জমজমাট ডেস্ক

ঈদুল আজহা উপলক্ষে রোববার (১০ জুলাই) ১১৫ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে বাংলাদেশ ও ইরানের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত সিনেমা ‘দিন দ্য ডে’। এতে অভিনয় করেছেন অনন্ত জলিল ও বর্ষা। এই সিনেমা দিয়ে দীর্ঘদিন পর বড় পর্দায় এলেন তারা। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন ইরানি নির্মাতা মুর্তজা অতাশ জমজম। বিগ বাজেটে নির্মিত সিনেমাটি মুক্তির প্রথম দিন হতাশ করেছে দর্শকদের! সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চোখ রাখলেই তা দেখা যাচ্ছে।সিনেমাটি দেখে হতাশ হয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত নির্মাতা রিয়াজুল রিজুও। সিনেমা দেখে টিকেটের টাকা ফেরত চেয়েছেন এই নির্মাতা!

‘বাপজানের বায়স্কোপ’ চলচ্চিত্র দিয়ে চমকে দেন তরুণ নির্মাতা রিয়াজুল রিজু। ঘরে তোলেন একসঙ্গে তিনটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়ে এই নির্মাতা লেখেন, দিন দ্য ডে-দিনটা নষ্ট, শতকোটি টাকার আওয়াজে হলে গিয়ে কিছুই না হওয়া একটি ফালতু চলচ্চিত্র দেখে টাকাটা যে, ফেরত চাইব সেই অপশন ছিল না। কারণ, টাকাটা গেট কিপার মেরে দিছে টিকেট দেয়নি। সিনেমা হল নামক ওভেন থেকে বাসায় এসে প্রচন্ড ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম।

নির্মাণ নিয়ে প্রশ্ন তুলে রিজু বলেন, আমাদের টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির একদম জুনিয়র নাটকের নির্মাতাকে ১০ লাখ টাকা দিলেও এর চাইতে সুন্দর প্রোডাকশন বানাতে পারবে। মিশা সওদাগর ভাইয়ের মতো ভালো অভিনয়শিল্পীকে পোস্টারসহ কোনও জায়গায়ই সঠিকভাবে ব্যবহার করা হয়নি। বিষয়টির জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিত।

চাঁদমহল সিনেমা হল (কাঁচপুর) এর কথা উল্লেখ করে এই নির্মাতা লেখেন, জীবনের প্রথম দেখা সিনেমা হল ছিল চাঁদমহল। তখন যদিও অনেক ছোট ছিলাম। ছোট চাচা ডা. রুহুল আমিন ছিল আমার সিনেমা হলে যাওয়ার হাতেখড়ি। খুবই অবাক হয়েছি তিরিশ বছরেও বিন্দুমাত্র পরিবর্তন হয়নি হলের। কোথায় চলে গিয়েছে বিশ্ব, টেকনোলজি ও মানুষ। এই রকম গরম সহ্য করে দর্শক যে এসব হলে এখনও ঢুকে এটাই অনেক বেশি। হল এবং চলচ্চিত্রের উন্নয়ন দুটোই প্রয়োজন। দর্শককে আমরা কষ্টও দিচ্ছি এবং ঠকাচ্ছি দিনের পর দিন।

Previous articleসাত গরু কোরবানি দেওয়া হলো না পরীমণির
Next articleগার্মেন্টস কর্মী ভাড়া করে প্রেক্ষাগৃহে আনা হচ্ছে, শুনে কেঁদে দিলেন চিত্রনায়িকা বর্ষা

Leave a Reply