জমজমাট ডেস্ক

১৯৫০ সালের ১৪ আগস্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার বক্সনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আবুল খায়ের জসিম উদ্দিন। তবে তিনি জসিম নামেই অধিক পরিচিত।।আজ জসিমের শুভ জন্মদিন।

জসিম ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন সৈনিক হিসেবে দুই নম্বর সেক্টরে মেজর হায়দারের নেতৃত্বে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন।

তিনি একাধারে অভিনেতা, প্রযোজক, ফাইট পরিচালক ও একজন মুক্তিযোদ্ধা। অনেকেই তাকে বাংলা চলচ্চিত্রের অ্যাকশনের পথপ্রদর্শক হিসেবে মনে করেন। তিনি প্রখ্যাত অভিনেতা আজিমের হাত ধরে চলচ্চিত্রে আসেন।

১৯৭২ সালে ‘দেবর’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে জসিমের আত্মপ্রকাশ। এ সিনেমায় তার অভিনয় পরিচালকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। অল্পদিনের মধ্যেই চলচ্চিত্রে ব্যস্ত হয়ে পড়েন জসিম। ১৯৭৩ সালে তিনি ‘রংবাজ’ সিনেমায় অ্যাকশন পরিচালক হিসেবে কাজ করে প্রশংসিত হন।

নায়ক জসিম খল চরিত্রে অভিনয় করেন দেওয়ান নজরুলের ‘বারুদ’, ‘আসামি হাজির’, ‘ওস্তাদ সাগরেদ’, ‘জনি’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘কুরবানি’সহ অনেক ব্যবসা সফল সিনেমায়।

১৯৮০-এর দশকের শুরুর দিকে সুভাষ দত্তের পরিচালনায় ‘সবুজ সাথী’ সিনেমার মাধ্যমে তিনি নায়ক হয়ে পর্দায় হাজির হন। ভিলেন থেকে নায়ক চরিত্রে এসেও ব্যাপক সাফল্য পান জসিম। তিনি ববিতা, সুচরিতা, শাবানা, রোজিনা সহ সে সময়ের সফল নায়িকাদের বিপরীতে অভিনয় করেন।

১৯৯৮ সালে ৮ অক্টোবর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এই অভিনেতা। খল চরিত্র দিয়ে অভিনয়ের ক্যারিয়ার শুরু করলেও পরে নায়ক হিসেবে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি। তাকে ধরা হয় বাংলাদেশের অ্যাকশন ধারার চলচ্চিত্রের অন্যতম প্রবর্তক। বিভিন্ন চলচ্চিত্রে তাকে শোষণ-বঞ্চিত মানুষের প্রতিনিধি হিসেবে দেখা যায়।

Previous article৯ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ভারতীয় নায়িকা সাবর্নী’র ‘ও মাই লাভ’
Next articleজিয়াউদ্দিন আলমের পরিচালনায় সাইফ চন্দন ও আফ্রি সেলিনা’র ‘রংবাজ’

Leave a Reply