তাজুল ইসলাম

ক্ষমতাসীন আওয়ামী সরকার তথা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ও দূরদর্শীতায় বাংলাদেশ যখন বিশ্বদরবারে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে সমাদৃত হচ্ছে তখন দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে, দেশের শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দেশকে অকার্যকর ও ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিনত করাতে নিরন্তন চেষ্টা করে যাচ্ছে যুদ্ধাপরাধী ও তাদের পরিবারের মদদপুষ্ঠ, স্বাধীনতাবিরোধী একটি শক্তিশালী অপশক্তি। তারা দেশের অভ্যন্তরে ও বিদেশের মাটিতে বসে প্রতিনিয়ত দেশবিরোধী ও আওয়ামী সরকার বিরোধী নানা অপপ্রচার করে দেশের ক্ষতিসাধনের চেষ্টা চালাচ্ছে। দেশবিরোধী এই চক্রটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তথা ইউটিউব, ফেসবুক ব্যবহার করে নামে-বেনামে সরকার, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব, বঙ্গবন্ধু পরিবার, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, সরকারের উচ্চপদস্থ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীসহ যেসব গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব বাংলাদেশের পক্ষে এবং ওই অপশক্তির বিরুদ্ধে কলম চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের সবার বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ হয়ে ঘৃণ্য ও ভয়ঙ্কর অপপ্রচার চালাচ্ছে।

এদের একমাত্র উদ্দেশ্যই হলো বর্তমান সরকারকে বেকায়দায় ফেলা। কয়েকজন যুদ্ধাপরাধী রাজাকারের সন্তান, সেনানিবাস হতে অবাঞ্ছিত ও বরখাস্ত কিছু সেনা কর্মকর্তা, পলাতক বিএনপি নেতা, বিদেশে পালিয়ে থাকা কিছু কথিত সাংবাদিক যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সুইডেন, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে বসে বাংলাদেশের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্থ করে, দেশে বিরাজমান শান্তিপুর্ন পরিবেশ নষ্ট করে, বাংলাদেশকে আবারও জঙ্গীবাদ আর সন্ত্রাসের অভয়ারণ্যে পরিণত করার ঘৃণ্য এজেন্ডা নিয়ে রাতদিন অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের অনেকেই এসব অপকর্মের মাধ্যমে নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার পাশাপাশি এহেন দেশ বিরোধী কাজকেই নিজেদের রোজগারের একমাত্র অবলম্বনে পরিণত করেছে। এদের অধিকাংশেেই এসব কাজের বাইরে অন্য কোনো আয় নেই।

এসব সাইবার সন্ত্রাসী এবং দেশের প্রকাশ্য শত্রুরা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয় এমন মিথ্যা তথ্য, ভুয়া ছবি দিয়ে অডিও-ভিডিও তৈরি করে ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার মাধ্যমে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। এই সংঘবদ্ধ চক্রের পেছনে আছে একাত্তরের পরাজিত শক্তি, যুদ্ধাপরাধী ও তাদের দোসররা। আর এদেরকে ব্যবহার করতে টাকা ঢালছে দেশবিরোধী অপশক্তি। কোনো ধরনের জবাবদিহি না থাকায় এরা দিনকে-দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। দেশকে সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ, আর অপশাসনের হাতে তুলে দিতে এরা বদ্ধপরিকর।

তবে আশার বানী হলো সরকারের বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এসব সাইবার সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে ইন্টারপোলের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। সাধারন মানুষ এসব সাইবার সন্ত্রাসীদেরকে ঘৃনাভরে প্রত্যাখান করেছে এবং দেশপ্রেমিক সবাই চায় সরকার যেনো এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

এইসকল সাইবার সন্ত্রাসীদের মধ্যে অন্যতম হলো সুইডেনে রাজনৈতিক আশ্রয় নেয়া নেত্র নিউজ নামের প্রোপাগান্ডা ওয়েব সাইটের এডিটর ইন চিফ এবং স্বঘোষিত দাঙ্গাবাজ তাসনিম খলিল, কথিত সাংবাদিক, একাধিক ছিনতাই মামলার আসামী এবং হাঙেরী হতে বিতাড়িত বর্তমানে লন্ডনে অবস্থানকারী জুলকারনায়েন সায়ের খান সামী, কানাডা প্রবাসী সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর দেলোয়ার হোসেন, যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত সাজাপ্রাপ্ত এবং ইন্টারপোল ওয়ান্টেড জঙ্গী অর্থায়নকারী কর্নেল (বহিষ্কৃত) শহীদ উদ্দিন খান, হলিআর্টিজন হামলায় নেপথ্য কারিগর হিসেবে সন্দেহভাজন, স্বেচ্ছায় অবসর নিয়ে আমেরিকায় পালিয়ে যাওয়া সেনা কর্মকর্তা লে কর্ণেল মুস্তাফিজুর রহমান, জামাত শিবিরের ক্যাডার ও আমেরিকায় রাজনৈতিক আশ্রয় চাওয়া স্বঘোষিত সমকামী নাজমুস সাকিব, কানাডা প্রবাসী চাঁদাবাজ, জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট ভুঁয়া সাংবাদিক ও ইউটিউব-ফেসবুকভিত্তিক কথিত নাগরিক টিভির সিইও টিটো রহমান, বিদেশে পালিয়ে থাকা সাংবাদিক কনক সারোয়ার, রাজাকারের সন্তান দাবিদার আমেরিকায় পলাতক সাংবাদিক ইলিয়াস হোসেন, চ্যানেল আই ইউরোপ শাখার সাবেক প্রতিবেদক, বাংলাদেশ প্রতিদিনের ফিচার লেখক, লন্ডনে কলগার্ল হিসেবে পরিচিত হাসিনা আক্তার উল্লেখযোগ্য।

