জমজমাট ডেস্ক

ব্রহ্মপূত্র ও ধরলা নদীর পানি যেন পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলছে। শনিবার সকালে ব্রহ্মপূত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে ১৩ সেন্টিমিটার বেড়ে ২২ সেন্টিমিটার এবং ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে ৭ সেন্টিমিটার বেড়ে ২২ সেন্টিমিটার বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তলিয়ে যাচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। সেই সঙ্গে বানভাসী এলাকায় দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও গবাদি পশুর খাদ্যের তীব্র সংকট। উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত তিন দিনে অস্বাভাবিকভাবে পানি বেড়ে যাওয়ায় জেলার ৯ উপজেলার ৩০টি ইউনিয়নের প্রায় ১২৫টি গ্রামের প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রৌমারী, উলিপুর ও সদর উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির বেশি অবনতি ঘটেছে। শুরু হয়েছে বানভাসী মানুষের মধ্যে দুর্ভোগ। বন্যায় জেলায় প্রায় ৪০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। ফসলাদি তলিয়ে গেছে প্রায় ৩ হাজার হেক্টর জমির। নদীভাঙন ও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় বানভাসী মানুষ রয়েছে চরম দুর্ভোগের মধ্যে। এদিকে পানির তীব্র স্রোতে নাগেশ্বরী উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের মুড়িয়ারহাট এলাকায় অস্থায়ী বেড়িবাঁধের ২০/২২ ফুট ভেঙে ফসলাদি তলিয়ে গেছে। এ পরিস্থিতিতে উপাজেলা প্রশাসন থেকে রৌমারীতে ৬ হাজার এবং সদর উপজেলায় প্রায় ৫০০ প্যাকেট শুকনো খাবার দুর্গতদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

জেলা পর্যায়ে ২০ লাখ টাকা এবং ৪০০ মেট্রিকটন চাল মজুদ রয়েছে বলে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আব্দুল হাই সরকার জানিয়েছেন। তবে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হওয়ায় সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর জানান, সদর উপজেলার পোড়ারচর গ্রামের দেড়শ পরিবার শুক্রবার বাড়িঘর সরিয়ে অন্যত্র স্থানান্তরিত হয়েছে। এ এলাকার প্রায় ৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। এখন পর্যন্ত সরকারি ত্রাণ বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।

জেলার রৌমারী উপজেলায় আবারও পানি বেড়ে যাওয়ায় এ অঞ্চলের তিন ইউনিয়নে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়েছে বলে জানিয়েছেন রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশরাফুল আলম রাসেল। দুর্গতদের জন্য ৬ হাজার শুকনো খাবার প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেদুল হাসান জানান, আমরা দুর্গত এলাকা পরির্দশন করছি। এরই মধ্যে উদ্ধার কার্যক্রম এবং শুকনো খাবার বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ রয়েছে।

এদিকে কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক কৃষিবিদ আব্দুর রশীদ জানিয়েছেন, দ্বিতীয় দফা বন্যায় তলিয়ে যাওয়া ফসলের ক্ষতির আশঙ্কা বেড়েছে। পানি নেমে গেলে ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ শেষে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে নেওয়া হবে। যাতে বন্যা পুনর্বাসন প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় তাদের সহযোগিতা করা যায়।

Previous articleবিরল রেকর্ড গড়লেন মিথিলা
Next article‘আরআরআর’ বিশ্বসেরা ১০ সিনেমার তালিকার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে

Leave a Reply