জমজমাট ডেস্ক

স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত বলিউড তারকা পরদেশ খ্যাত মহিমা চৌধুরী। আশার খবর হলো চিকিৎসাও চলছে তার। নেটমাধ্যমে সেই খবর প্রকাশ্যে আনলেন প্রখ্যাত বলিউড অভিনেতা অনুপম খের। সেই সঙ্গেই প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন অভিনেত্রীর সাহস আর লড়াকু মানসিকতাকে।

ক্যানসারের অসুস্থতা, দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা অবশ্য এতটুকুও দমাতে পারেনি ‘পরদেশ’ এর নায়িকা মহিমাকে। বরং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আবার ফিরতে চান লাইট – ক্যামেরা – অ্যাকশনের চেনা দুনিয়ায়। তার এই বাঁচার খিদে, লড়াইয়ের সাহস, ছন্দে ফেরার জেদ মুগ্ধ করেছে অনুপমকে। তাই তো এই অভিনেত্রীর লড়াইয়ের কাহিনি নিজেই এক ভিডিওর মাধ্যমে পৌঁছে দিয়েছেন মহিমার অনুরাগীদের কাছে।

ইনস্টাগ্রামে মহিমার একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন অনুপম। তাতে মহিমা নিজেই শোনাচ্ছেন নিজের গল্প। ভিডিওর ক্যাপশনে অনুপম লিখেছেন, ‘মহিমা চৌধুরীর সাহস এবং ক্যানসারের কাহিনি : এক মাস আগে আমেরিকা থেকে ফোন করেছিলাম ওকে। আমার ৫২৫তম ছবি ‘দ্য সিগনেচার’ এ ওকে নিতে চেয়ে। তখনই জানলাম ও স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত। কথায় কথায় টের পেলাম ওর মনের জোর সারা বিশ্বের অসংখ্য মহিলাকে আশার আলো দেখাতে পারে। ও চেয়েছিল আমিই এই খবরটা সকলকে জানাই। মহিমা, তুমিই আমার নায়ক। বন্ধুরা, সবাই ওকে ভালবাসা, শুভেচ্ছা, সুস্থতা কামনায় ভরিয়ে দাও। ও ফিরে এসেছে সেটে, আবার কাজের জন্য তৈরি। প্রযোজক – পরিচালকেরা, আবার সময় এসেছে ওর দুর্দান্ত অভিনয়কে কাজে লাগানোর।’

ভিডিওতে মহিমা নিজেই এসেছেন ক্যামেরার সামনে। কেমোথেরাপি পেরিয়ে মাথায় নতুন চুল গজাচ্ছে একটু একটু করে। অভিনেত্রী বলেছেন, এক মাস আগে অনুপম যখন ফোন করেন, আমি তখন হাসপাতালে, চিকিৎসা চলছে। ইতিমধ্যে ওয়েব সিরিজ আর ছবির একাধিক প্রস্তাব এসেছে। কিন্তু হ্যাঁ বলতে পারিনি। কারণ মাথায় চুল ছিল না তখন। আবেগে ভেসে মহিমা অনুপমকে এটাও জিজ্ঞাসা করেন, পরচুলা মাথায় দিয়ে তিনি ছবিতে অভিনয় করতে পারবেন কি না।। জানা যায়, এই ভিডিও দেখে তাকে ভালবাসায় ভরিয়ে দেন বলিউড তারকা ও অনুরাগীরা।

বলিউড অভিনেত্রীর জীবনে লড়াই অবশ্য এই প্রথম নয়। ২০১৩ সালে স্বামী ববি কাপুরের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের পরে একাই মেয়ে আরিয়ানাকে বড় করে তুলেছেন মহিমা। মেয়েকে ঠিকমতো সময় দিতে অভিনয়ও ছেড়ে দেন। মুম্বই সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক পুরনো সাক্ষাৎকারে মহিমা বলেছিলেন, সাত বছরের বিয়ে ভাঙার পরে মেয়েকে নিয়ে মা – বাবার কাছে ফিরে আসি। আমার মায়ের অসুস্থতা ধরা পড়ে তখন। বাবা সেই সময়ে থাকতেন দার্জিলিংয়ে। একে মেয়ে ছোট, তারপরে মায়ের দেখভাল, সবটাই সামলাতে হতো। তখন আমার বোনও এক সন্তান নিয়ে একা। ফলে বাচ্চাদের দু’জনে মিলেই বড় করেছি।

জানা যায়, শরীরে ক্যানসারের উপসর্গ ছিল না মহিমার। সাধারণ চেকআপের সূত্রে ধরা পড়ে তিনি এই রোগে আক্রান্ত। ২০১৬ তে শেষ বার ‘ডার্ক চকোলেট’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল তাকে। ক্যানসারের সঙ্গে যুদ্ধ জিতে এবার তাড়াতাড়ি বলিউডে ফিরতে চান মহিমা চৌধুরী।

Previous article‘আরআরআর’ বিশ্বসেরা ১০ সিনেমার তালিকার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে
Next articleএশার হট লুক সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল

Leave a Reply