জমজমাট প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে
হাওয়া’ সিনেমায় একটি শালিক পাখি নিয়ে যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে, সেটিকে ‘দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমন।

এদিন নির্মাতা, শিল্পী ও কলাকুশলীদের ‘বাংলা চলচ্চিত্র বা কন্টটেন্টে সেন্সরশিপের খড়গ গল্প বলার স্বাধীনতা চাই’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এ সময় একান্ত আলাপচারিতায় মেজবাউর রহমান সুমন বলেন, ছবিতে খাঁচার ভেতরের পাখিটা আমি অবমুক্ত করে দিয়েছি। সিনেমা আর রিয়ালিটি এক নয়। এটা খুব দুঃখজনক। সামনে আরেকটা সিনেমা তৈরি করব। সেই সময় দেখা যাবে আরও দশটা সমস্যা তৈরি করবে। তখন দেখা যাবে, আমি নিজেই খাঁচার ভেতরে ঢুকে যাচ্ছি!

তিনি বলেন, আমাদের এই জায়গায় থেকে বের হতে হবে। হাওয়ার মতো একটি চলচ্চিত্র নিয়ে এমনটা আমরা আশা করি না। এটি বিব্রতকর। শিল্পের প্রতি দায় থেকে আমরা কাজ করি, অনেকের শ্রম ও মেধা ব্যয় হয়।

‘হাওয়ার পাখিটি রূপক অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে। ছবির শুরুতে ডিসক্লেইমারে আমরা সুস্পষ্ট উল্লেখ করেছি সেটা। পাখিটির দৃশ্য ধারণের পর আমরা তাকে প্রকৃতিতে মুক্ত করে দিয়েছিলাম। আর নৌকায় যে উড়িয়ে দেওয়ার দৃশ্য দেখিয়েছি সেটা কম্পিউটার গ্রাফিক্সের মাধ্যমে নির্মাণ করা।

এর আগে, হাওয়া সিনেমার পরিচালকের বিরুদ্ধে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন ২০১২ লঙ্ঘনের অভিযোগে মেজবাউর রহমান সুমনের বিরুদ্ধে মামলাটি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

গত ১০ আগস্ট এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দেয় দেশে পরিবেশ ও প্রকৃতি নিয়ে কাজ করা ৩৩টি সংগঠনের সমন্বিত প্রয়াস বাংলাদেশ প্রকৃতি সংরক্ষণ জোট (বিএনসিএ)। এর পরদিন প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে চলচ্চিত্রটি দেখে আইন লঙ্ঘনের প্রমাণ মিলেছে বলে জানান বন অধিদপ্তর গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্যরা।

Previous articleঅমিতাভ বচ্চন দ্বিতীয়বারেরর মত করোনা আক্রান্ত
Next articleকার্তিকের সঙ্গে রোম্যান্স করতে মুখিয়ে আছেন কিয়ারা

Leave a Reply