জমজমাট প্রতিবেদক 

গেলো বছর এবং তার আগের বছর করোনাকালীন কোরবানি ঈদেও এফডিসিতে গরু কোরবানি দিয়েছিলেন তিনি। ২০১৬ সালে একটি গরু কোরবানি দেওয়ার পর প্রতিবছর একটি করে বাড়াতে বাড়াতে গেলো বছর ছয় গরু কোরবানি দিয়েছিলেন। সংখ্যার গাণিতিক হারে এই বছর তার এফডিসিতে সাতটি গরু কোরবানি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে এফডিসির মানুষদের নিরাশ করতে বাধ্য হলেন ঢাকার চলচ্চিত্রের আলোচিত – সমালোচিত – বিতর্কিত ও নিন্দিত নায়িকা পরীমণি। কয়দিন আগেই জানা গেছে, তিনি এবার এফডিসিতে গরু কোরবানি দিচ্ছেন না। সবাই হয়তো ভেবেছিলেন – অমন ঘোষণা দিলেও তিনি হয়তো ঠিকই ঈদের দিন সবাইকে চমকে দিয়ে গরু কোরবানি দেবেন। কিন্তু ঈদের দিন পরীমণি এফডিসিতে শেষ পর্যন্ত আর্থিক সংকটের কারণেই গরু কোরবানি দিতে পারেননি বলে জানা গেছে।

গেলো ছয় বছর ধরে অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে নিজেকে অনন্য হিসেবে জাহির করার জন্যেই পরীমণি এফডিসিতে গরু কোরবানি দিয়েছেন বলে দাবি তার ঘনিষ্ঠ লোকদের। কখনো প্রতিবন্ধী – সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কাছে ছুটে গিয়েছেন, সহায়তা দিয়েছেন। আবার কখনো এফডিসিতে কোরবানি দিয়ে অসহায় কলাকুশলীদের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে – পরীমণি ওগুলো সবটাই করেছেন নিজেকে আলোচনায় রাখার জন্যে। ২০১৬ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত অর্থাৎ টানা ছয় বছর এফডিসিতে কোরবানি দিয়েছেন এই নায়িকা। প্রথম বছর একটি গরু কোরবানি দিয়েছিলেন। এরপর প্রতি বছর একটি করে গরুর সংখ্যা বাড়িয়েছেন। প্রতি বছরই একটি করে বাড়বে বলে জানিয়েছিলেন পরীমণি। কেবল কোরবানি দেন এমন নয়, তিনি নিজে মাংস তুলে দেন শিল্পী ও কলাকুশলীদের হাতে। গেল বছরের ঈদেও পরীমণি একসঙ্গে ৬টি গরু কোরবানি দিয়েছিলেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সামর্থ্যহীন মানুষদের জন্য।

পরীমণি ঘোষণা করেছিলেন – যতদিন বাঁচবেন প্রতি বছর এফডিসিতে গরু কোরবানি দেবেন চলচ্চিত্রের নিম্ন আয়ের মানুষদের জন্য। সেই ধারাবাহিকতায় একটানা ছয় বছর বজায় থাকলেও এবার আর সেটি নায়িকার ক্ষেত্রে সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, এবার সাতটি গরু কোরবানি দেয়ার কথা থাকলেও সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার নিজের ঘোষণা বাস্তবায়ন করতে পারলেন না মূলত: আর্থিক সংকটের কারণে। পরীমণি নিজের বাসার জন্যে কোরবানি দিলেও এফডিসি সংশ্লিষ্ট মানুষদের জন্য এবার আর কোরবানি দিতে পারেননি। তার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র মতে – অন্যান্য বছর মূলত নিজের পরিচিত লোকদের কাছ থেকে পরীমণি অনুদান এনে, সেই অনুদানের টাকায় এফডিসিতে কোরবানি দিয়ে নিজেকে জাহির করতেন। গেলো বছরও তিনি তাদের কাছ থেকে অনুদান সংগ্রহ করে এনে নিজের নামে ছয় গরু কোরবানি দিয়েছিলেন। কিন্তু এবার তিনি গর্ভবতী। একে তো বিয়ে, এর ওপর গর্ভবতী – এই কারণেই নাকি পরীমণি তার পরিচিতদের কাছ থেকে এই বছর কোনো অনুদান আদায় করতে পারেননি। তাছাড়া গর্ভাবস্থায় ঘরে তিনি বেকার সময় পার করছেন। আপাতত তার উপার্জনও বন্ধ। মূলত এই দুই কারণেই পরীমণি এবার এফডিসিতে নিজের প্রতিশ্রুত সাত গরু কোরবানি দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বিভিন্ন চরম বিতর্কিত ও নিন্দিত হওয়া এই চিত্রনায়িকা।

উল্লেখ্য, গেলো বছরের আগষ্টে ব্যক্তিগত একটি ঝামেলায় জড়িয়ে কারাভোগ করতে হয়েছিল তাকে। সে সময় তার জীবনের ওপর দিয়ে একটি ঝড় বয়ে গেছে। এখনও তাকে আদালতের বারান্দায় ছুটতে হচ্ছে নিয়মিত।

ধারণা করা হচ্ছে, সে সব ঝামেলায় জড়িয়ে হয়তো পরীমণি আর্থিক সংকটে পড়েছেন। তাই নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে হয়েছে তাকে। শোনা যাচ্ছে, মামলা চালাতেও তার বড় অংকের অর্থ খরচ করতে হচ্ছে। সম্প্রতি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ পরীমণির নামে নতুন একটি মামলা করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে, এই মামলায়ও পরীমণিকে বেশ ঝামেলা পোহাতে হবে। আর্থিক ক্ষতিও হয়তো হবে মামলা চালাতে গিয়ে। সবকিছু মিলিয়ে এই নায়িকা বর্তমানে সত্যিকার অর্থেই আর্থিক সংকটে আছেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

অন্যদিকে, কারাবাস শেষে পরীমণি শুরু করেছেন নতুন জীবন। ২০২১ সালের অক্টোবরে অভিনেতা শরিফুল রাজ ও পরীমণি ভালোবেসে বিয়ে করেন। পরিচয়ের মাত্র সাত দিনের মাথায় তারা জীবনের সবচেয়ে বড় সিদ্ধান্তটি নেন। এরপর চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি হঠাৎ অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর দেন পরীমণি।

বর্তমানে সে ঘরে অনাগত সন্তানের অপেক্ষায় আছেন তিনি। সবকিছু ঠিক থাকলে আসছে অক্টোবরে রাজ-পরীর ঘরে আলোকিত করে আসবে তাদের প্রথম সন্তান। বর্তমানে নায়িকা সেই অনাগত সন্তানের অপেক্ষায় আছেন।

Leave a Reply