জমজমাট প্রতিবেদক

ময়মনসিংহের মেয়ে সাদিয়া শিমুল ঢাকায় এসেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে। তখন শোবিজ পথ পরিক্রমায় পথিক হওয়ার কোনো পরিকল্পনাই ছিল না এই সুন্দরী রমণীর। হয়তো তার কপালে লেখা ছিল শোবিজ সেলিব্রেটি হবেন। তাই তো পড়াশোনা চলাকালীন শোবিজে উপস্থাপনার মাধ্যমে। সেই যে শুরু, সেটা এখন দারুন বেগবান। সাদিয়া শিমুল এখন প্রতিনিয়ত দেশের বিভিন্ন টেলিভিশন অনুষ্ঠান স্টেজ শোসহ বিভিন্ন কর্পোরেট শো’র দর্শকপ্রিয় উপস্থাপিকা। দিনে দিনে বেড়েছে তার জনপ্রিয়তা আর ব্যস্ততা। সুন্দরী – গ্ল্যামারাস সাদিয়া শিমুল তার উপস্থাপনা ক্যারিয়ারে অনেক বড় চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন। কিন্তু অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ না থাকায় সব প্রস্তাবই সবিনয়ে ফিরিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু এবার আর পারেননি, তিনি অবশেষে বিনোদনের বৃহৎ মাধ্যম চলচ্চিত্রে অভিনেত্রী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেন।

সাদিয়া শিমুল এই প্রতিবেদক জানান, সরকারি অনুদানের ‘শ্রাবণ জ্যোস্নায়’ নামের একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন। ইতিমধ্যে ছবিটির শুটিংও করেছেন তিনি। ইমদাদুল হক মিলনের গল্প অবলম্বনে ছবিটি পরিচালনা করছেন আশির দশকের জনপ্রিয় ছবি ঝিনুক মালা খ্যাত নির্মাতা আবদুস সামাদ খোকন। সাদিয়া শিমুল ছবিটির একটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করছেন।

চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ প্রসঙ্গে সাদিয়া শিমুল বলেন, আমার শোবিজ ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই অনেক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের অনেক প্রস্তাব পেয়েছি। এমনকী নাটকেরও। কিন্তু উপস্থাপনা করতেই আমার বেশি ভালো লাগতো সবসময়, তাই তো অভিনয় কখনও টানেনি আমাকে। চাইলে হয়তো অনেক আগেই আরও কাজ করতে পারতাম, কিন্তু আমার আগ্রহ জাগেনি কখনও।

তিনি আরও বলেন, এই ছবিতে অভিনয় করার জন্য পরিচালক খোকন স্যার বেশ কয়েকদিন ধরেই আমার সাথে কথা বলেছেন। সত্যি বলতে এটাতেও আমার ওভাবে আগ্রহ ছিলো না। কিন্তু উনি সিনিয়র নির্মাতা, তিনি জানালেন, এটা হয়তো তার শেষ ছবি হবে! তারপর সিদ্ধান্ত নিলাম কাজটি করার। উনি এরপর আর চলচ্চিত্র নির্মাণ করবেন না, এটাই শেষ – এই কথা শোনার পর মনে হলো কাজটি করি। আমার এই ডেব্যু ছবিতে আমাকে দেখা যাবে দীঘির বড় বোন ভ্রমরের চরিত্রে। এটি দেশের বাইরে থাকা উচ্চবিত্ত পরিবারের একটি মেয়ের চরিত্র। ১৮ সেপ্টেম্বর মিরপুরে এই ছবির শুটিংও করেছি।

সাদিয়া শিমুল চলতি সময়ে টেলিভিশন শো এবং স্টেজ শো’র একজন জনপ্রিয় ও ব্যস্ত উপস্থাপিকা। ভালো লাগার জায়গা থেকে উপস্থাপনা করেন। তিনি ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন। এছাড়াও তিনি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গেলো অক্টোবরে সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত শ্রাবণ জোৎস্নায় ছবিটির শুটিং শুরু করেছিলেন পরিচালক আব্দুস সামাদ খোকন। তার এই ছবিতে প্রথমবার জুটি বাঁধেন কলকাতার ‘করুণাময়ী রানি রাসমণি’ সিরিয়ালের রানি রাসমণির স্বামী চরিত্র রাজচন্দ্র দাস চরিত্রে অভিনয় করা বাংলাদেশেরই গাজী আবদুন নূর এবং চিত্রনায়িকা প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। ছবিতে নূর – দীঘি ছাড়াও অভিনয় করছেন মুনমুন আহমেদ, সুব্রত, মাসুম বাশার, মিলি বাশারসহ আরো অনেকে।

Previous articleআজ ঢাবিতে মাতাবেন ‘বিউটি সার্কাস’ টিম
Next articleনায়িকা ছাড়াই সিনেমার প্রচারনায় ব্যস্ত নির্মাতা-প্রযোজক

Leave a Reply