সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

‘পত্রিকা’টার নাম দৈনিক তারা। সম্পাদকের নাম গরুর রাখাল। বলদের রাখাল বললেও ব্যকরনে ভুল হবেনা। বাংলাদেশের ভালো কিছু ওনার গায়ে সয় না। উনি চান জঙ্গিদের ক্ষমতায় বসাতে। দেশ-বিরোধী গরিবের রক্ত চোষা কোনও এক সুদখোর মহাজনকে ক্ষমতায় বসাতে। ইন্টারনেট ঘেঁটে দেখলাম, ওই পত্রিকা নামের ষড়যন্ত্র কারখানার জন্ম হয় ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাষ্ট্র আসামের বিচ্ছন্নতাবাদী গ্রুপ উলফা’র টাকায়। চাঁদপুর জেলায় একটা ঋনখেলাপী দেউলিয়া পাট কারখানার মালিকরা হঠাৎ করে গায়েবানা পুঁজির বদৌলতে মাত্র দশ বছরের মাথায় বনে যান “সফল ব্যবসায়ী”। এরপর ওরা এক-এক করে কিনতে থাকেন বিভিন্ন কলকারখানা – ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অবশেষে ওনাদের খায়েস জাগে পত্রিকা প্রকাশের। এরপরের ঘটনা সবার জানা।

ওই গ্রুপের মালিকানায় প্রকাশিত ‘পত্রিকা’ দৈনিক তারা জন্মলগ্ন থেকেই কট্টর দক্ষিনপন্থি। এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদকের সাখে ছিলো পাকিস্তানীদের দারুণ মাখামাখি। এ কথা কে না জানে!

সম্প্রতি ওই পত্রিকা নামের বলদ কারখানা একটা গুজব ছেড়েছে। বলেছে দেশে নাকি পেট্রল-অকটেন ফুরিয়ে যাচ্ছে, ‘পেট্রলের মজুত আছে ১৩ দিনের এবং অকটেনের মজুত আছে ১১ দিনের’ ইত্যাদি। আর ওই গুজব একসাথে আরো কিছু দেশবিরোধী গণমাধ্যমে প্রায় সিন্ডিকেটে পদ্ধতিতে ছড়ানো হলো। উদ্দেশ্য, দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করে ক্ষমতাসীন সরকারের প্রতি ক্ষেপিয়ে তোলা।

যদিও ওই বলদীয় প্রোপ্যাগান্ডা প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা সরিয়ে নেয়া হয়েছে, কিন্তু এর মাঝেই ওরা সারা দেশে এবং বিদেশে কয়েক লাখ মানুষকে ক্ষনিকের জন্যে হলেও তো বিভ্রান্ত করেছে।

সময় টিভির তথ্য অনুযায়ী, গত মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) ইংরেজি ডেইলি স্টার পত্রিকার বাংলা ভার্সনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘দেশে জ্বালানি তেলের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)। ডলার সংকট ও বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের উচ্চমূল্যের কারণে ব্যাংকগুলোতে লেটার অব ক্রেডিট (এলসি) খুলতে না পারায় এ সংকটের সৃষ্টি করেছে। আগামী আগস্টে ৩ লাখ ৮০ হাজার মেট্রিক টন জ্বালানি তেলের চাহিদার বিপরীতে ১৯ জুলাই পর্যন্ত মাত্র ১ লাখ মেট্রিক টন ঋণ খোলা হয়েছে।’

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘দেশে ডিজেল মজুত ক্ষমতা ৬ লাখ মেট্রিক টনের বেশি। অকটেন মজুত ক্ষমতা ৪৬ হাজার মেট্রিক টন, গ্যাসোলিন ৩২ হাজার মেট্রিক টন, কেরোসিন ৪২ হাজার মেট্রিক টন। আর ১ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল মজুত করা যাবে।’

এ বিষয়ে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ম তামিম সময় টিভিকে বলেন, “বাংলাদেশ পেট্রল ও অকটেন আমদানি করে না বললেই চলে। পেট্রলে এদেশ আত্মনির্ভরশীল। অকটেন কিছু পরিমাণ আমদানি করতে হয়, সেটা বুস্টার হিসেবে। আমাদের গ্যাস ফিল্ডের কনডেনসেট থেকেই দেশের চাহিদার সবটুকু উৎপাদন করা হয়। দেশে অকটেন ও পেট্রলের পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। এ ছাড়া দেশে অকটেন ও পেট্রলের পর্যাপ্ত মজুত থাকলেও কিছু নামধারী মিডিয়া দেশকে শ্রীলংকা বানানোর অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। জনমনে ভীতি তৈরির উদ্দেশ্য নিয়েই এসব গুজব ছড়াচ্ছে”।

