স্টাফ রিপোর্টার 

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর (বিএএফ) একজন কর্পোরাল এবং তার বাবা গুজব ছড়িয়ে সরকারপন্থী ও দেশপ্রেমিক ব্যক্তিদের ক্রমাগত হয়রানি করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

তথ্যমতে, বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর কর্পোরাল মারজান চৌধুরীর বাবা ফকির শরীফ চৌধুরী কয়েক সপ্তাহ আগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) একটি চিঠি পাঠিয়ে দাবী করেন, ‘স্বাধীনতা পদক’ বিজয়ী বিশিষ্ট চিকিৎসক অধ্যাপক ডাঃ এম ইউ কবির চৌধুরী এক কুখ্যাত সন্ত্রাসীকে তার ঢাকাস্থ বাসভবনে আশ্রয় দিয়েছেন। পরবর্তীতে এই মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব ডাঃ কবির চৌধুরীর বাসায় গিয়ে দেখে যে ফকির শরীফ চৌধুরী ভুয়া তথ্য দিয়ে তাদের বোকা বানিয়েছেন এবং তার মূল উদ্দেশ্য ছিলো খ্যাতিমান এই চিকিৎসককে হয়রানী করা। এক্ষেত্রে যদিও মিথ্যে তথ্য দিয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে বিভ্রান্ত করা এবং দেশের একজন শীর্ষ চিকিৎসকে হয়রানীর অভিযোগে শরীফ চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা উচিত ছিল, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

এই অপরাধ করার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ফকির শরীফ চৌধুরী আবারও সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই থানাধীন ভাটিপাড়া জমিদার বাড়ি সম্পর্কে ভুয়া তথ্য সম্বলিত একটি লিফলেট বিতরণ করেন।

এবিষয়ে শরীফ চৌধুরীর সাথে তার ফোন নম্বর 01764-214669-এ যোগাযোগ করলে তিনি দাবি করেন যে লিফলেটের তথ্য “প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য” তিনি বিতরণ করেছেন এবং তিনি “প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে” চান।

এ পর্যায়ে তাকে লিফলেটের অভিযোগ, যেখানে তিনি দাবী করেছেন ভাটিপাড়া জমিদার পরিবারের সদস্যরা “বঙ্গবন্ধুর মূল খুনি”, এ সম্পর্কে প্রমাণ দিতে বললে, শরীফ চৌধুরী গর্ব করে বলেন তার ছেলে মারজান চৌধুরী বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর কর্পোরাল এবং তিনি এই স্পরশকাতর বিষয়ে নিশ্চিত হয়েই লিফলেট বিতরণ করেছেন।

এ পর্যায়ে শরীফ চৌধুরীকে তার বর্তমান ঠিকানা দিতে বললে তিনি বলেন, “এটা ৮৮ নম্বর, ঢাকা সেনানিবাস”। যখন তাকে বলা হয় এটা সম্পূর্ণ ঠিকানা নয়, তখন শরীফ চৌধুরী তাড়াহুড়ো করে কল কেটে দেন এবং মিনিট দুয়েক পর আবার কল করে বলেন, “আমি দুবার হার্ট অ্যাটাকের রোগী। আমার ব্রেন ঠিকমতো কাজ করেনা। তাই, আমার অনেক কিছুই মনে নেই। আমি এখন সিলেটে আমার মেয়ের বাসায় আছি”।

যখন তাকে স্মরণ করিয়ে দেয়া হয় কয়েক মিনিট আগে তিনি ঢাকা সেনানিবাসে ছিলেন বলে দাবি করেন তখন শরীফ চৌধুরী বলেন, “হ্যাঁ, আমি গতকাল ঢাকা সেনানিবাস থেকে এসেছি এবং এখন আমার মেয়ের বাড়িতে আছি”।

এ পর্যায়ে শরীফ চৌধুরীর কাছে তার ছেলের ফোন নম্বর চাইলে তিনি বললেন, আমি নম্বর মনে করতে পারছি না। যখন বলা হয় আপনার মেয়েকে বলুন আমাদেরকে আপনার ছেলের নম্বরটা দিতে তখন শরীফ চৌধুরী বলেন, “আমি এক মিনিটের মধ্যে নম্বর দিচ্ছি”। শরীফ চৌধুরী কল কেটে দিতেই আরেকটা কল আসে। এবার বিমান বাহিনীর কর্পোরাল মারজান চৌধুরী পরিচয়ে একজন বলেন তার বাবা শরীফ চৌধুরী “মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন” এবং “তিনি এমন কাজ অতীতেও করেছেন।

কর্পোরাল মারজান চৌধুরীর এই বক্তব্য প্রমাণ করে যে তিনি তার বাবার এমন অপকর্ম সম্পর্কে অবগত আছেন। এরপর যখন তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, লিফলেটটি কি সেনানিবাস এলাকায় তৈরী করা হয়েছে, তখন তিনি কল কেটে দেন।

পরে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই থানার ভাটিপাড়া গ্রামের একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়, ফকির শরীফ চৌধুরী বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর কর্পোরালের পিতা পরিচয় দিয়ে অসংখ্য মানুষকে হয়রানি করে আসছেন। সূত্রটি আরও জানায়, ফকির শরীফ চৌধুরী মানসিক ভারসাম্যহীন নন, বরং উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এ ধরনের কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

বিশ্বস্ত সূত্রে আরো জানা গেছে, ফকির শরীফ চৌধুরী ও তার পুরো পরিবার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এর কট্টর সমর্থক। আরও জানা গেছে যে ফকির শরীফ চৌধুরী তার ছেলেকে “বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর অফিসার” হিসাবে মিথ্যা পরিচয় দেন, এমনকি তিনি অনেকবার দাবি করেছিলেন যে, তার ছেলে “র‌্যাবের অফিসার”।

Previous articleপ্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তানের ছবি
Next articleনতুন সাতটি সিনেমার কাজ শুরু করছেন ডিপজল

Leave a Reply