জমজমাট প্রতিবেদক

দুরন্ত টিভির একটি আলোচিত চরিত্র মূকাকু। দুরন্ত টিভিতে ‘দুরন্ত সময়’-এর সিজন-২ আবার প্রচার হচ্ছে। দুরন্ত টিভির এই শোর কল্যাণে কয়েক বছর আগে শিশু-কিশোরদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠে ছিল এই অনুষ্ঠানের মূকাকু রূপী চরিত্রটি। মূকাকু বোকাসোকা একটি চরিত্র। তার আছে একটি বাক্স। এখান থেকে সে যখন যখন যেটা দরকার হয় সেটাই নিতে পারে। বাচ্চাদের বলে সে সবই পারে। যখন বাচ্চারা বলে, তুমি কৃষক চেনো? তখন বলে হ্যাঁ, চিনি। কিন্তু কৃষক সাজতে গিয়ে দেখা গেছে পুলিশ সেজে বসে আছে। এমন নান উল্টাপাল্টা কান্ড ঘটায় সে। আর শিশু-কিশোরদের তখন দারুণ হাসি পায় পায় মূকাকুর এসব উল্টাপাল্টা কান্ড দেখে। এই চরিত্রটিতে অভিনয় করেছেন দেশের নন্দিত মূকাভিনয় শিল্পী নিথর মাহবুব। দুরন্তসময় প্রচার হচ্ছে রবি থেকে বৃহস্পতিবার প্রতিদিন সকাল ৯টা ৩০মিনিট, দুপুর ১২টা ও রাত ৯টায়।
কিছুদিন আগে গানের শিল্পী হিসেবে আত্ম প্রকাশ করে এখন বেশ আলোচনায় নিথর মাহবুব। নিজের লেখা, সুর ও কণ্ঠে ‘আগন্তুক’ নামে জীবনমুখী গানটি প্রকাশ করে অনেকটাই চমক দেখিয়েছেন তিনি। তার সঙ্গে এখন আবার নতুন করে যুক্ত হল মূকাকুর প্রভাব।

‘দুরন্ত সময়’-এর প্রতি পর্বেই বিভিন্ন পেশা ও জিনিসপত্রের সঙ্গে শিশু-কিশোরদের পরিচয় করিয়ে দেয় মূকাকু। মূকাভিনয়ের ‘মূ’-এর সঙ্গে ‘কাকু’ যোগ করে এই নাম। আর এই মূকাকু করছেন নিথর মাহবুব।

‘দুরন্ত সময়’ শিক্ষনীয় একটি অনুষ্ঠান। ব্যায়ামের ছলে এখানে শিশু-কিশোরদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহারের অনেক কিছুর সঙ্গে শিশু-কিশোরদের পরিচয় করানো হয়। এগুলো ছেলে-মেয়েরা কতটা শিখতে পারল বা মনে রাখতে পারল তা বুঝতেই অনুষ্ঠানটির শেষের দিকে মূকাকুকে হাজির হয়। দেখা গেছে অনুষ্ঠানে যেদিন ডাক্তারদের নিয়ে আলোচনা হল; মূকাকো সেটার দেখাদেখি সেদিন ডাক্তার সেজে বসে আছে, কিন্তু তার সামনে ব্যবহারের জিনিসপত্র সব ভুল। দেখা গেছে লাঙল, কাচি, কোদাল, জাল এসব নিয়ে সে ডাক্তার সেজে বসে আছে। মূকাকুর এসব দুরন্পনা দেশে শিশুরা মজা পায়। তখন শিশুরা তার ভুল ধরিয়ে দেয়। তাকে ডাক্তারদের সঠিক জিনিসপত্র আনতে বলে। কিন্তু সে উল্টাপাল্টা জিনিস তার বাক্স থেকে নিয়ে আসে। বাচ্চারা আবার তার ভুল ধরিয়ে দেয়। ভুল করতে করতে মূকাকু একসময় সঠিক জিনিসটা নিয়ে আসে। এর ফলে পর্দায় যে বাচ্চারা অনুষ্ঠানটা দেখে, তারা পর্দায় দেখানো জিনিসগুলোর নাম শিখে নিতে পারছে। মোট ৬৫টি পেশা দেখানো হয়েছে অনুষ্ঠানে। এবং এসব পেশার বিভিন্ন যন্ত্রপাতি সম্পর্কেও জানতে পারছে শহর ও গ্রামের শিশুরা।’

নিথর মাহবুব বলেন, ‘মূকাভিনয় নিয়ে টিভিতে কখনো ধারাবাহিক আয়োজন হয়নি। এই অনুষ্ঠানের ফলে শিশূ-কিশোরদের মধ্যে মূকাভিনয় করার আগ্রহ অনেক বেড়ে ছিল। অনেক পরিশ্রমের একটি কাজ এটি। টানা ১৯দিন প্রতিদিন সকাল থেকে রাতে শুটিং শেষ হওয়া আগে পর্যন্ত মুখে গাড় সাদা মেকাপ দেওয়া অবস্থায় থাকতাম। অনুষ্ঠানটি আবার প্রচারের ফলে ভাল সাড়া পাচ্ছি। কোথাও গেলে শিশু-কিশোরারা যখন জানে; আমিই মূকাকু; তারা অনেক আনন্দ পায় আমাকে দেখে। ‘মাইম আর্ট’ নামে আমাদের একটা মূকাভিনয়ের দল আছে। প্রতি শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে শিল্পকলায় আমাদের রিহার্সাল হয়। যারা মূকাভিনয় শিখতে আগ্রহী তারা আমার দলে যোগ দিতে পারেন।

Leave a Reply