রঞ্জু সরকার

বাংলা আধুনিক গানের সুরের আকাশে ধ্রুবতারার মতো উজ্জ্বল এক নাম আলাউদ্দিন আলী। গুণী এই সুর স্রষ্টা বহু স্মরণীয় গানের সুরকার। চিরায়ত বাংলা গানের সুরের সঙ্গে আধুনিক সঙ্গীত ভাবনার অসাধারণ সংযোগ স্থাপন করেছেন আলাউদ্দিন আলী। বাংলা সঙ্গীতের গুণী এ মানুষটি ২০২০ সালের এই দিনে মারা যান। আজ তার দ্বিতীয় মৃত্যবার্ষিকী।

আলাউদ্দিন আলী ১৯৫২ সালের ২৪শে ডিসেম্বর মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ী থানার বাঁশবাড়ী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত সাংস্কৃতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে সাতবার এবং গীতিকার হিসেবে একবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছেন। আলাউদ্দিন আলী ১৯৭৫ সালে সঙ্গীত পরিচালনা করে বেশ প্রশংসিত হন।

উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সুরস্রষ্টা আলাউদ্দিন আলীর জনপ্রিয় ও কালজয়ী কিছু গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য গান হচ্ছে- ‘একবার যদি কেউ ভালোবাসতো’, ‘যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়’, ‘শেষ কোরোনা শুরুতে খেলা’, ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ’, ‘ভালোবাসা যতো বড় জীবন ততো বড় নয়’, ‘দুঃখ ভালোবেসে প্রেমের খেলা খেলতে হয়’, ‘হয় যদি বদনাম হোক আরো’, ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার’, ‘সুখে থাকো ও আমার নন্দিনী’, ‘সূর্যদয়ে তুমি সূর্যাস্তেও তুমি’।

‘জন্ম থেকে জ্বলছি মাগো’, ‘বন্ধু তিনদিন তোর বাড়িত গেলাম দেখা পাইলাম না’, ‘যেটুকু সময় তুমি থাকো পাশে’, ‘এমনওতো প্রেম হয় চোখের জলে কথা কয়’, ‘কেউ কোনদিন আমারে তো কথা দিল না’, ‘আমায় গেঁথে দাওনা মাগো একটা পলাশ ফুলের মালা’, ‘শত জনমের স্বপ্ন তুমি আমার জীবনে এলে’, ‘মাঝি তুমি মাঝ গাঙ্গে নাও বাইয়া যাও’, ‘যেভাবে বাঁচি বেঁচে তো আছি’, ‘ইষ্টিশানের রেইলগাড়িটা’, ‘এক হৃদয়হীনার কাছে হৃদয়ের দাম কি আছে’, ‘বাবা বলে গেলো আর কোনদিন গান কোরোনা’, ‘তোমাকে দেখলে একবার মরিতে পারি শতবার’, ‘সাগরিকা’।

‘এই দুনিয়া এখন তো আর সেই দুনিয়া নাই’, ‘ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা’, ‘হারানো দিনের মতো হারিয়ে গেছ তুমি’, ‘ভুলে গেছে শান্ত ভুলিনি আমিতো’, ‘দুঃখ ছাড়া হয় না মানুষ’, ‘বাড়ির মানুষ কয় আমায় তাবিজ করেছে’, ‘তোমাকে চাই আমি আরো কাছে’, ‘ঝরঝর বারি ঝরে’, ‘বিচ্ছু মুক্তিসেনা’, ‘আমি আছি থাকবো ভালোবেসে মরবো’, ‘সানি সানি ডে’, ‘তোমারো দুনিয়া দেখিয়া শুনিয়া’, ‘কাগজ আছে কলম আছে ও কি বা যাদু জানো’।

আলাউদ্দিন আলীর নিজ কণ্ঠে গাওয়া গানের মধ্যে উল্লেখযোগ্য গান হচ্ছে- ‘তুমি আরেকবার আসিয়া, যাও মোরে কান্দাইয়া’, ‘রাঙামাটির রঙ্গে চোখ জুরালো’, ‘ধনে আর ধানে ভরা’, ‘চক্ষের নজর এমনি কইরা’, ‘কত কাদলাম কতগো সাধলাম’, ‘স্বজনীগো’, ‘ছুইয়োনা ছুইয়োনা’, ‘এমনি করে একদিন প্রেম হয়ে যায়’, ‘আমি জোতিষীর কাছে যাবো’, ‘মানিকগঞ্জের বড়মিয়া’, ‘বুকে আমার আগুন জ্বলে’, ‘প্রেমের আগুনে’, ‘হায়রে স্মৃতি বড় জ্বালাময়’, ‘ও আমার বাংলা মা তোর’, ‘এ জীবন তোমাকে দিলাম বন্ধু’, ‘পাবো কিনা আমি তা জানি না’, ‘পারি না ভুলে যেতে’, ‘স্মৃতিরো মালা গেথে’।

‘হায়রে কপাল মন্দ চোখ থাকিতে অন্ধ’, ‘শুধু কি আমার ভুল’, ‘আমার মনের ভিতর অনেক জ্বালা আগুন হইয়া জ্বলে’, ‘অন্তর জ্বালাইলা’, ‘সবাই বলে বয়স বাড়ে আমি বলি কমেরে’, ‘আর কোনো অনুরোধ’, ‘এমনোতো প্রেম হয়’, ‘চোখের জ্বলে কথা কয়’, ‘এসোনা আমার জীবনের জীবন’।

‘তুমি চলে গেছো আমারে কাঁদিয়ে’, ‘কিছুতেই তারে আর বোঝানো গেলোনা’, ‘আবার কখন কবে দেখা হবে বন্ধু’, ‘দু:খ দেয়ার মানুষটা হারিয়ে গেছে’, ‘যদি কোনোদিন কোনো মুক্তির কথা লিখতে হয়’, ‘আমি যে প্রেমে পড়েছি’, ‘দয়াল কি সুখ তুমি পাও’, ‘দিন থাকিতে হাইট্টা যাইয়ো’, ‘দেরি কইরো না’, ‘তুমি আমার মনের মানুষ’ ইত্যাদি।

আলাউদ্দিন আলী নেই, তবে তিনি আজীবন বেঁচে থাকবেন তার কর্মের মধ্য দিয়ে। যে অসংখ্য কালজয়ী গান তিনি রেখে গেছেন, সেগুলোর জন্যই সঙ্গীতপ্রেমীদের মনে যুগ যুগ বেঁচে থাকবেন একজন আলাউদ্দিন আলী।

Previous articleকলকাতার অভিনেতা শৈবাল ভট্টাচার্য আত্মহত্যার চেষ্টা
Next articleযশোরের মণিহার প্রেক্ষাগৃহে ‘হাওয়া’ সিনেমা ৪ দিনে ২০ লাখ টাকার টিকিট বিক্রি!

Leave a Reply