রঞ্জু সরকার

আগামী শনিবার (২৫ জুন) স্বপ্নের পদ্মাসেতুর উদ্বোধন। এর উদ্বোধনে বিশাল পরিসরে অনুষ্ঠান হবে। ইতোমধ্যে দেশের নিজস্ব অর্থায়নে সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাপী প্রশংসায় ভাসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কিন্তু সেতুটি নির্মাণে উদ্বোধনের আগে একটি থিম সং নির্মাণ করা হয়েছে। এতে গানটির গীতিকার কবির বকুল কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ‘দুর্মর’ কবিতার কিছু লাইন ‘কিঞ্চিত’ পরিবর্তন করে ঢুকিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে পুরো দেশের মানুষের একটি সুখের উদযাপনে কিছুটা কালিমা পড়েছে বলে দাবি করছেন সংগীত বোদ্ধারা। নিজস্ব অর্থায়নে এ সেতুর থিম সংয়ে অন্যের কবিতার অংশ ঢুকিয়ে দেওয়ার ফলে সেতু উদ্বোধনের আনন্দ-আয়োজন প্রশ্নবিদ্ধ হবে বলেও মনে করছেন তারা।

কবির বকুলের গানের কথাগুলি এমন- ‘তুমি অবিচল দৃঢ় প্রতিজ্ঞ তুমি ধূমকেতু/পৃথিবী তাকিয়ে রয়/মাথা নোয়াবার নয়/বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন দেশ, তুমি দিলে পদ্মা সেতু।’

আর সুকান্তের ‘দুর্মর’ কবিতা কয়েকটি লাইন এমন- ‘সাবাস, বাংলাদেশ, এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়/জ্বলে পুড়ে-মরে ছারখার/তবু মাথা নোয়াবার নয়।’

এ ব্যাপারে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্বাধীনতা পদকজয়ী গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার। তিনি বলেন, যে দেশ স্বাধীনতা অর্জনের জন্য এতো সংগ্রাম করেছে এতো রক্ত দিয়েছে, যে দেশের নিজস্ব সংস্কৃতি সারাবিশ্বে সুনাম বয়ে এনেছে, সে দেশে গর্বের পদ্মা সেতুর মতো এমন জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নকল গান করা দুঃখজনক! পদ্মাসেতুর গর্বে আজ সারাদেশ উদ্ভাসিত, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা নিজে যেখানে উপস্থিত থেকে সেতু উদ্বোধন করবেন! বলা হচ্ছে এটিই অফিশিয়াল থিম সং। যদি তাই হয়ে থাকে তাহলে নিশ্চয়ই যাচাই-বাছাই কমিটিতে যারা ছিলেন তাদের উচিত ছিল গানটি যাচাই-বাছাই করে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করা! মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হয়তো বিষয়টি অবগত নন। তা না হলে তার জ্ঞাতসারে এমন নকল গান কখনোই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না! প্রধানমন্ত্রী নিজেও অবহিত আছেন যে এ দেশের কলমযোদ্ধাদের কলমের জোর কত ছিল? সেটি আমরা প্রমাণ করেছি মহান মুক্তিযুদ্ধে এবং গৌরবান্বিতভাবেই আমরা স্বাধীনতা অর্জন করতে পেরেছি। সারাবিশ্বময় স্বীকৃতি তারা পেয়েছেন, সেই স্বীকৃতিকে ম্লান করে দিতে এ ধরনের কপি করা গান করা সাংঘাতিক গর্হিত কাজ বলে দেশের জনগণ মনে করতে শুরু করেছে।

জাতীয় পুরস্কারজয়ী সংগীত পরিচালক ও সুরকার শেখ সাদী খান ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, আমরা কার কাছে এসব বিষয়ে অভিযোগ দেব? তিনি প্রশ্ন করেন রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্টরা কী করেন? শেখ সাদী বলেন, কবির বকুলের বিরুদ্ধে রবীন্দ্র সংগীতের অংশবিশেষ চুরি করে তা দিয়ে জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার অভিযোগও আছে। তিনি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে গুণী ও নবীনদের সমন্বয় করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

