সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

যুগের-পর-যুগ ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছি। মাদ্রাসায় জঙ্গি উৎপাদন হচ্ছে এ কথা বলার “অপরাধে” প্রতিক্রিয়াশীল বিএনপি-জামাত সরকার আমার বিরুদ্ধে ধর্মদ্রোহ এবং রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনেছিলো। বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে দাঁড়িয়ে জামাতের জনসভায় যুদ্ধাপরাধী নিজামী আমার ফাঁসির দাবী তুলেছিলো। আমাকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছিলো মাসের-পর-মাস। এমনকি আমার মায়ের জানাজায় অংশ নিতে দেয়নি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এবং তার জামায়েতী প্রেমিকরা। স্রষ্টার দয়ায় সত্যের বিজয় হয়েছে। ফাঁসি হয়েছে নিজামীর। ফাঁসি হয়েছে যুদ্ধাপরাধী সাম্প্রদায়িক শয়তানদের। আর খালেদা জিয়া? তিনি এখন এতিমখানায় টাকা আত্মসাতের মামলায় সাজাপ্রাপ্ত অপরাধী।

আজ থেকে দুই যুগ আগে আমি যখন নিজের জীবনের ঝুঁকি উপেক্ষা করে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি আর জিহাদীদের বিরুদ্ধে কলম চালিয়ে যাচ্ছি, তখন দুঃখজনকভাবে এদেশের অনেক নেতা-নেত্রীই আমার কন্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে সোচ্চার হননি। ধর্মীয় সংখ্যালঘু আহমদীয়া সম্প্রদায়ের পক্ষে কথা বলার কারণে যখন আমার সম্পাদনায় প্রকাশিত ব্লিটজ এর প্রেসে বোমা হামলা চালানো হয়, তখন এদেশের অধিকাংশ সাংবাদিক একটা বিবৃতি পর্যন্ত দেননি। সেদিন আমার পাশে ছিলো কমিটি টু প্রোটেক্ট জার্নালিস্ট-সহ বহু আন্তর্জাতিক সংগঠন। আমার পাশে তখন ছিলো নিউ ইয়র্ক টাইমসের মতো বাঘা পত্রিকা। এরা আমার পক্ষে সম্পাদকীয় ছেপেছিলো। আমার পাশে দাড়িয়ে ছিলো ভয়েস অফ আমেরিকা, সিএনএন, ফক্স নিউজ সহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। মার্কিন কংগ্রেস, অস্ট্রেলীয়ান পার্লামেন্ট, কানাডীয়ান পার্লামেন্ট, ইউরোপীয়ান পার্লামেন্ট এবং ব্রিটিশ হাউজ অফ কমন্সে আমার পক্ষে একের-পর-এক বিল পাস হয়েছিলো।

যাই হোক, অনেক বছর পর বাংলাদেশের নেতা-নেত্রীরা বুঝতে সক্ষম হলেন ২০০৩ সাল থেকে আমি এদেশে জঙ্গিবাদের নীরব উত্থান সম্পর্কে যে সতর্কবার্তা দিয়ে এসেছি এটা সঠিক ছিলো। এরপর থেকেই শুরু হলো জঙ্গীবাদ আর সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের লড়াই। সে লড়াই এখনও চলছে।

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে বললেন, আমরা ধর্মান্ধ নই, আমরা ধর্মভীরু। ওনার এই বক্তব্যের সাথে আমিও একমত। বাংলাদেশের মানুষ জন্মগতভাবে অসাম্প্রদায়িক। কিন্তু মাঝে-মাঝে কিছু অশুর অপশক্তি তাদের ভুলভাল বুঝিয়ে ধর্মীয় উগ্রবাদের পথে টানে। ওই অপচেষ্টা এখনও চলছে, ভবিষ্যতেও চলবে। কিন্তু আমাদের সবার মনে রাখতেই হবে, আমরা যদি ওই ধর্মীয় উগ্রবাদী অপশক্তির খপ্পরে পড়ি, তাহলে বাংলাদেশ পরিণত হবে আফগানিস্তানে, যেখানে বর্বর তালেবানরা কথিত ইসলামী শাসনের নামে মানুষকে শোষণ করে যাচ্ছে। নারীদের জোর করে বোরকার অন্ধকারে ঢেকে ক্লিব লিঙ্গে পরিণত করা হচ্ছে। অসভ্য তালেবানদের কাছে নারীর সামান্যতম মূল্য নেই। ওরা নারীকে নিজেদের জৈবিক চাহিদা পূরণের যন্ত্র হিসেবে গণ্য করে। বাংলাদেশে যারা ইসলামী শাসন প্রতিষ্ঠার কথা বলে ওরাও তালেবানদের মতোই নির্মম-নিষ্ঠুর। ওদের কাছে মানবাধিকারের কোনোই মূল্য নেই। ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কোনো মূল্য নেই। নারীদের কোনো মূল্য নেই। একারণেই মমতাজ বেগমরা ধর্মীয় উগ্রবাদের বিপক্ষে সোচ্চার হচ্ছেন। জাতীয় সংসদে এই জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পীর বক্তব্য ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক অপশক্তির গালে কষে একটা থাপ্পড়। মমতাজ বেগমের মতোই সবাই ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন। এটাই আমার একান্ত কামনা।

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন জঙ্গীবাদ বিরোধী সাংবাদিক, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, কাউন্টারটেরোরিজম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক

Previous articleশাকিবের উপর চটেছেন বরেণ্য নির্মাতা দেলোয়ার জাহান ঝন্টু
Next articleগ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা

Leave a Reply