জমজমাট ডেস্ক

চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলায় ট্রেনের ধাক্কায় নিহত মাইক্রোবাসের ১১ যাত্রীর মধ্যে পাঁচজনের জানাজা একসঙ্গে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (৩০ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টায় হাটহাজারী উপজেলার খন্দকিয়া ছমদিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জিয়াউল হক সজীব, ইকবাল হোসেন মারুফ, রিদুয়ানুল হক চৌধুরী, গোলাম মোস্তফা নিরু ও সামিরুল ইসলাম হাসানের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া বেলা সাড়ে ১১টায় নজুমিয়া স্কুল মাঠে আরও ৪ জনের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। অন্যদিকে নিহত মারুফ ও জিসানের নামাজে জানাজা শুক্রবার (২৯ জুলাই) রাতে অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এর আগে শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে মিরসরাইয়ের খৈয়াছড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতদের সবার বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার আমান বাজারে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কবীর হোসেন শুক্রবার জানান, মাইক্রোবাসে ১৮ যাত্রী ছিলেন। খৈয়াছড়া ঝরনা দেখে ফেরার সময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী মহানগর প্রভাতীর ধাক্কায় মাইক্রোবাসের ১১ যাত্রী ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এতে আহত হয়েছেন আরও ৭ জন। তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পূর্ব রেলের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা আনসার আলী জানান, ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী মহানগর প্রভাতী ওই লেভেল ক্রসিং পার হওয়ার মুখে খৈয়াছড়াগামী একটি পর্যটকবাহী মাইক্রোবাস লাইনে উঠে পড়ে। সংঘর্ষের পর মাইক্রোবাসটি ট্রেনের ইঞ্জিনের সঙ্গে আটকে যায়। ওই অবস্থায় মাইক্রোবাসটিকে বেশ খানিকটা পথ ছেঁচড়ে নিয়ে থামে ট্রেন।

রেল কর্মকর্তা আনসার আলীর দাবি, ট্রেন আসায় গেটম্যান সাদ্দাম বাঁশ ফেলেছিলেন। কিন্তু মাইক্রোবাসটি বাঁশ ঠেলে ক্রসিংয়ে উঠে পড়ে।

তবে প্রত্যক্ষদর্শী মফিজুল হক জানান, দুর্ঘটনার সময় গেটম্যান ছিলেন না। তিনি জুমার নামাজ পড়তে মসজিদে গিয়েছিলেন।

Previous articleমুক্তি পাচ্ছে ডিপজলের পাঁচ সিনেমা
Next articleআন্তর্জাতিক পর্যায়ে কাজ করতে চান নীলা রহমান

Leave a Reply