রঞ্জু সরকার

শোনা যাচ্ছে বহুল সমালোচিত ও বিতর্কিত চিত্রনায়িকা পরীমণির বিরুদ্ধে চলমান মাদক মামলায় তার সর্বোচ্চ পাঁচ বছর পর্যন্ত সাজা হতে পারে। এক বছর আগে হওয়া এই মামলায় ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন সন্তানসম্ভবা এই নায়িকা। জানা গেছে, পরীমণি গর্ভবতী হওয়ায় আবেদন করে গেলো ২ জুন স্বাস্থ্যগত বিষয়টি বিবেচনা পূর্বক ফৌজদারি কার্যবিধি মোতাবেক মাদক মামলার হাজিরা থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১০এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম তাকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতির আদেশ দেন।

জানা গেছে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের যে ধারায় পরিমণির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, তাতে সাক্ষ্য প্রমাণে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার কারাদণ্ড হতে পারে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর। একইসঙ্গে হতে পারে অর্থদণ্ডও। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে পরীমণির আইনজীবী অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, পরীমনির বিরুদ্ধে একজন র‌্যাব কর্মকর্তা সাক্ষী দিয়েছেন। ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি পেলেও তাকে বিচার মোকাবিলা করতেই হবে। পরীমনির বিরুদ্ধে যে ধারায় চার্জ গঠন করা হয়েছে, তাতে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।’ তিনি জানান, পরীমণির মাদকের মামলাটি রয়েছে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১০ এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের কোর্টে। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর আবদুল্লাহ আবু।

জানা যায়, অবৈধভাবে মাদক রাখার পাশাপাশি পরীমণির বিরুদ্ধে গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাব এবং বনানী ক্লাবে অনধিকার প্রবেশ করে ভাঙচুরের অভিযোগও উঠেছিল। সেই ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজও প্রকাশ হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে ওই ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। এরপর বছরের ৪ আগস্ট বিকালে বনানীর ১২ নম্বর রোডে তার বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় সেখান থেকে ১৯টি বোতলে ১৮.৫ লিটার বিদেশি মদ, চার গ্রাম আইস, এক স্লট এলএসডি নামক মাদক জব্দ করা হয়। সেই সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয় পরীমণিকে।

পরের দিন র‌্যাব বাদী হয়ে বনানী থানায় ঠুকে দেয় মামলা। সেই মামলায় তিন দফা রিমান্ড শেষে অভিনেত্রীকে কারাগারে পাঠায় আদালত। তার আগে একাধিক বার আবেদন করেও জামিন পাননি পরীমনি। শেষ পর্যন্ত হাইকোর্টের দারস্থ হন নায়িকার দুই আইনজীবী অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান ও রিফাত সুরভী। এরপর হাইকোর্ট পরীমণির জামিন আবেদন দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন। এরপর গেলো বছরের ৩১ আগস্ট অভিনেত্রীকে জামিন দেয় ঢাকার দায়রা জজ আদালত। পরদিন পরীমণি কাশিমপুর কারাগার থেকে ছাড়া পান।

এই মামলায় চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি পরীমণিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। ১ জুন শুরু হয় সাক্ষ্যগ্রহণ। মামলার বাদী র‌্যাব ১ এর কর্মকর্তা মো. মজিবর রহমান মামলায় প্রথম সাক্ষী দেন। ওই দিন আসামী পরীমণির অনুপস্থিতিতে ওই সাক্ষ্যগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে গেলো বছরের ৪ অক্টোবর ঢাকা সিএমএম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক কাজী গোলাম মোস্তফা।

চার্জশিটে বলা হয়, পরীমণির বাসা থেকে জব্দ হওয়া মাদকদ্রব্যের বৈধ কোনো কাগজপত্র ছিল না। তদন্তকালে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর লিখিতভাবে জানায়, ২০১৯ – ২০ অর্থবছরে পরীমণির নামে ইস্যু হওয়া মদজাতীয় পানীয় সেবনের লাইসেন্স দেওয়া হয়। ২০২০ সালের ৩০ জুন সেটির মেয়াদ শেষ হয়ে যায়।

অবৈধ মাদকদ্রব্য সংগ্রহের বিষয়ে বলা হয়, পরীমণি বিভিন্ন স্থান থেকে জব্দকৃত মাদকদ্রব্য মামলার দুই আসামী আশরাফুল ইসলাম ও কবির হোসেনের মাধ্যমে সংগ্রহ করে বাসায় রেখেছিলেন।

মাদকদ্রব্য রাখার বিষয়ে ওই সময় পরীমণি কোনো সন্তোষজনক জবাব দিতে পারেননি। এখন এই মামলার শেষ পরিণতি কী হয়, বিতর্কিত চিত্রনায়িকা পরীমণি নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে অব্যাহতি পান নাকি তাকে পড়তে হবে বড় কোনো শাস্তির মুখে, সেটা দেখার অপেক্ষা।

Previous articleকবির বকুলের লেখা পদ্মাসেতুর ‘থিম সং’ নকল
Next articleফ্যাশন হাউজ বিশ্বরঙ এর নীল উৎসব

Leave a Reply