জমজমাট ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশে পেট্রল ও অকটেনের ঘাটতি নিয়ে মিথ্যা কথায় বিভ্রান্ত না হতে। তিনি বলেন, চাহিদার চেয়ে বেশি পেট্রল-অকটেন দেশে আছে। পেট্রল-অকটেন আমাদের কিনতে হয় না,কিন্তু ডিজেল আমাদের কিনতে হয়।

বুধবার (২৭ জুলাই) স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। রাজধানীর খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা বিশ্বে বর্তমানে কেমন অবস্থা বিরাজ করছে তা আপনারা জানেন। বিপদে যাতে না পড়ি সেজন্য আগে থেকে প্রস্তুতি নিতে হবে। আমরা সাশ্রয়ী হবো। তার মানে এই না যে বিদ্যুৎ নেই।

তিনি আরো বলেন, ‘সমগ্র বিশ্ব মুদ্রাস্ফীতির জন্য হিমসিম খাচ্ছে। করোনা মোকাবিলা করতে করতেই আবার রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। পাল্টাপাল্টি স্যাংকশন। ফলে বিশ্বব্যাপী জ্বালানি খাদ্যের সংকট। সব দেশ বিদ্যুৎ জ্বালানি ব্যবহারে সাশ্রয়ী। ইংল্যান্ড, জার্মানি প্রতিটি দেশে দুঃসময় চলছে। বাংলাদেশে যেন তেমন দুঃসময় না আসে সেজন্য প্রস্তুতি নিয়েছি। সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। তারপরও ভর্তুকি দিয়ে যাচ্ছি। উৎপাদন যেন অব্যাহত থাকে।’

তিনি আরো বলেন, এক ইঞ্চি জমিও যেন খালি না থাকে। সেনা থেকে সব বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছি যাতে এক ইঞ্চি জমি খালি না থাকে। একইসঙ্গে দলের সবাইকে বলবো- উৎপাদন করবেন। এর মাধ্যমে মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবো।’

বিএনপি প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশকে কীভাবে পিছিয়ে নিতে হয় সেটি বিএনপি ভালই জানে। এদের হাতে বাংলাদেশ কখনো নিরাপদ নয়।

উল্লেখ্য, গতকাল ‘দেশে পেট্রল-অকটেন ফুরিয়ে যাচ্ছে, পেট্রলের মজুত আছে ১৩ দিনের এবং অকটেনের মজুত আছে ১১ দিনের’ এমন মিথ্যা তথ্য দিয়ে গুজব রটিয়েছে ডেইলি স্টারসহ কিছু মিডিয়া। যদিও প্রতিবেদনটি প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা সরিয়ে নেয়া হয়। তবে এটাই প্রথম নয়, এর আগেও এসব মিডিয়া দেশবিরোধী বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল।

Previous articleশুক্রবার এনটিভিতে জিকু’র পরিচালনায় ‘মেঘলা আকাশ’ নাটকে প্রিয়ম, সজল ও কেয়ামনি
Next articleভাইরাল সুমি শবনমের ‘ভাল্লাগে’

Leave a Reply