জমজমাট ডেস্ক

উভয় দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৩০ তম বার্ষিকী উপলক্ষে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেনকে আগামী বছর বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কম্বোডিয়া সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন দেশটির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে তাকে এ আমন্ত্রণ জানান।

শনিবার ( ১৬ জুলাই) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, কম্বোডিয়ার রাজধানী নোমপেনে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ নামে একটি বড় ও মনোরম সড়কের উদ্বোধন করা হয়েছে। দেশটির প্রদেশের গভর্নর ও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে সড়কটি উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ সফরে দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের একটি সমঝোতা স্মারক সই, নমপেনে কম্বোডিয়ার নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাত, একটি বক্তৃতা প্রদান, মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলা এবং কম্বোডিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে সাক্ষাতে ব্যস্ত সিময় পড় করেছেন।

ড. মোমেন কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে তারা বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং আগামী দিনে সম্পর্ক আরও জোরদার করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিজস্ব সম্পদ ব্যবহার করে চ্যালেঞ্জিং পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প সফলভাবে বাস্তবায়ন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের জনগণকে অভিনন্দন জানান। তিনি সেতুটিকে কম্বোডিয়ার মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্যও গর্বের প্রতীক হিসেবে অভিহিত করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘শ্রদ্ধেয় বড় বোন’ হিসেবে বর্ণনা করে তাকে শুভেচ্ছা জানান।

ড. মোমেন আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে তাদের স্বদেশে প্রত্যাবাসন ত্বরান্বিত করার জন্য আসিয়ানের বর্তমান চেয়ারম্যান হিসেবে কম্বোডিয়ার নেতার সমর্থন কামনা করেন। তিনি সেক্টরাল ডায়ালগ পার্টনারশিপের জন্য বাংলাদেশের প্রার্থীতার পক্ষে কম্বোডিয়ার সমর্থনেরও অনুরোধ করেন। এ ছাড়া আসিয়ানের চেয়ারম্যান হওয়ার জন্য কম্বোডিয়ার নেতাকে অভিনন্দন জানান।

মোমেন ও হুন সেন মহামারী এবং ইউক্রেন-রাশিয়া সংঘাতের কারণে বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের উপর ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতির চাপের জন্য উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

মোমেন-হুন সেন বৈঠকের পর নমপেনে পররাষ্ট্র ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ-কম্বোডিয়া দ্বিপাক্ষিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এবং কম্বোডিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রাক সোখোন নিজ নিজ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

বৈঠকে উভয় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো পর্যালোচনা করেন। দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী করার জন্য তাদের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। তারা ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, কৃষি, ওষুধ, খাদ্য নিরাপত্তা, জনশক্তি, আইসিটি, পর্যটন, সাংস্কৃতিক বিনিময় ইত্যাদি ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তর আলোচনা করেন।

উভয় পক্ষ দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়ানোর জন্য প্রচেষ্টা চালাতে সম্মত হয়েছে, যা বর্তমানে সম্ভাবনার তুলনায় অনেক নিচে অবস্থান করছে। উভয় পক্ষ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের আরও গতি বাড়াতে আরও উচ্চ পর্যায়ের সম্পৃক্ততার বিষয়ে সম্মত হয়েছে।

দ্বিপাক্ষিক আলোচনার পর উভয় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বাংলাদেশের ফরেন সার্ভিস একাডেমি এবং কম্বোডিয়ার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনসের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

এ উপলক্ষে ড. মোমেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনসে ‘বাংলাদেশে পদ্মা সেতু: দক্ষিণ এশিয়ার সাথে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সংযোগের জন্য নতুন সুযোগের উন্মোচন’ বিষয়ে বক্তৃতা দেন। পরে সন্ধ্যায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী কম্বোডিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে সাক্ষাত করেন এবং দেশের অব্যাহত উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য তাদের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার অবদান রাখার আহ্বান জানান।

Previous articleঅভিনেতা জামিল হোসেনের শারীরিক অবস্থা ভালো নয়
Next articleউর্ফির বোন ডলি জাভেদ এবার আলোচনায়

Leave a Reply