জমজমাট ডেস্ক

ভারতের হিন্দি টেলিভিশন নাটকের পরিচিত মুখ শামা সিকান্দার। নিজের অভিনয় দক্ষতায় দর্শকদের মন জিতেছেন এই অভিনেত্রী। সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেশ সক্রিয় শামা। ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ার সংখ্যা প্রায় ২.৮ মিলিয়ন। ৪ আগস্ট ছিল তার জন্মদিন।

ছোট পর্দায় একাধিক কাজ করলেও শামা লাইমলাইটে আসেন ২০০৩ সালে, ‘ইয়ে মেরি লাইফ হ্যায়’ ধারাবাহিক নাটকের মাধ্যমে। তবে তার জীবন ও কেরিয়ার উত্থান-পতনে পূর্ণ। জীবনে বহু কষ্টের মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে। যখন তার টেলিভিশন কেরিয়ার খুব ভালই চলছিল, সে সময় হঠাৎ কাজ থেকে বিরতি নিয়ে সকলকে অবাক করে দিয়েছিলেন শামা। দীর্ঘদিন তাকে পর্দায় দেখা যায়নি।

ছয় বছর আগে শর্ট ফিল্ম ‘সেক্সোহলিক’র মাধ্যমে শোবিজ জগতে ফিরে আসেন সেক্সী লুকের এই অভিনেত্রী। এই শর্ট ফিল্মে অনেক চুম্বন দৃশ্য ছিল, যা রীতিমতো চর্চায় আসে। ধারাবাহিকে একজন সহজ-সরল, সংস্কৃতিমনা চরিত্রে তাকে দেখার পর হঠাৎ তার চেহারার রূপান্তর দেখে চমকে গিয়েছিলেন অনেকেই। শামার স্টাইল স্টেটমেন্ট সম্পূর্ণ বদলে যায় ওইসময় থেকে।

যাকে একেবারে ট্রাডিশনাল ভারতীয় পোষাকে দেখে সকলে অভ্যস্ত ছিলেন, সে বিকিনিতে সামনে আসার পর হতবাক হয়েছিলেন অনেকেই। এরপর শামার গ্ল্যামারাস লুক, নেটিজেনদের চর্চায় আসে। অনেকেই মনে করেন তিনি প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছেন। তবে এসব গুজব অস্বীকার করে এগুলোকে ভিত্তিহীন বলে দাবী করেন অভিনেত্রী। শামা বলেন, এটি একটি কসমেটিক পদ্ধতি। আমি তখন ছোট ছিলাম, এখন বড় হয়েছি। তাই পরিবর্তন আসাটাই স্বাভাবিক।

‘সেক্সোহলিক’র পর বিক্রম ভাটের ওয়েব সিরিজ ‘মায়া’তেও কাজ করেছেন শামা। এই সিরিজটিতেও ছিল তার একাধিক সাহসী দৃশ্য। এই সিরিজে শাইনি আহুজার সঙ্গে দেখা যায় শামাকে। এক সাক্ষাৎকারে শামা বলেন যে, তিনি ১৪ বছর বয়সে যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছিলেন। তিনি অভিযোগ তোলেন যে, একজন পরিচালক তার উরুতে হাত রাখেন খারাপ ভাবে। কিন্তু পরে সে হাত সরিয়ে নেয়। ছোটবেলা থেকেই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ শুরু করেন শামা।

পরিচালকের এই আচরণের পর তিনি খুব ভয় পেয়েছিলেন। কিন্তু অভিনেত্রীর প্রতিক্রিয়া পেয়ে, তাকে হুমকি দেওয়ার চেষ্টা করেন পরিচালক। শমা বলেন, সেই পরিচালক আমায় বলেছিলেন, তুমি মনে করো তারকা হতে পারবে ? এখানে কেউ তোমায় ছাড়বে না। পরিচালক না হলে প্রযোজক বা নায়ক, কেউ বা অন্য কেউ তোমার সুযোগ নেবেই। এই কথা শোনার পর, নিজেকে সামলাতে অনেকটা সময় লেগেছিল শামার। তখন তিনি বয়সে ছোট হলেও, তার অনেক বড় বড় স্বপ্ন ছিল। এই উত্থান-পতনের সঙ্গে লড়াই করার সময়, শামা কোনও ভাবে কাজ পেতে সক্ষম হন। একাধিক প্রজেক্টে দেখা যায় তাকে। একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, কীভাবে হতাশার বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন তিনি।

শামা বলেন যে, কর্মবিরতি নেওয়ার আগে তিনি বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং বিষন্নতা শিকার হয়েছিলেন। ইন্ডাস্ট্রির দ্বিমুখী দুনিয়ায় আমি ক্লান্ত, বলেন অভিনেত্রী। তিনি আরও বলেন, নিজেকে খোঁজার জন্য তিনি অনেক দূর চলে গিয়েছিলেন এবং এতে তিনি সফলও হয়েছেন। তার কথায় – এখন আমি সৎ জীবনযাপন করছি। এখন সব বুঝি।

জানা যায়, মাত্র চার মাস আগে বিয়ে হয় শামা সিকান্দারের। কাজের পাশাপাশি, নতুন বিবাহিত জীবনে মনোযোগ দিয়েছেন তিনি। শামা মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কেও মানুষকে সচেতন করে চলেছেন।

Previous articleমালাইকা ও উরফির বিরুদ্ধে মুম্বাই পুলিশের কাছে মামলা দায়ের
Next articleপ্রকাশ পেল পূজা চেরি’র ‘হৃদিতা’ সিনেমার ফার্স্ট লুক

Leave a Reply