বিনোদন ডেস্ক

আজ ‘ডিসকো ডান্সার’খ্যাত মিঠুন চক্রবর্তীর জন্মদিন। ১৯৫০ সালের ১৬ জুন জন্মগ্রহণ করেছিলেন তিনি। বরিশাল জিলা স্কুল থেকে শিক্ষাজীবন শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর চলে যান ভারতে।

বাংলাদেশের বরিশালে জন্ম। আসল নাম গৌরাঙ্গ চক্রবর্তী। কিন্তু রূপালি দুনিয়ায় তার খ্যাতি অন্য নামে। সে নাম কালজয়ী, কিংবদন্তি। সেই নামের সঙ্গে মিশে আছে বলিউড ও বাংলা সিনেমার অসামান্য ইতিহাস। তিনি মিঠুন চক্রবর্তী।

হিন্দি ও বাংলা সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। সত্তরের দশক থেকে বর্তমান, তার পদচারণা অবিস্মরণীয়। মিঠুন চক্রবর্তীর ক্যারিয়ার ওঠা-নামায় ভরা। সত্তর থেকে আশির দশকে তিনি যতটা সফল ছিলেন, নব্বই দশকে ততটাই ব্যর্থ। টানা ৫০টির বেশি ফ্লপ সিনেমা রয়েছে তার ক্যারিয়ারে। তবুও তিনি বলিউডের সুপারস্টার।

মিঠুন চক্রবর্তীর সিনেমা ক্যারিয়ার শুরু হয় ১৯৭৬ সালে মৃণাল সেনের ‘মৃগয়া’ দিয়ে। প্রথম সিনেমারেই অনবদ্য অভিনয় করে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন মিঠুন। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মিঠুন চক্রবর্তীকে। একের পর এক সিনেমা করে গেছেন আর নিজেকে নিয়ে গেছেন জনপ্রিয়তার অন্য উচ্চতায়। তিন শতাধিক হিন্দি সিনেমায় অভিনয় করেছেন মিঠুন চক্রবর্তী। এছাড়া বাংলা, পাঞ্জাবি, তেলেগু, ওড়িয়া ও ভোজপুরী সিনেমায়ও অভিনয় করেছেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবনে মিঠুন চক্রবর্তী তিনটি বিয়ে করেছেন। তার প্রথম স্ত্রী হেলেনা লুক। তার সঙ্গে বিচ্ছেদের পর অভিনেত্রী যোগীতা বালীকে বিয়ে করেন মিঠুন। যোগীতার সঙ্গেই এখনো সংসার করছেন তিনি। এছাড়া বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেত্রী শ্রীদেবীর সঙ্গেও বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন মিঠুন। তবে সেই বিয়ের কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করেননি কেউ।

অভিনয় জীবনের বাইরে মিঠুন চক্রবর্তী একজন রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী। তিনি ভারতের রাজ্যসভার সাবেক সাংসদ। বর্ণাঢ্য সিনে ক্যারিয়ারে মিঠুন চক্রবর্তী তিনবার ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, দুইবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা পেয়েছেন।

Previous articleড. ইউনুস বেঈমানি করেছে: প্রধানমন্ত্রী
Next articleযতদিন বেঁচে আছি বা বেঁচে থাকবো সিনেমা করতে চাই: আদর আজাদ

Leave a Reply