রঞ্জু সরকার

উপমহাদেশের সিনেমায় গান বরাবরই শক্তিশালী একটি অনুষঙ্গ। বহু সিনেমা সুপারহিট হয়েছে গানের জনপ্রিয়তার স্রোতে ভেসে। বাংলা সিনেমার ক্ষেত্রে এই ইতিহাস বেশ সমৃদ্ধ।

হয়তো সেই ইতিহাসে নাম লেখাতে চলেছে মেজবাউর রহমান সুমন পরিচালিত ‘হাওয়া’ সিনেমাটি। এতে ব্যবহার হয়েছে হাশিম মাহমুদের ‘সাদা সাদা কালা কালা’ গান। যেটি অনেকের কাছে ‘কালা পাখি’ নামেও পরিচিত।

গানটি প্রকাশের পর থেকেই সারাদেশের মানুষের মন জয় করে নিয়েছে। হাট, মাঠ, ঘাট, শহর, নগরে বেজে চলেছে এই গান। সোশ্যাল মিডিয়াতেও এ গানের রাজত্ব। তাই ‘হাওয়া’ সিনেমাটি রয়েছে সবার আগ্রহে। যার প্রমাণ মিললো এর অগ্রিম টিকিটের বেলায়।

রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্স, যমুনা ব্লকবাস্টার, শ্যামলীসহ দেশের নানা হলে প্রায় ৬-৭ দিনের টিকিট অগ্রিম বিক্রি হয়ে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এদিক থেকে এই ঘটনা বাংলাদেশি সিনেমার ইতিহাসে একটি রেকর্ড বটে। এমনটি সাধারণত দেখা যায় না ঢালিউডে।

শুধু তাই নয়, জানা গেছে ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্সের মোট ৫টি শাখায় শুক্রবার থেকে ২৬টি শো চলবে ছবিটির। এটিই বাংলা সিনেমার ইতিহাসে প্রথমবার ঘটছে বলে জানায় স্টার সিনেপ্লেক্স কর্তৃৃপক্ষ। মুক্তির প্রথম দিনে আর কোনো ছবি সিনেপ্লেক্সের ইতিহাসে এতগুলো শো কখনো চলেনি বলে জানান সিনেপ্লেক্স কর্মকর্তা মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ।

আজ ২৯ জুলাই থেকে যেসব প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে ‘হাওয়া’ সেগুলো হচ্ছে- মধুমিতা (ঢাকা), শ্যামলী (ঢাকা), স্টার সিনেপ্লেক্স (বসুন্ধরা, সনি স্কয়ার, সীমান্ত সম্ভার, এসকেএস টাওয়ার মহাখালী, বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর, ব্লক বাস্টার সিনেমাস (যমুনা ফিউচার পার্ক), লায়ন সিনেমাস (ডিঞ্জিরা), গ্রান্ড সিলেট সিনেপ্লেক্স, সেনা অডিটরিয়াম (সাভার), উল্কা সিনেমা (গাজীপুর), রূপকথা সিনেমা (পাবনা), মধুবন সিনেপ্লেক্স (বগুড়া), ছায়াবাণী সিনেমা (ময়মনসিংহ), শঙ্খ সিনেমা (খুলনা), লিবার্টি সিনেমা (খুলনা), সিনেস্কোপ (নারায়ণগঞ্জ), সিলভার স্ক্রিন (চট্টগ্রাম), সিনেমা প্যালেস (চট্টগ্রাম), সুগন্ধা সিনেমা (চট্টগ্রাম), মম ইন (বগুড়া) ও রুটস সিনেক্লাব (সিরাজগঞ্জ)।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত গুণী অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীসহ এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন শরীফুল রাজ, নাজিফা তুষি, নাসির উদ্দিন খান ও আরও অনেকে।

Previous articleরণবীরের সমালোচনা শার্লিন চোপড়া
Next articleবাচসাস নির্বাচন ২ সেপ্টেম্বর, চূড়ান্ত তফসিল ঘোষণা

Leave a Reply