তিনি বলেন, “দেশ রসাতলে যাক, তাও সরকার পতন হোক এমন কিছু মানুষ আছে উল্লেখ করে ম তামিম আরও বলেন, কিছু মানুষ আছে দেশের যা হচ্ছে হোক, কিন্তু সরকারকে নাজেহাল করতে হবে। বিভ্রান্তি ছড়াতে হবে। তারাই এ ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে। তারা চাচ্ছে বাংলাদেশর অবস্থা শ্রীলংকা মতো হয়ে যাক। দেশ রসাতলে যাক, তাও সরকারের পতন হোক। আমরাও সরকারের সমালোচনা করি; কিন্তু দেশকে ধ্বংস করে কোনো কিছু করব নাকি?”

শুধু বাংলাদেশের ভেতরেই কিন্তু দৈনিক তারা’ নামের বলদ কারখানা ষড়যন্ত্র ছড়াচ্ছেনা। সাম্প্রতিক সময়ে আমি লক্ষ্য করছি ভারতীয় কিছু অজ্ঞাত ওয়েব সাইটে টাকা খরচ করে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রকাশ করানোর পাশাপাশি আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক কিছু পত্রপত্রিকায় বাংলাদেশ সম্পর্কে খুবই আপত্তিকর ও নেতিবাচক সংবাদ কিংবা নিবন্ধ প্রচার চলছে। জানিনা আমাদের নীতিনির্ধারক মহল কিংবা সংশ্লিষ্ট সংস্থা গুলোর এসব নজরে আসছে কিনা। যদি এসে থাকে তাহলে এসব ক্ষতিকর প্রোপ্যাগান্ডার বিরুদ্ধে আমরা কেন বিদেশের পত্র-পত্রিকায় নিজেদের সত্যিকারের অবস্থান তুলে ধরে ব্যাপকভাবে লেখালেখি করাচ্ছি না?

দৈনিক তারা’ গোষ্ঠীর ষড়যন্ত্র কিন্তু নতুন ঘটনা নয়। এর আগে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধে গ্রামীণ ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পাশাপাশি ওই পত্রিকা নামের প্রোপ্যাগান্ডা ম্যাশিন-সহ আরো কেউকেউ দেশ বিরোধী ভূমিকা রেখেছিলো। এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডির পদ ছাড়তে হলে প্রতিহিংসা থেকে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধের উদ্যোগ নেয়া হয়।

বলদের রাখালের নাম উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন ইনিও সক্রিয়ভাবে ওই ষড়যন্ত্রে যোগ দেন। তারা সশরীরে যুক্তরাষ্ট্রে যান। সে সময়ে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে ইমেইল করেন। আর হিলারি বিশ্বব্যাংকের সে সময়ের প্রেসিডেন্টকে দিয়ে সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করেন। এ ছাড়া এক-এগারোর ষড়যন্ত্রেও লিপ্ত ছিল ওই গণমাধ্যমটি।

২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারির পর সেনা হস্তক্ষেপে গঠিত ফখরুদ্দীন আহমদ’র নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় সূত্রবিহীন খবর যাচাই না করে প্রকাশের জন্য সাংবাদিকতার ‘ভুল’ স্বীকার করেন ওই সম্পাদক।

২০১৬ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজে এক অনুষ্ঠানে প্রশ্নের মুখে তিনি বলেন, ‘এটা আমার সাংবাদিকতার জীবনে, সম্পাদক হিসেবে ভুল, এটা একটা বিরাট ভুল। সেটা আমি স্বীকার করে নিচ্ছি।’

কিন্তু ভুল স্বীকার করার পরও তিনি আবার কেনো ওই ভুল পথেই হাটছেন? এটাকে কি তাহলে ভুল না বলে ইচ্ছেকৃত ষড়যন্ত্র বললে অন্যায় হবে?

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র চলছে। বাংলাদেশেকে একটা ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরার অশুভ প্রতিযোগীতা চলছে। এসব ষড়যন্ত্র এক্ষুনি কার্যকরভাবে প্রতিহত করাটা ভীষণ জরুরী।

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একাধিক পুরষ্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক, গবেষক, লেখক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক।

Previous articleভাইরাল সুমি শবনমের ‘ভাল্লাগে’
Next articleঅশ্লীল সিনেমার প্রযোজকদের নিয়ে মুখ খুললেন ইকবাল

Leave a Reply