Connect with us

Jamjamat

দেশ বিরোধী সাইবার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা এক্ষুনি নেয়া হোক

News

দেশ বিরোধী সাইবার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা এক্ষুনি নেয়া হোক

তাজুল ইসলাম 
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সংসদে বলেছেন, যারা বিদেশে বসে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে, সরকার তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে কাজ করছে। শেখ হাসিনা বলেন, “যারা (বিদেশে অবস্থা করে) সরকার বিরোধী কর্মকান্ড, উস্কানিমূলক ও বানোয়াট বক্তব্য প্রদানের সঙ্গে জড়িত, সরকার তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করার জন্যে কাজ করছে।”
তিনি বলেন, যারা অপপ্রচার ছড়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের বানোয়াট ও ভিত্তিহীন পোষ্ট মনিটরিং করা হচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরো বলেছেন, বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরা এবং অপপ্রচার মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বাস্তবভিত্তিক সংবাদ ও নিবন্ধ প্রকাশের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
আমরা অত্যন্ত উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি গত কয়েক বছর ধরে প্রায় অর্ধ শত ইউটিউব চ্যানেল ও শতাধিক সংখ্যক ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ক্রমাগত অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। পাশাপাশি, বিএনপি-জামাত চক্রের সাথে রাষ্ট্র বিরোধী অপশক্তি লাখলাখ ডলার খরচ করে বিদেশের পত্র-পত্রিকায় নিয়মিতভাবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ও সংবাদ প্রকাশ করাচ্ছে। এসব প্রতিহত করার ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কার্যকর কোনোকিছুই করতে পারছে না। কেনো পারছে না সে বিতর্কে না গিয়ে বরং বলবো, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হয়তো সীমাবদ্ধতা আছে। সঠিক লোকবল নেই, কিংবা বিদেশী পত্র-পত্রিকায় বাংলাদেশের পক্ষে ইতিবাচক প্রতিবেদন ও রিপোর্ট প্রকাশ করানোর মতো শক্তিশালী নেটওয়ার্ক নেই। এক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেই উদ্যোগ নিতে হবে। তিনি অবশ্যই জানেন, এটা বাস্তবায়িত করতে কি কি করা দরকার।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বসে দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন। এটা ভীষন জরূরী। পাশাপাশি, ওসব সাইবার সন্ত্রাসীদের ইউটিউব চ্যানেল ও ফেইসবুক পেইজে অতিথি হিসেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সহ বাংলাদেশে অবস্থানরত যে কারো অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ করার পাশাপাশি যারা এই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধেও আইনী ব্যবস্থা নিতে হবে। এছাড়া আরেকটা কথা বলা প্রয়োজন। আমরা লক্ষ্য করছি বাংলাদেশে বসেই কিছু লোক প্রকাশ্যে বাংলাদেশ বিরোধী সাইবার সন্ত্রাসীদের পক্ষে কাজ করছে, ওদের বিভিন্ন কন্টেন্ট সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে শেয়ার করছে, এমনকি এগুলোর প্রতি মানুষকে আকৃষ্ট করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এরই মাঝে প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এ ধারাবাহিকভাবে এসব দুর্বৃত্তের নানা অপকর্মের প্রমাণ তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশের অভ্যন্তরে তাদের সহযোগীদের পরিচয় ফাঁস করা হয়েছে। কিন্তু আজ অব্দি দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার অপরাধ ইউনিটকে সুনির্দিষ্ট তথ্য দেয়ার পরও তারা নীরব। এমনটা কেনো হচ্ছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। হয়তো পুলিশ প্রশাসনেই এখনও ঘাপটি মেরে আছে দেশবিরোধী অপশক্তির নীরব সহযোগীরা। এদের চিহ্নিত করা অবশ্যই জরুরী।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি উদাত্ত আহ্বান, দয়া করে আপনি সাইবার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর হোন। এদের বিষয়ে তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিন সংশ্লিষ্টদের। পাশাপাশি, দেশ বিরোধী ওই অপশক্তির স্থানীয় সহযোগীদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হোক জরুরী ভিত্তিতে।

Click to comment

Leave a Reply

More in News

To Top