যুক্তরাজ্য প্রবাসী কলগার্ল হাসিনা আক্তার এই সংঘবদ্ধ দেশবিরোধী চক্রের অন্যতম সদস্য এবং বিএনপি’র অনলাইন এক্টিভিস্ট হিসেবে চিহ্নিত। জনশ্রুতি রয়েছে হাসিনা আক্তারের সাথে বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের গভীর যোগাযোগ আছে। লন্ডনে অধিকাংশ বিএনপি নেতা-কর্মী হাসিনা আক্তারকে গোপনে ম্যাডাম তারেক রহমান নামেই ডাকেন আবার কেউকেউ বলেন হাসিনা আক্তার হলো তারেক রহমানের রক্ষিতা, গোপন টাকার ক্যাশিয়ার এবং আস্থাভাজন নারী। তারেকের সাথে কলগার্ল হাসিনা আক্তারের গভীর মাখামাখির কারণে অনেকবারই তারেকের স্ত্রী জোবায়দা রহমানের সাথে হাসিনা আক্তারের বিতন্ডা হয়েছে। অনেকেই বলাবলি করেন, হাসিনা আক্তারের একমাত্র পুত্র সন্তানের বায়োলজিক্যাল বাবা তারেক রহমান।

সুন্দরী এই কলগার্ল এবং নারী সাইবার সন্ত্রাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে নিয়মিত। Table Talk Uk নামীয় একটি ইউটিউব চ্যানেল ও Table Talk with Hasina Akter নামীয় একটি ফেসবুক ব্যবহার করে প্রতিদিন নিয়ম করে ৫/৬ টি লাইভ প্রোগ্রাম পরিচালনা করে সঞ্চালকের ভূমিকায় থাকে। এমন কথাও শোনা যায়, হাসিনা আক্তারের লাইভ শোতে আসার ব্যাপারে অনেক বিএনপি সদস্যকে টাকা দিতে হয়, কারণ ওনারা জানেন, হাসিনা আক্তার কেবল তারেক রহমানের গার্লফ্রেন্ড কিংবা রক্ষিতাই নয়, সে তারেকের সন্তানের গর্ভধারিনী মা। হাসিনা আক্তারের স্বামী রেজা আহমেদ ফয়সাল চৌধুরী সোয়েব নিজেও তার স্ত্রীর সাথে বিএনপি নেতা তারেক রহমানের অবৈধ সম্পর্কের কথা জানেন। তিনি এটাও জানেন, তাদের পুত্র সন্তানের প্রকৃত বাবা তারেক রহমান। অনেকেই বলেন হাসিনা আক্তারের ছেলের চেহারার সাথে তারেক রহমানের চেহারার মিল আছে।

Table Talk with Hasina Akhter নামীয় ফেসবুক পেইজ ছাড়াও এই নারী সাইবার সন্ত্রাসীর Hasina Akther (https://www.facebook.com/Hasina1984) নামে একটি ফেসবুক একাউন্ট, Hasina Akther (https://www.facebook.com/Hasina2017) নামে একটি ফেসবুক পেইজ ও Hasina Akther’s Group Uk
https://www.facebook.com/groups/1188996714872253/?ref=share নামে একটি গ্রুপ আছে। হাসিনা আক্তার যুক্তরাজ্যভিত্তিক “লেডিস ক্লাব ইউকে এন্ড ইউরোপ” নামের একটি সংগঠনের দায়িত্ব পালন করছে। এ ছাড়াও “সিএমএম টিভি” নামে তার একটি অনলাইন টিভি চ্যানেল রয়েছে।

হাসিনা আক্তারের এর জন্ম নোয়াখালী জেলায়। তার স্বামীর নাম রেজা আহমেদ ফয়সাল চৌধুরী সোয়েব। রেজা আহমেদ নিজেও দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশ বিরোধী অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। বর্তমানে যুক্তরাজ্য প্রবাসী এই দম্পতির একমাত্র ছেলে জাওয়াদ রেজা।

Previous articleজীবনের আরেক প্রান্তে মাসুম আজিজ ভাই
Next articleচিত্রনায়ক জয়ের ‘আহারে জীবন’

Leave a Reply