নিজস্ব প্রতিবেদক

চিত্রনায়িকা মৌসুমী একটা অডিও বার্তা পাঠিয়েছেন গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে। যারা এটা শুনেছেন তারা সবাই বুঝে গেছেন, ডাল মে কুছ কালা হ্যায়। নিজের স্বামীকে তিনি বলেছেন ‘ওমর সানি ভাই”। যারা মৌসুমীকে কাছে থেকে চেনেন তারা এরই মাঝে বুঝে গেছেন এই “ভাই” সম্বোধনের মাজেজাটা কি।

বাংলাদেশে যেমন মৌসুমীর লাখলাখ ভক্ত আছেন ঠিক তেমনিভাবে জায়েদ খানেরও ভক্তের সংখ্যা নগণ্য নয়। যদিও এরই মাঝে মিডিয়ার অনেকেই জানেন, জায়েদ খান একজন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার নাম কারণে-অকারনেই ব্যবহার করেন। এমনকি মিডিয়ায় এমন কথাও চাউর আছে, জায়েদ খান পুলিশ প্রটেকশন পান এবং নিজের স্বার্থে পুলিশ বাহিনীকে ব্যবহার করেন। এক্ষেত্রে প্রশ্ন জাগতেই পারে, জায়েদ খান কি ভিআইপি? কত লাখ টাকা আয়কর দেন তিনি প্রতি বছর? বাংলাদেশ পুলিশ কি ওনার পৈতৃক সম্পত্তি?

অনেকেই বলবেন, জায়েদ খান আওয়ামীলীগ সমর্থক। ঠিক আছে। তাই বলে একজন ফ্লপ অভিনেতা এভাবে আওয়ামীলীগের নাম ব্যবহার করবে? চলচ্চিত্রাঙ্গনে জায়েদের ওঠাবসা তো বিএনপি ঘরানার লোকজনের সাথেই বেশী।

মৌসুমী-ওমর সানির সংসার ভেঙ্গেছে কি ভাঙ্গেনি এটা এখন আর মুখ্য প্রশ্ন নয়। প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশ পুলিশ কি জায়েদ খানের পকেট বাহিনী?

এখানে আরও একটা কথা বলা দরকার। এই মৌসুমীই কিন্তু জাজ জমানায় সিনেমা হলগুলোও ডিজিট্যাল প্রজেক্টর ভাড়া দিয়ে গোটা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে জিম্মি করে কোটিকোটি টাকা কামাই করেছেন। এটা এখনও কেউ ভুলে যায়নি।

Previous articleকথা রাখেননি কলকাতার পৌষালি ব্যানার্জি
Next articleপ্রবীণ অভিনেতা শক্তি কাপুরের ছেলে মাদককান্ডে জামিনে মুক্ত

Leave a Reply