসারী ও মফিজুর রহমান। এই খবরটা দেশের বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এরই মাঝে প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু অবাক হয়ে লক্ষ্য করলাম সবাই পিনাকীকে “অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট” আখ্যা দিয়েছে। একারণেই আমার প্রশ্ন – পিনাকী কি অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট? অবশ্যই না! সে হলো অনলাইন এনারকিষ্ট কিংবা সাইবার টেরোরিস্ট।

গণমাধ্যমের সংবাদ থেকে জানতে পেরেছি ঢাকায় অবস্থানকালে পিনাকী ভট্টাচার্য জামাতে ইসলামীর সাথে ঘনিষ্ট সম্পর্ক স্থাপনের পর সনাতন ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং নিজের নাম পাল্টে ফেলেন। ওই সময়ে নিজের ওষুধ কারখানায় তিনি গোপনে ইয়াবা এবং যৌণ উত্তেজক ওষুধ উৎপাদনের মাধ্যমে কোটিকোটি টাকা কামাতে থাকলে বিষয়টা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর নজরে আসে। একই সাথে তার আয়কর ফাঁকির বিষয় সংশ্লিষ্ট দফতরের নজরে এলে তাকে দুর্নীতি দমন কমিশনে তলব করা হয়। আর তখনই তিনি গোপনে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ফ্রান্সে গিয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় চান। এমন জঘন্য চরিত্রের লোক, যে ইয়াবা নামের মাদক আর যৌণ উত্তেজক ওষুধ উৎপাদন করে বাংলাদেশের মানুষের সর্বনাশ করেছে, সে এখন নিজেকে জাহির করছে এক মহাপণ্ডিত হিসেবে। প্রতিনিয়ত গাঁজাখুরি গল্প শোনাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আর ইউটিউবে। পিনাকীর এসব অপতৎপরতার পেছনে টাকা ঢালছে জামাতে ইসলামী এবং বিএনপি।

সিটিটিসির দায়ের করা মামলার আরেক আসামী মুশফিকুল ফজল আনসারী। সে নিজেকে জাষ্ট নিউজ নামের একটা নিউজ পোর্টালের মার্কিন সংবাদদাতা পরিচয় দিয়ে হোয়াইট হাউসের করেসপন্ডেন্ট বনেছে। যদিও বাংলাদেশে জাষ্ট নিউজ নামের কোনো নিউজ পোর্টালের অস্থিত্ব নেই। মুশফিকুল ফজল আনসারীর এই মিথ্যাচারের বিষয়ে ওয়াশিংটনে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস সেদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছে কিনা আমার জানা নেই। মুশফিকুল ফজল আনসারী আমেরিকায় সাংবাদিকতা করছে না। সে আসলে হোয়াইট হাউসের করেসপন্ডেন্ট হওয়ার পরিচয় ব্যবহার করে বিভিন্ন দফতরে বিএনপির পক্ষে কাজ করছে। তার এসব তৎপরতার আরেক সঙ্গী উইলিয়াম বি মাইলাম, যিনি ডেমোক্র্যাটিক দলের অবসরপ্রাপ্ত কূটনীতিক। মাইলাম আর মুশফিক মিলে আমেরিকায় একটা সংগঠনও খুলেছে। ওই সংগঠনে বিএনপির পাশাপাশি যুদ্ধাপরাধীদের পরিবার এবং পাকিস্তানী আইএসআই আর্থিক মদদ দিয়ে যাচ্ছে। সহজ কথায়, আমেরিকায় একটা সাংবাদিকের ছদ্মাবরণে মুশফিকুল ফজল আনসারী পলিটিক্যাল এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে।

পিনাকী ও তার দুই সাগরেদের বিরুদ্ধে মামলা করায় সিটিটিসিকে সাধুবাদ জানাচ্ছি। কিন্তু এক্ষেত্রে আরেকটা বিষয়ের প্রতি তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করবো। পিনাকী ছাড়াও আরো কিছু সাইবার সন্ত্রাসী যেমন, তাসনিম খলিল, জুলকারনাইন সামি ওরফে ছিনতাইকারী সামি, আব্দুর রব ভুট্টো, কনক সরোয়ার, হাসিনা আক্তার, মেজর (বহিষ্কৃত) দেলোয়ার, কর্নেল (বহিষ্কৃত) শহীদ উদ্দিন খান, ‘নাগরিক টিভি’ নামীয় চাঁদাবাজ ফেইসবুক পেইজের টিটো রহমান ও নাজমুস সাকিবসহ অন্যদের বিরুদ্ধেও আইনী ব্যবস্থা নেয়া উচিত। বিশেষ করে জুলকারনাইন সামি এবং ‘নাগরিক টিভি’ নামীয় চাঁদাবাজ ফেইসবুক পেইজের টিটো রহমান ও নাজমুস সাকিবদের বাংলাদেশেই একাধিক সহযোগী আছে যাদের বিষয়ে এরই মাঝে আমার সম্পাদনায় প্রকাশিত ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ এ একাধিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। বিদেশে বসে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো সাইবার সন্ত্রাসীদের বাংলাদেশে অবস্থানরত সহযোগীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিয়ে এদের সবাইকে গ্রেফতার করা গেলে অনেক অজানা তথ্য বেরিয়ে আসবে।

দেশের স্বার্থে এক্ষুনি এটা করা উচিত।

(সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, লেখক, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী কাগজ ব্লিটজ এর সম্পাদক)

Leave a Reply