সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

শুরুটা এভাবে করি। ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজীর একজন প্রভাষক। আমার সাথে দেখা করার ইচ্ছে ব্যক্ত করলেন। আমি সাদরে ওনাকে আসতে বললাম। তিনি উচ্ছসিত হয়ে ভুলভাল ইংরেজীতে ট্যাক্সট পাঠাতে লাগলেন। আমি বিরক্ত না হয়ে ক্ষুব্ধ হলাম। দেশের শীর্ষ বিদ্যায়তনে যিনি ইংরেজী পড়ান, তিনি নিজেই ইংরেজী জানেন না। এধরনের গরু-ছাগল এই সমাজকে কি দেবে? কিচ্ছু না। এরকম শিক্ষকের ছড়াছড়ি এখন চারপাশে।

ভিডিও দেখলাম। পুলিশের উপস্থিতিতে এক শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা পড়ানো হচ্ছে। এরপর ওই শিক্ষক একটা বিবৃতি দিলেন। সেটা এখন অনেকেই সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে শেয়ার করছেন। কেউকেউ ওই শিক্ষকের পক্ষ নিয়ে দাবী তুলছেন, “শিক্ষকদের হাতে আবার বেত তুলে দেয়া হোক”! মানে কি? শিক্ষকদের হাতে বেত তুলে দিলেই কি শিক্ষকদের মর্যাদা ফিরে আসবে? যারা শিক্ষকদের হাতে বেত তুলে দেয়ার দাবী তুলছেন, ওনাদের ছেলে মেয়েগুলোকে যে ওনারা গরুছাগলের চাইতেও নিম্নস্তরের ভাবেন এতে আমার কোনো সন্দেহ নেই। একজন শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা পরানোর বদলা হিসেবে গোটা দেশের সব শিক্ষককে আবারও অসভ্য যুগে ফিরিয়ে নেয়ার দাবী তোলা হচ্ছে যেখানে ওরা দলবেধে ছোটছোট ছেলে-মেয়েগুলোকে গরু ছাগলের মতো পেটাবে। মানে, শিক্ষাদানের বদলে শিক্ষার্থীদের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালাবে। এটা কোনো সভ্য লোকের পক্ষে কল্পনা করাও অসম্ভব। যারা শিক্ষকদের হাতে বেত তুলে দেয়ার দাবী তুলছে ওরা অসভ্য, ইতর এবং দুর্গন্ধযুক্ত মনের মানুষ। এগুলোকেই বরং পিটিয়ে হাড়হাড্ডি ভেঙ্গে দেয়া উচিত।

তাই বলে আমি কোনো এক শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা পরানোর সমর্থন করছি না। কিন্তু প্রশ্ন হলো, কেনো ওই শিক্ষকের গলায় জুতোর মালা পরানো হলো? কি তার অপরাধ? যদি তিনি শিক্ষক হয়ে কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে থাকেন তাহলে তো ওনার অপমানিত হওয়াটা খুব অস্বাভাবিক কিছু নয়। শিক্ষক হলেন পূজনীয় ব্যক্তি। তিনি কেনো কারো ধর্ম নিয়ে কটাক্ষ করবেন, কিংবা কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেবেন? তিনি শিক্ষক হয়েছেন বলেই যা খুশী তাই করবেন এটা মেনে নেয়া অনুচিত। আমি মনে করি, ওই জুতো পরানোর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত। প্রয়োজনে হাই কোর্টের একজন বিচারপতির নেতৃত্বে তদন্ত কমিশন গঠন করে। যদি দেখা যায় ওই শিক্ষক যেকোনো পক্ষের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়েছেন তাহলে তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ২৯৫(ক) ধারায় মামলা দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হোক। পাশাপাশি যারা তাকে জুতোর মালা পরিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে কোনো দণ্ডের বিধান থেকে থাকলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হোক।

পরিশেষে বলবো, আমাদের শিক্ষার মান মারাত্মকভাবে নিচে নেমে যাচ্ছে। এরজন্যে অবশ্যই অযোগ্য শিক্ষকদের দায়ী করলে ভুল হবেনা। আমাদের শিক্ষা পদ্ধতি ঢেলে সাজানো হোক। অর্ধ শিক্ষিত শিক্ষকদের চিহ্নিত করে অন্য কোনো পেশায় নিযুক্ত করা হোক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজী পড়াবে অথচ নিজেই ইংরেজী জানবেনা, এমন শিক্ষক আমাদেরকে কেবল একটা প্রতিবন্ধী প্রজন্ম “উপহার” দিতে পারবে। এর বেশি আর কিছুই নয়।

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন জঙ্গীবাদ বিরোধী সাংবাদিক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, কাউন্টারটেরোরিজম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক

Previous article‘সোনার চর’ সিনেমার ডাবিং দিয়ে কাজে ফিরলেন প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী
Next articleহেমন্ত-লতার বিখ্যাত গান নতুন করে গাইলেন বিপ্লব-সুস্মিতা

Leave a Reply