জাতীয় পুরস্কারজয়ী গীতিকার মুন্সি ওয়াদুদ বলেন, এসব বিষয় আমরা আগেও বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ করেছি কোনো সুরাহা মেলেনি। তার (কবির বকুল) নামে এমন চৌর্যবৃত্তির অভিযোগ অসংখ্য।

গণমাধমের খবর অনুযায়ী থিম সংটি সেতু মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির যৌথ আয়োজনে তৈরি করা হয়েছে।

অভিযোগ বিষয়ে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সচিব আছাদুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, থিম সংটি তো এখনো প্রকাশ হয়নি। পুরো বিষয়টি জানেন আমাদের মহাপরিচালক লাকী স্যার (লিয়াকত আলী লাকী)। এ বিষয় আমি আর বেশিকিছু বলতে পারছি না।

সেতু বিভাগের সচিব মো. মনজুর হোসেনের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। পরে তার একান্ত সচিব এ এস এম রিয়াদ হাসান গৌরবের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি থিম সং প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের উপপ্রকল্প পরিচালক, অতিরক্তি সচিব দেওয়ান সাইদুল হাসানের সঙ্গে যোগাযোগ করার অনুরোধ করেন। তার মুঠোফোনে চেষ্টা করা হলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। সোমবার রাত ৮টা ৫০ মিনিটে তার মুঠোফোনে পরিচয় দিয়ে একটি ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হলেও এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত কোনো সাড়া মেলেনি।

অভিযোগের বিষয়ে থিম সংটির গীতিকার কবির বকুল বলেন, অন্যকারো কবিতার লাইন নেওয়ার প্রশ্নই আসে না। তিনি প্রতিবেদককে পাল্টা প্রশ্ন করেন- আপনি কী বোঝাতে চাচ্ছেন। এক সময় তিনি উত্তেজিত হয়ে পড়েন। বলতে থাকেন, আপনার যা ইচ্ছা তাই লিখে দেন, কিছুই যায় আসে না।

কবির বকুলের বিরুদ্ধে ‘গান চুরি’র অভিযোগ এই প্রথম নয়। ‘বিশ্বসুন্দরী’ সিনেমার গান ‘তুই কি আমার হবি রে’ নিয়ে বিতর্ক উঠেছিলো। এমনকি গানের গীতিকার হিসেবেই জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার জন্যও নাম নির্বাচিত হয়েছে গীতকার কবির বকুলের। অনেকেই এই গানে রবিন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা দুটি লাইন খুঁজে পেয়েছিলেন। শুধু বাদ দেওয়া হয়েছে একটি মাত্র শব্দ। কবিগুরুর কবিতা ‘হঠাৎ দেখা’ কবিতার- ‘রাতের সব তারাই আছে, দিনের আলোর গভীরে’ লাইনটি নিজের গানে ব্যবহার করেছেন বকুল। শুধু আলো শব্দটি বাদ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে সুনামগঞ্জের বাউল জবান আলী রচিত ‘প্রেমের মানুষ ঘুমাইলে চাইয়া থাকে’ গানটি অনুমতি ছাড়া কয়েকটি শব্দ পরিবর্তন করে নিজের নামে চালিয়ে দেন গীতিকার কবির বকুল। গানটি পি এ কাজল পরিচালিত ‘পিরীতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ’ ছবিতে ব্যবহার করা হয়। এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করা হলে ১ ডিসেম্বর ২০১৬ সালে গীতিকার কবির বকুল ও পরিচালক পিএ কাজলের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন সুনামগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

Previous article‘পদ্মা বুকে স্বপ্নের সেতু’ চলচ্চিত্রের প্লেব্যাক করলেন মোমিন বিশ্বাস ও স্মরণ
Next articleপরীমণির মামলায় পাঁচ বছর পর্যন্ত সাজা হতে পারে

Leave a Reply