জমজমাট ডেস্ক

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বীর সেনানী ও জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এ এইচ এম কামারুজ্জামান ও ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়৷ ঘটনার পর ৪৭ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা।

১৯৭৫ সালের ৪ নভেম্বর এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় লালবাগ থানায় মামলা করেন তৎকালীন ডিআইজি (প্রিজনস) কাজী আবদুল আউয়াল৷ কিন্তু মামলার বিচার প্রক্রিয়া ২১ বছর বন্ধ রাখা হয়েছিল৷ পরে ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে জেলহত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়া চালু করে আওয়ামী লীগ৷

ইতোমধ্যে অবশ্য মামলার বিচারিক প্রক্রিয়ার তিনটি ধাপই সম্পন্ন হয়েছে। বিচারে মামলার ১১ আসামির মধ্যে ৩ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ৮ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তাদের মধ্যে আজও পলাতক ১০ আসামি। বাকি এক আসামির অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন— বহিষ্কৃত সেনাসদস্য রিসালদার মোসলেহ উদ্দীন, দফাদার মারফত আলী শাহ ও দফাদার আবুল হাশেম মৃধা।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন— ক্যাপ্টেন (অব.) কিসমত হাশেম, ক্যাপ্টেন (অব.) নাজমুল হোসেন আনসার, কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশীদ, লে. কর্নেল (অব.) শরিফুল হক ডালিম, ক্যাপ্টেন (অব.) এমবি নূর চৌধুরী, ক্যাপ্টেন (অব.) আবদুল মাজেদ, লে. কর্নেল (অব.) এএম রাশেদ চৌধুরী ও মেজর (অব.) আহম্মদ শরিফুল হোসেন।

সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামিদের মধ্যে মাত্র দুজনের অবস্থানের ব্যাপারে সরকারের কাছে তথ্য আছে। তাদের মধ্যে কর্নেল (অব.) এম বি নূর চৌধুরী কানাডা এবং লে. কর্নেল (অব.) এ এম রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে আছেন। তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে এনে শাস্তি কার্যকর করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছে।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা এবং জাতীর চার নেতা হত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। রায় কার্যকরও হচ্ছে। তবে বিদেশে পলাতক আসামিদের ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকরের চেষ্টা চলছে।

এদিকে, ২০০৮ সালের ২৮ আগস্ট অবশ্য শুধু রিসালদার মোসলেম উদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অপর দুইজনকে খালাস দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। কিন্তু ২০০৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুইজনের খালাসে হাইকোর্টে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ৷

২০১৩ সালের ৩০ এপ্রিল হাইকোর্টে দেওয়া খালাসের রায় বাতিল করে বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিন আসামির সাজা বহাল রাখেন সাবেক প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ। ২০১৫ সালের ১ ডিসেম্বর এ মামলার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়।

Previous articleহটবোম্ব লুকে মালাইকা আরোরার বাজিমাত
Next articleআজ জেল হত্যা দিবসে একুশের পর্দায় ‘রক্তাক্ত জেল’

Leave a Reply