জমজমাট ডেস্ক

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন বাংলাদেশে ইন্দোনেশিয়ার নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলো। এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানান এবং বাংলাদেশে দায়িত্বের জন্য তাকে অভিনন্দন জানান।

সোমবার ( ৪ জুলাই ) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, ড. মোমেন ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশকে দ্রুত স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য ইন্দোনেশিয়ার সমর্থনকে কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেন।

তিনি বাংলাদেশ ও ইন্দোনেশিয়া উভয় দেশে কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনে আনন্দ প্রকাশ করেন।

দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্যের প্রশংসা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুই দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের দ্বারা অনাবিষ্কৃত সম্ভাবনার মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগ আরও সম্প্রসারণ এবং ত্বরান্বিত করার উপর জোর দেন।

তিনি বিশেষভাবে আরএমজি, ফার্মাসিউটিক্যালস, চামড়াজাত পণ্য ইত্যাদি সহ আরও বাংলাদেশী পণ্যের অনুমতি দিয়ে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে আরও ভাল ভারসাম্য বজায় রাখার উপর জোর দেন।

ইন্দোনেশিয়ার বাজারে এবং দ্বি-পাক্ষিক অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তির বিষয়টি আলোচনাধীন রয়েছে। তিনি দুই দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মধ্যে আরও ঘন ঘন যোগাযোগের পরামর্শ দেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইন্দোনেশিয়ান রাষ্ট্রদূতের কাছে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য আর্থ-সামাজিক সাফল্য সংক্ষিপ্তভাবে ব্যাখ্যা করার সাথে সাথে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রূপকল্পের অধীনে বাংলাদেশে ডিজিটাল ইন্টিগ্রেশন এবং আইসিটি উন্নয়নের সাফল্যকে বিশেষভাবে তুলে ধরেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে একমত পোষণ করে ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূতও বাণিজ্য প্রতিনিধি বিনিময়, ট্রেড এক্সপোতে অংশগ্রহণসহ বিভিন্ন মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার করার ওপর জোর দেন।

মতবিনিময়কালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন মানবিক কারণে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের সুবিধার্থে আরও সক্রিয় ভূমিকা পালনের জন্য ইন্দোনেশিয়া ও আসিয়ানের প্রতি আহ্বান জানান।

এছাড়া আসিয়ানের সেক্টরাল ডায়ালগ পার্টনার হিসেবে বাংলাদেশের প্রার্থীতার পক্ষে ইন্দোনেশিয়ার সমর্থনও চেয়েছেন তিনি।

Previous articleচিত্রনায়ক শান্ত খান বিগ বাজেটের তিন সিনেমা নিয়ে প্রস্তুত
Next articleঈদে আসছে রুমার নতুন গান

Leave a Reply