জালাল উদ্দিন লস্কর

শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে যুদ্ধাপরাধী অসুর শক্তির বিচারের প্রক্রিয়া যখন চলমান, যখন অনেক যুদ্ধাপরাধীকে মৃত্যুদণ্ড ও আমৃত্যু কারাবাসের আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাব্যুনালের বিচারকগণ, তখন হবিগঞ্জ জেলার কুখ্যাত রাজাকার ও মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত সৈয়দ কায়সারের নামেই এখনও হবিগঞ্জ জেলায় চলছে সরকারী স্কুল। স্বাধীনতার প্রায় ৫১ বছরে এসে এ যেনো মহান মুক্তিযুদ্ধ ও গোটা বাঙ্গালী জাতির সাথে এক নির্মম মশকরা।

হাইকোর্টের নির্দেশনা উপেক্ষা করে বহাল তবিয়তে আছে মাধবপুর উপজেলার একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নাম। যুদ্ধাপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামীর নামে ওই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের উদ্যোগ অদৃশ্য কারনে মাঝপথে থমকে আছে। স্থাণীয় কয়েকজন শিক্ষিত বেকার ৩৫ বছর আগে ছাতিয়াইন উত্তর গ্রামে বিদ্যালয়টি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী কুখ্যাত রাজাকার ও মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনালের রায়ে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী সৈয়দ মোঃ কায়সারের নামে প্রতিষ্টা করেন।সম্প্রতি সৈয়দ মোঃ কায়সার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

মাধবপুর উপজেলার ছাতিয়াইন ইউনিয়নের ছাতিয়াইন উত্তর গ্রামের এসএম কায়সার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি স্থাণীয় কিছু বেকার যুবকের উদ্যোগে ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্টিত হয়।১৯৯১ সালের ১৪ জানুয়ারী সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়টি রেজিস্টার্ড বিদ্যালয়ের মর্যাদা লাভ করার পর বিদ্যালয়টির উদ্যোক্তা শিক্ষকেরা একটি নির্দিষ্ট হারে সম্মানী পেতে শুরু করেন।২০১৩ সালের ১ জানুয়ারী বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের আওতায় সরকারী বিদ্যালয়ের মর্যাদা পায়।বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে ২১৯ জন ছাত্রছাত্রী ও ৫ জন শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন।বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পরিমল রায় জানান তিনি ২০১৭ সালে এখানে যোগ দেন।তার যোগদানের কয়েকদিন আগে তৎকালীন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তনের দাবিতে সভা করে রেজুলেশন পাশ করে।

রেজুলেশনের অনুলিপি উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করা হয়।কিন্তু গত ৫ বছরেও এ বিষয়ে কোনো কার্যকর সিদ্ধান্ত শিক্ষা বিভাগ থেকে পাওযা যায়নি।তবে প্রধান শিক্ষক পরিমল রায় জানান উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে যথাযথ প্রক্রিয়ায় রেজুলেশটি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নিমিত্তে মন্ত্রনালয়ের সংস্লিষ্ট শাখায় পাঠানো হয়।কিন্তু এরপর এ বিষয়ে আর কোনো অগ্রগতির খবর তার জানা নেই।তবে ৪/৫ মাস আগে উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে পুনরায় তার কাছে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব সম্বলিত আগের রেজুলেশনের কপি চাওয়া হলে তিনি নির্দেশনা অনুযায়ী রেজুলেশন কপি জমা দিয়েছেন। শিক্ষা প্রতিষ্টান সহ স্থাপনা ও সড়ক থেকে যুদ্ধাপরাধীদের নাম সরিয়ে স্থাণীয় মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নামকরনের জন্য হাইকোর্ট এক যুগান্তকারী রায় দেন। কিন্তু রায়ের নির্দেশের ব্যতয় ঘটিয়ে আজ পর্যন্ত এসএম কায়সার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন ও স্থাণীয় মুক্তিযোদ্ধার নামে নামকরনে কোনো কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ ছিদ্দিকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত আছেন।নাম পরিবর্তনের একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া রয়েছে।

জালাল উদ্দিন লস্কর
মাধবপুর, হবিগঞ্জ

Previous articleস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক ডিজি কালাম ও সাহেদের বিচার শুরু
Next articleবিদেশের হলে বাংলা ছবির বাজার কতটা বড় হচ্ছে

Leave a Reply