জমজমাট ডেস্ক

অল্প কয়েক মাসের মধ্যেই যিনি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র সেক্টরের মাফিয়া হিসেবে আবির্ভূত হন সেই বিতর্কিত সেলিম খান এখন একের-পর-এক বিপদে পড়ছেন। কিছুদিন আগেই আপিল বিভাগের রায়ে অবৈধভাবে নদীর বালু তোলে সেই বালু বিক্রীর ব্যবসা বন্ধ হয়েছে আলোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়ার মালিক সেলিম খানের। ওই অবৈধ বালু ব্যবসা থেকে তার প্রতিদিনের আয় ছিলো এক কোটি টাকার বেশী।

এবার আরেক বিপদে পড়লেন সেলিম খান। জানা গেছে, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণের সুযোগে বাড়তি প্রায় ৩৬০ কোটি টাকা লোপাট করায় অপ-উদ্দেশ্যের সেলিম খানের নানা ফন্দিফিকিরের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ রক্ষায় চাঁদপুরের সাবেক জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের তদন্ত প্রতিবেদনকে চ্যালেঞ্জ করে সেলিম খান রিট করেন হাইকোর্টে।

প্রতারণা, জাল-জালিয়াতি করে দায়েরকৃত এ রিটের মাধ্যমে আদালতের সময় নষ্ট করায় উল্টো সেলিম খান ও তার দুই সহযোগীকে এক কোটি টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করেছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। তাদের দুই মাসের মধ্যে জরিমানার টাকা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য এর আগে সেলিম খানকে আজীবনের জন্যে আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কার করা হয়।

এদিকে সেলিম খানের অবৈধ সম্পদের বিষয়ে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন। কিছুদিনের মধ্যেই এবিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে দুদক কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে কলকাতায় কিভাবে কোটিকোটি টাকা বিনিয়োগ করে সেলিম খান অফিস খুললেন, চলচ্চিত্র প্রযোজনা করছেন এটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি সূত্র জানায়, বাংলাদেশ থেকে ভারতে টাকা পাঠানোর ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ বিভাগ থেকে সেলিম খান পূর্বানুমতি নিয়েছেন কিনা সেটাই এখন খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যদি তিনি অনুমতি না নিয়ে থাকেন তাহলে তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা হতে পারে।

Previous articleবিদেশের হলে বাংলা ছবির বাজার কতটা বড় হচ্ছে
Next articleআমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা গোয়ার্তুমিমুক্ত করাটা ভীষন প্রয়োজন

Leave a Reply