জমজমাট ডেস্ক

বাংলা চলচ্চিত্রের চিরসবুজ নায়িকা সেই নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিক থেকে আজও তার সৌন্দর্য অমলিন। একাধিক প্রজন্মের নায়িকাদের কাছে হয়েছেন আদর্শ। আজ ৩ নভেম্বর এই তারকা অভিনেত্রী প্রিয়দর্শিনী মৌসুমীর জন্মদিন।জন্মদিনে অসংখ্য ভক্তের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছেন মৌসুমী। মিষ্টি হাসি আর অভিনয় গুণে জয় করে নিয়েছেন কালের সীমানা। হ্যাঁ, তিনি জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমী। এ ছাড়া শোবিজ জগতের অনেকেই এই প্রিয় অভিনেত্রীকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন।

১৯৭৩ সালের ৩ নভেম্বর খুলনায় জন্মগ্রহণ করেন মৌসুমী। পুরো নাম আরিফা পারভিন জামান। ছোট বেলা থেকেই শোবিজ ভুবনে পথচলা শুরু করেন মৌসুমী। গান এবং অভিনয় দুই ধরণের প্রতিভা নিয়ে তার যাত্রা শুরু হয়। এরপর ১৯৯০ সালে ‘আনন্দ বিচিত্রা ফটো বিউটি কনটেস্ট’ বিজয়ী হয়ে টেলিভিশনের বাণিজ্যিক ধারার অনুষ্ঠানে কাজ শুরু করেন।

জন্মদিন প্রসঙ্গে চিত্রনায়িকা মৌসুমী বলেন, ভয়াল জেল হত্যা দিবস হওয়ার কারণে এখন আর জন্মদিন পালন করি না। যার জন্য খুবই খারাপ লাগে। এখন ঘরোয়াভাবেই দিনটি পালন করা হয়। তবে ভক্তদের আয়োজনে অংশ নেব। এরপর নিজের মতো করেই পরিবারের সাথে সময় কাটাবো। সবাই আমার জন্য, আমার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন।

চলচ্চিত্রে মৌসুমীর আত্মপ্রকাশ ১৯৯৩ সালে। সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ সিনেমার মাধ্যমে সালমান শাহর নায়িকা হিসেবে রূপালি পর্দায় আসেন তিনি। প্রথম সিনেমাতেই বাজিমাত। সালমান শাহ এবং মৌসুমী দুজনেই আকাশচুম্বী সাফল্য পেয়ে যান। এরপর একই বছর মৌসুমী অভিনয় করেন ‘দোলা’ সিনেমায়। এরপরের গল্প কেবলই সাফল্যের। একটানা অভিনয় করে এসেছেন। এখনও করছেন।

শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন মৌসুমী। এর মধ্যে রয়েছে অসংখ্য ব্যবসাসফল ও দর্শকনন্দিত সিনেমা। তার অভিনীত সিনেমাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’, ‘দোলা’, ‘স্নেহ’, ‘প্রথম প্রেম’, ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘ভাংচুর’, ‘দেনমোহর’, ‘সংসারের সুখ দুঃখ’, ‘বিশ্বপ্রেমিক’, ‘আদরের সন্তান’, ‘প্রিয় শত্রু’, ‘স্বজন’, ‘ঘাত প্রতিঘাত’, ‘গরীবের রানী’, ‘সুখের স্বর্গ’, ‘আত্মত্যাগ’, ‘রাক্ষস’, ‘সুখের ঘরে দুখের আগুন’, ‘লুটতরাজ’, ‘তুমি সুন্দর’, ‘ভণ্ড বাবা’, ‘আম্মাজান’, ‘কষ্ট’, ‘ইতিহাস’, ‘মেজর সাহেব’, ‘বীর সৈনিক’, ‘মোল্লা বাড়ির বউ’, ‘মেশিনম্যান’, ‘খায়রুন সুন্দরী’, ‘সাহেব নামের গোলাম’, ‘গোলাপী এখন বিলেতে’, ‘কুসুম কুসুম প্রেম’, ‘প্রজাপতি’, ‘দেবদাস’, ‘তারকাঁটা’, ‘এক কাপ চা’, ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’, ‘আমি নেতা হবো’ ইত্যাদি।

ক্যারিয়ারে মৌসুমী তার সমসাময়িক সব অভিনেতার সঙ্গেই জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন। আর প্রত্যেকের সঙ্গেই সাফল্য পেয়েছেন। তবে সবচেয়ে বেশি অভিনয় করেছেন তুমুল জনপ্রিয় নায়ক মান্নার বিপরীতে। এই জুটি ঢালিউডে উপহার দিয়েছেন অনেকগুলো সুপারহিট সিনেমা।

অভিনয়ের বাইরে মৌসুমী গায়িকা হিসেবেও পটু। ২০০৪ সালে তিনি জাহিদ হোসেন পরিচালিত ‘মাতৃত্ব’ সিনেমায় গান গেয়েছেন। এরপর ‘তারকাঁটা’ সিনেমার ‘কি যে শূন্য শূন্য লাগে’ গানটিতেও কণ্ঠ দেন তিনি। এ ছাড়া মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজের ‘ছায়াছবি’ সিনেমার জন্য ‘মন যা বলে বলুক’ গানের কথা রচনা করেছেন তিনি।

নির্মাতা হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করেছেন মৌসুমী। তার পরিচালিত প্রথম সিনেমা ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’ মুক্তি পায় ২০০৩ সালে। এরপর ২০০৫ সালে তিনি ‘মেহের নিগার’ নামে আরও একটি সিনেমা নির্মাণ করেন। ২০১৬ সালে মৌসুমী পরিচালনা করেন ‘শূন্য হৃদয়’ নামের একটি টেলিফিল্ম।

অভিনয়ের জন্য মৌসুমী তার ক্যারিয়ারে অর্জন করেছেন অনেক পুরস্কার। এর মধ্যে তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, পাঁচবার বাচসাস পুরস্কার এবং তিনবার মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার অন্যতম।

ব্যক্তিগত জীবনে মৌসুমী বিয়ে করেছেন চিত্রনায়ক ওমর সানীকে। নব্বই দশকে তারা জুটি বেঁধে বেশ কিছু দর্শকনন্দিত সিনেমা উপহার দিয়েছেন। সিনেমায় কাজ করতে গিয়েই তাদের সম্পর্ক হয় এবং তারা বিয়ে করেন ১৯৯৬ সালে। তাদের সংসারে ফারদিন ও ফাইজা নামের দুই সন্তান রয়েছে।

Previous articleরোহিঙ্গার পর অভিনয়ে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করতে চান সুচি
Next articleসাত খেলোয়াড়ের সঙ্গে রাত কাটিয়ে মা হচ্ছেন!

Leave a Reply