রঞ্জু সরকার

হাবিবুর রহমান, একজন গুনী নাট্যকার। ছোটবেলা থেকেই সংস্কৃতির প্রতি ছিলো তার প্রবল ঝোক। ১৯৯৭ সালে তার লেখা প্রথম উপন্যাস ‘শুধু তোমাকে ভালোবাসি’ বাংলা একাডেমির একুশে গ্রন্থ মেলায় প্রকাশিত হয়। এশিয়াটিক সোসাইটি হতে প্রকাশিত ‘বাংলা পিডিয়া’তে স্থান পেয়েছে তার লেখা বাংলা ও ইংরেজিত ১৪ খন্ড প্রকাশিষত বই। কিন্তু বর্তমানেস বইয়ের চাহিদা কমে যাওয়ায় তিনি নাটক লেখায় মনোযোগী হযে উঠেছেন। এরইমধ্যে তার রচিত নাটকের মধ্যে প্রচারের পর দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে ব্যবধান, ভুল, অনুতপ্ত, বড়লোক হতে চাই।

সেই ধারাবাহিকতায় এবার তার রচিত নাটক ‘মনের সুখ’ নির্মাণ করেছেন বরেণ্য নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা সালাহ উদ্দিন লাভলু। এটি প্রযোজনা করেছে আহারারা কুটির। এরইমধ্যে গাজীপুরের পূবাইলে নাটকটির দৃশ্য ধারনের কাজ শেষ হয়েছে। নাটকটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আহসান হাবিব নাসিম, নাজনীন চুমকি’সহ আরো বেশ কয়েকজন।

নাটকটি নির্মাণ প্রসঙ্গে সালাহ উদ্দিন লাভলু বলেন,
নাটক নির্মাণের আগে আমার প্রথম শর্তই থাকে গল্পটি যেন ভালো হয়, গল্পে যেন একটি মাসেজ থাকে। এই গল্পে তা আছে। যদিও এটি শহুরে গল্পের একটি নাটক। কিন্তু তারপরও সবকিছু বিবেচনা করে আমি নাটকটি পূবাইলে নির্মাণ করেছি। নাসিম এবং চুমকী দু’জনই নি:সন্দেহে ভালো অভিনয়শিল্পী। আশাকরছি দর্শকের ভালোরাগে।

অভিনেতা নাসিম বলেন, ‘যতোদূর মনেপড়ে লাভলু ভাইয়ের নির্দেশনায় প্রথম আমি কইন্যা নাটকে অভিনয় করি। এরপর দ্য ডিরেক্টর নামে একটি নাটকে অভিনয় করি। কয়েকবছর বিরতির পর মনের সুখ নাটকে অভিনয় করা। গল্পটা সাদামাটা হলেও পারিবারিক এবং ব্যক্তিগত আবেগ এই নাটকের প্রধান শক্তি। লাভলু ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা সবসময়ই ভালো। আমার বিশ্বাস নাটকটি দর্শকের ভালোলাগবে।

অভিনেত্রী নাজনীন চুমকি বলেন,গেলো রোজার ঈদেও আমি লাভলু ভাইয়ের নির্দেশনায় একটি নাটকে কাজ করেছি। অভিনয় জীবনটা বেশ মজার। লাভলু ভাই যেমন সহশিল্পী হন আবার পরিচালকও হন। নাসিম ভাই আমার প্রেমিকও হয়েছেন, ভাই হয়েছেন, স্বামীও হয়েছেন। নাট্যকার হাবিব ভাই যত্ন নিয়ে নাটকটি রচনা করেছেন। লাভলু ভাই এখনো নির্মাণের ক্ষেত্রে এতো যত্নশীল, এখনো নির্মাণের সময় প্রতিটি দৃশ্য এতো আান্তরিকভাবে বুঝিয়ে যেন যে আমরা শিল্পীরা এটাই চাই।

নাট্যকার হাবিবুর রহমান বলেন, মানুষের জীবনে মনের সুখটাই যে প্রকৃত সুখ এই বিষয়টিই আসলে আমি নাটকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। শ্রদ্ধেয় লাভলু ভাই গল্প বুঝে তিনি তার ভাবনা মাথায় রেখে শিল্পী নির্বাচন করে নাটকটিপ নির্বাচন করেছেন। লাভলু ভাই এই দেশের ভীষণ গুনী অভিনেতা, নির্মাতা। তিনি আমার মনের ভাবটুকু তার নির্মাণের মধ্যদিয়ে যথাযথভাবে তুলে ধরবেন এই বিশ্বাস আমার আছে।’ নাটকটি শিগগিরই একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে এবং পরবর্তীতে একটি ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার হবে।

Previous articleআসছে আর্শিনা প্রিয়া’র ‘সোনার খাঁচা আজ খালি রে’
Next articleবিরল রেকর্ড গড়লেন মিথিলা

Leave a Reply