নিজস্ব প্রতিবেদক

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে নাশকতা চালানোর ভয়ংকর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার কথা প্রকারান্তরে স্বীকার করেছেন ইন্টারপোল ওয়ান্টেড দন্ডপ্রাপ্ত অপরাধী ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থদাতা বহিষ্কৃত সেনা অফিসার শহীদ উদ্দিন খান। তার নিজের ফেইসবুক আইডিতে ১৪ জুন তারিখে দেয়া স্ট্যাটাসে ঢাকার পুরনো পল্টন এলাকা থেকে সরকার-বিরোধী লিফলেট বিতরণের সময় এক যুবক গ্রেফতার হওয়া প্রসঙ্গে শহীদ উদ্দিন খান তার স্ট্যাটাসের শেষভাগে লিখেছেন, ওই যুবক লিফলেট বিতরণ করে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে উত্খাতের প্রচার করে ভালো করেছে। তিনি আরো লিখেছেন “প্রয়োজনে শতশত মানুষ রক্ত দিয়ে শহীদ হতেও প্রস্তুত আছে”।

যদি শহীদ উদ্দিন খান বরাবরের মতোই এই ঘটনার পেছনেও তার সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকারের চেষ্টা করেছেন কিন্তু গত বেশ কয়েক মাস যাবত তিনি নির্দেশ দিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় তার ডাকে কথিত গণঅভ্যুত্থানের পক্ষে অনেকগুলো মিছিল করিয়  সেগুলোর ভিডিও নিজের ফেইসবুক আইডিতে ধারাবাহিকভাবে আপলোড করেন।
উল্লেখ্য গত ১১ জুন ঢাকায় পল্টন এলাকা থেকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে টার্গেট করে দেশে কথিত গণঅভ্যুত্থানের নামে অরাজকতা ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মাধ্যমে সরকারকে উৎখ্যাতের ডাক দিয়ে শহীদ উদ্দিন খানের নির্দেশে লিফলেট বিতরণের সময় কৌশিকুর রহমান বাবু নামে এক যুবক গ্রেফতার হয়। গ্রেফতারের পর তাকে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখায় আটককৃত যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে জানা যায়, শহীদ উদ্দিন খানের পক্ষে সে-সহ আরো কিছু যুবক কাজ করছে।
এর আগে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে সামনে রেখে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে মাঠে নেমেছে কিছু লোক। এজন্য তারা সু-শৃঙ্খল বাহিনীর সদস্যসহ জনগণকে বিভ্রান্ত করতে লিফলেট বিতরণ ও বিভিন্ন স্থানে পোস্টারও লাগাচ্ছে। এসবের পেছনে অর্থ দিয়ে নানামুখী নির্দেশনা দিচ্ছে ইন্টারপোল ওয়ান্টেড জঙ্গী অর্থায়নকারী শহীদ উদ্দিন খান।
এই তৎপরতার পেছনে আছেন আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত প্রবাসে থাকা সাবেক সেনা কর্মকর্তা শহীদ উদ্দিন খান। গত ১১ জুন রাজধানীর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিণ গেইট থেকে গ্রেপ্তার এক যুবকের জবানবন্দী থেকে এসব তথ্য পেয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগ- ডিবি। তাঁকে সাত দিনের রিমাণ্ডে নেওয়া হয়েছে (সন্ত্রাস দমন আইনে পল্টন মডেল থানার মামলা নম্বর ২৫, তারিখ ১২/০৬/২০২২)।
ডিবি কর্মকর্তা বলেন, ধরা পরার আগে কৌশিকুর রহমান ১৫-২০ দিন ধরে ঢাকার লালবাগ, ধানমন্ডি ও মতিঝিল এলাকায় ২-৩ হাজার লিফলেট বিতরণ করেছেন।
গ্রেপ্তার কৌশিকুর রহমানের কাছ থেকে শহীদ উদ্দিনের ছবিসহ ৩৯৫টি লিফলেট উদ্ধার করেছে ডিবি। লিফলেটের বাম পাশে শহীদ উদ্দিনের ছবি, ডান পাশে মুষ্টিবদ্ধ তিনটি হাতের মটিফ রয়েছে। মাঝখানে লেখা রয়েছে ‘ হঠাও মাফিয়া, বাঁচাও দেশ, শহীদ স্যারের নির্দেশ’। ১০ দফা দাবি সম্বলিত লিফলেটের নীচে লেখা ‘বাংলাদেশ জিন্দাবাদ’।
তদন্তকারী সংস্থার সূত্র বলছে, কৌশিকুর রহমান জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে সামনে রেখে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটাতে সু-শৃঙ্খল বাহিনীর সদস্যসহ জনগণকে বিভ্রান্ত করতে শহীদ উদ্দীন লিফলেট বিতরণ ও পোস্টার লাগানোর জন্য কিছু লোককে মাঠে নামিয়েছে।
কৌশিকুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে ডিবি কর্মকর্তা বলেন, তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন, শহীদ উদ্দিনের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা পেয়ে তার সহযোগী খোকন ও বাবু এই লিফলেট প্রিন্ট করে তাকে বিতরণের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। তিনিও টাকার বিনিময়ে সেই দায়িত্ব নিয়েছে।
ডিবির মতিঝিল বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, এজাহারভুক্ত অপর তিন আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের সব থানাকে এ বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে। শহীদ উদ্দিন ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার করা গেলে ঘটনার নেপথ্যে পুরো চক্রের নাম জানা যাবে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো শহীদ উদ্দিন খানের নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাসী চক্রের অন্য সদস্যদের খুঁজছে।
এদিকে প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর অনুসন্ধানী টিম জানতে পেরেছে, শহীদ উদ্দিন খানের পক্ষ হয়ে সারাদেশে নাশকতা চালানোর বিষয়ে কাজ করছে কারা অধিদফতরে কর্মরত আব্দুল ওয়াহাব নামের এক কর্মচারী, আমেরিকায় পালিয়ে থাকা শহীদের ঘনিষ্ট সহচর সাজ্জাদ হোসেনের কিছু লোকজন এবং ঢাকার উত্তরা এলাকায় বসবাসরত শহীদ উদ্দিন খানের এক দুর সম্পর্কের আত্মীয়ার দুই ছেলে। উল্লেখ্য, শহীদের এই আত্মীয়া গত বছর ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে ব্লিটজ পত্রিকার বিরুদ্ধে ডিজিট্যাল নিরাপত্তা আইনে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। পরবর্তীতে ওই নারী, যিনি গত বছর মার্চ মাসে তার ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণার ডাক দেন, তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়ে মে মাসের ৯ তারিখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে একটি চিঠি ইস্যু হয়েছে। এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। উল্লেখ্য, ব্লিটজ পত্রিকার সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা দেয়ার পাশাপাশি ওই নারী ও তার ছেলেরা এখনও বিভিন্ন সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এই জঙ্গীবাদ বিরোধী সাংবাদিক ও দীর্ঘ দুই যুগ যাবত পত্রিকার সম্পাদকের বিরুদ্ধে বানোয়াট ও মানহানিকর অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।
Previous articleসারাদেশে পুলিশ সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে পদ্মা সেতু উদ্বোধন
Next articleঢালিউডে মৌসুমীকে নিয়ে ঝড়, ওমর সানী-জায়েদ খান দ্বন্দ্ব

Leave a Reply