তাজুল ইসলাম

মার্কিণ যুক্তরাষ্ট্রসহ গোটা বিশ্ব যখন জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে তখন মানুষরূপী কিছু কীট যেমন-তাসনিম খলিল, জুলকারনাইন সামি এবং হাসিনুর রহমান জঙ্গীদের পক্ষ নিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। এরা একেকজন ক্ষুদে ওসামা-বিন-লাদেন কিংবা সিরাজউদ্দিন হাক্কানী। কদিন আগে মার্কিণ যুক্তরাষ্ট্র নিনজা মিসাইল ছুঁড়ে আফগানিস্থানের কাবুলে আল-কায়েদা নেতা আইমান-আল-জাওয়াহিরিকে খন্ড-বিখন্ড করেছে। এর আগে আবু বকর আল বাগদাদী এবং ওসামা বিন লাদেনকে একই পদ্ধতিতে নির্মূল করা হয়েছে। এসব কি মানবাধিকার লংঘন? সন্ত্রাসবিরোধী এসব অভিযানের বিরুদ্ধে পৃথিবীর কোথাও গিয়ে কি নালিশ করা যাবে? অবশ্যই না। কারন পৃথিবীকে নিরাপদ রাখার স্বার্থে এদের কে নির্মূল করা জরুরী ছিলো। অথচ বাংলাদেশে যখন হাসিনুর, শেখ মোহাম্মদ সেলিমসহ জঙ্গীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয় তখন তাসনিম খলিল কিংবা জুলকারনায়েন সায়ের সামির গাঁ জ্বলে কেন?

ইংরেজিতে একটি শব্দ আছে, “HEARSAY’’ যা বাংলায়ে অনুবাদ করলে দাঁড়ায় “কানকথা’’। পৃথিবীর কোনো সভ্য সমাজে কানকথা’র পাঁচ পয়সার মূল্য নেই। কিন্তু তাসনিম খলিল, সামি এবং ওই গোত্রের দূর্বৃত্তরা কানকথা বানায়, কানকথা ছড়ায় এবং কানকথা’র উপর ভিত্তি করে বিশ্ববাসীকে বেকুব বানানোর অপতৎপরতা চালায়।

এক যুগের বেশি সময় ধরে চলচ্চিত্র ও নাটক নির্মাণের সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত আছি। তাসনিম খলিল গং-রা নাটক বানিয়ে, বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এসব যারা দেখে এবং দেখে লাফায় তার সবাই গন্ডমূর্খ। আমার কাছে প্রমান আছে, বিদেশীদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাসনিম খলিল গ্যাং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ওদের মিশন যুদ্ধ অপরাধীদের ক্ষমতায় বসিয়ে বাংলাদেশকে আফগানিস্থান বা পাকিস্তান বানিয়ে দেয়া। তাসনিম খলিলদের গুজবের কারখানায় বানোয়াট তথ্য দিয়ে যারা দেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এদের এক্ষুনি খুঁজে বের করতে হবে। গুজব ছড়ানো ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক একাউন্টগুলো বন্ধ করার ব্যবস্থা নিতে হবে। এটা করা খুব বেশি কঠিন কাজ নয়।

Previous articleমিশার মন্তব্যে ক্ষেপে গেলেন অনন্ত জলিল
Next articleঢালিউড কিং শাকিব খান দেশে ফিরছেন ফুল দিয়ে বরণের প্রস্তুতি চলছে বিমানবন্দরে

Leave a Reply