জমজমাট ডেস্ক

টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে সৃষ্ট বন্যায় বিপর্যস্ত সুনামগঞ্জ ও সিলেটবাসী। তবে এই দুই জেলার মধ্যে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। অপরদিকে পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে সুনামগঞ্জের ১২টি উপজেলার ৫ লাখ মানুষকে।

খবরে জানা গেছে, বন্যার কারণে গত চার দিন সুনামগঞ্জে ইন্টারনেট ও বিদ্যুৎ ব্যবস্থা না থাকায় আজ রবিবারও খোলেনি ব্যাংকের শাখাগুলো। বিশেষ করে যেসব ব্যাংকের শাখা নিচতলায় সেগুলো। সেইসঙ্গে পানিতে তলিয়ে গেছে ব্যাংকগুলোর এটিএম বুথ। যে কারণে ব্যাংক শাখার পাশাপাশি, এটিএম, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাও বন্ধ রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মো. শিরিন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সিলেট ও সুনামগঞ্জে আমাদের ৬টি শাখা, ৯৫টি এটিএম এবং ৩১টি টাকা জমার মেশিন আছে। তার সবই পানির নিচে। এ কারণে ১৫ থেকে ১৬ কোটি টাকা পানিতে ডুবে আছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ওই সব এলাকায় রকেট, ইন্টারনেট ব্যাংকিং, এজেন্ট ব্যাংকিং সেবাও বন্ধ হয়ে গেছে।’

এদিকে খাদ্য ও নিরাপদ পানির সংকটে পড়েছেন সুনামগঞ্জবাসী। বাজারের সকল দোকানপাট বন্ধ থাকায় অনেকে খাবার না পেয়ে কাঁঠাল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। আবার অনেকে দ্বিগুণ দামে কলা-বিস্কিট কিনে নিয়ে খাচ্ছেন। এমন উদ্ভুত পরিস্থিতিতে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছেন তারা।

অপরদিকে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের মনে আশা জেগেছে। কারণ গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও ঢলের পানিতে শহর থেকে গ্রাম- সব জায়গা পানিতে টইটম্বুর ছিল। তবে শনিবার (১৮ জুন) রাতে বৃষ্টি না হওয়ায় সকাল থেকে সিলেট নগরীসহ বিভিন্ন উপজেলায় বন্যার পানি কিছুটা কমতে শুরু করে। সেইসঙ্গে কিছু জায়গায় পানি ২ থেকে ৩ ইঞ্চি আবার কোথাও ১ থেকে দেড় ফুট কমেছে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, রবিবার সকাল থেকে সিলেটের আকাশ কিছুটা পরিষ্কার দেখা যায়। তুলনামূলক বৃষ্টিপাতও কম হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, আজ সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত খুব কম পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে, যা আমরা রেকর্ড করতে পারিনি। বৃষ্টির পরিমাণ নিম্ন পর্যায়ে থাকলে তা রেকর্ড করা সম্ভব হয় না। এটি একটি ভালো লক্ষণ। এর আগে গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার সকাল ৬টা থেকে রোববার সকাল ৬টা পর্যন্ত) বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছিল ৩০৪ মিলিমিটার।

Previous articleআরও বাড়ছে কুড়িগ্রামে বন্যার পানি
Next articleবন্যা পরিস্থিতি উত্তরণে সহযোগিতা করতে চায় ভারত

Leave a Reply