রঞ্জু সরকার

তথ্যমন্ত্রণালয় থেকে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য ৫ থেকে ৭ কোটি টাকা অনুদান দেয়া হয়। কিন্তু এই অনুদান দেয়া নিয়ে নানা ধরনের কথাবার্তা চলচ্চিত্রের সংশ্লিষ্টদের কানে কানে ঘুরছে। ক’দিন আগে এক তথ্যপ্রতিমন্ত্রীর টেলিফোন সংলাপ ফাঁস হলে চরম বিতর্কের সৃষ্টি হয়। জানিনা ওই তথ্যমন্ত্রী ফাইভ স্টার হোটেলে ডেকে নিয়ে কারকার উপর অনুদানের আষাঢ়-শ্রাবন বইয়েছেন।অনুদান’ মানেই কথিত একটি কমিটি এবং কিছু কিছু শিল্পী আর আমলার কদর্য দলাদলি। এসব নোংরামীকে দেখে চলচ্চিত্র সেক্টরের অনেকেই অনুূদান যুদ্ধে যেতেও লজ্জা পান। কারণ ওনারা জানেন কমিটির সদস্যদের মন জোগাতে না, পারলে চলচ্চিত্রের প্রস্তাবনা যতই যুক্তিসঙ্গত হোক না কেন, অনুদানের দরজা ওনাদের জন্য খুলবে না।

সহজ কথায় অনুদানের নামে স্বজনপ্রীতি হচ্ছে, নীতি বিবর্জিত সিদ্ধান্ত হচ্ছে। ফলে চলচ্চিত্র সেক্টরে লাভের চেয়ে বির্তক হচ্ছে বেশি। পাশের দেশ ভারতে চলচ্চিত্রের জন্য কোন অনুদানের নিয়ম নেই বরং সে দেশে ভারতীয় চলচ্চিত্রকে উৎসাহিত করতে প্রমোদ কর মাফ করে দেওয়া হয়। সতজিৎ রায়ের মতো নির্মাতারও একাধিক সিনেমা মুক্তি পেয়েছে প্রমোদকর বেয়াতের আওতায়। তিনিও চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য অনুদান পাননি। কারণ সে দেশে অনুদান’ কালচার নেই।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেক্টর এখন নিদারুণ সংকটে আছে। সারা দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা কমছে।অন্যদিকে সিনেপ্লেক্সের সংখ্যাও বাড়ছে না।কেউ কেউ বলছেন বাংলাদেশে নাকি তিনশত সিনেপ্লেক্স নির্মাণ হচ্ছে। এসব অর্বাচিন গাজাখুরি খবর ওনারা কোথায় পান জানিনা। সরকারের শীর্ষ মহলে যোগাযোগ করে জেনেছি, তিনশত সিনেপ্লেক্স নির্মাণের কোন সিদ্ধান্ত আজ অবধি উচ্চারিতও হয়নি।

তাহলে কি বাংলাদেশের সিনেমা সেক্টরের জন্য কোন সুখবর নেই..? দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে যারা চলচ্চিত্র সেক্টরের নেতা-নেত্রীর আসন দখল করে আছেন ওনারাও জানেন, সুখবর আসলে নেই। তাহলে প্রশ্ন জাগতেই পারে আমাদের সিনেমা সেক্টর যেখানে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান, তা কি বন্ধ হয়ে যাবে-মুখ থুবরে পড়বে?

কিছু কিছু প্রযোজক আছেন যারা বলেন, ফিল্ম সেক্টরে এখন আর ব্যবসা নেই, সম্ভবনাও নেই। তাহলে বিনয়ের সাথে প্রশ্ন করবো, বাংলাদেশের ফিল্ম সেক্টর কি এতিমখানা কিংবা বিনা খরচে মরা সৎকারের প্রতিষ্ঠান? একেবারেই না। আগে সিনেমা নির্মিত হতো সিনেমা হলে মুক্তির অংক কষে। আর এখন পাশের দেশের বলিউডেও সিনেমা নির্মিত হয় সিনেমা হল, সিনেপ্লেক্স এবং ওটিটি প্লাটফর্মকে টার্গেট করে। তারমানে বাজারের পরিধিটা আগের চাইতে অন্তত বিশগুন বেড়েছে। কিন্তু দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে, আমাদের এখানে যারা নিজেদের কে চলচ্চিত্র সেক্টরের মুরুব্বি, তারা সত্যটা মানতেই চান না। ডিজিটাল যুগে বাংলা চলচ্চিত্রের দর্শকের সংখ্যা এখন প্রায় পনেরো কোটি অর্থাৎ বাংলা চলচ্চিত্রের বাজার বিশাল। এই হিসাবটা মাথায় রেখে চলচ্চিত্র নির্মাণ করলে বাংলাদেশে প্রতিবছর তিনশত নতুন সিনেমা নির্মিত হবে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে সরকারের কিছু উদ্যোগ প্রয়োজন। যেমন :

১।  প্রতিবছর অনুদানের নামে ভিক্ষা বন্ধ করে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য (যে গুলোর দর্শক চাহিদা থাকবে) অন্তত একশত কোটি টাকার সুদমুক্ত ১-২% সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা,

২। এফডিসি দ্রুততার সাথে বঙ্গবন্ধু ফিল্মসিটিতে স্থানান্তরিত করে সেখানে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি, ডিজিটাল স্টুডিও এবং ফিল্মসিটির সাথে টাকা শহরের যাতায়াতের ব্যবস্থা করা,

৩। ফিল্ম সিটিতে নিয়মিত শিল্পী ও কলাকুশলীদের জন্য অত্যন্ত অল্প খরচে থাকার ব্যবস্থার লক্ষে অন্তত পঞ্চাশ কক্ষের রেষ্ট হাউজ নির্মান করা,

৪। ফিল্মসিটি ঘেঁষে অন্তত এক’শ বিঘা জমির উপর চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট নির্মাতা, শিল্পী ও কলাকুশালীদের জন্য ৮০০-১৫০০ স্কয়ার ফুটের আবাসিক ফ্লাটের প্রকল্প হাতে নেয়া,

৫। বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনের কালচারাল সেকশন গুলোকে আন্তর্জাতিক ওটিটি প্লাটফর্মে বাংলাদেশী চলচ্চিত্র বিক্রীর লক্ষ্যে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া। পাশাপাশি প্রযোজক পরিবেশক প্রতিষ্ঠানকে বিদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ করে বাংলাদেশী চলচ্চিত্র বিক্রির দায়িত্ব দিতে হবে। এক্ষেত্রে প্রযোজক ও পরিবেশকদের প্রতিষ্ঠান প্রয়োজনে বিদেশী বাংলাদেশী মিশনের সহযোগিতা নিবে।

এই প্রস্তাবগুলো জোড়ালো ভাবে উপস্থাপনের মাধ্যমে বাস্তবায়িত করা হলে বাংলাদেশী চলচ্চিত্র সেক্টর নিশ্চিতভাবে ঘুরে দাঁড়াবে। অন্যথায় আখেরে সবাইকেই পস্তাতে হবে।

Previous articleখালেদা জিয়াকে মধ্যরাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে
Next article১ লা জুলাই থেকে রাত ৮টার পর ঢাকায় দোকান বন্ধ: ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস

Leave a Reply