জমজমাট ডেস্ক

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুর গুজব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছে তার পরিবার। যদিও তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে পরিবারের তরফ থেকে। গত তিন সপ্তাহ ধরে তিনি হাসপাতালে রয়েছেন।

এ নিয়ে টুইটারে পারভেজ মোশাররফের একাউন্ট থেকে একটি পোস্ট করে তার পরিবার। এতে জানানো হয়, পারভেজ মোশাররফ এখন ভেন্টিলেটরে নেই। তবে তিনি গুরুতর স্টেজ পাড় করছেন। তার শরীরের কিছু অঙ্গ কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে এবং এখান থেকে সুস্থ হওয়ার সুযোগ একেবারেই কম। ওই পোস্টে তার জন্য প্রার্থনার আহ্বানও জানানো হয়েছে।

এর আগে অল পাকিস্তান মুসলিম লিগ (এপিএমএল) মুখপাত্র আমান খান তারিনও মোশাররফের মৃত্যুর খবরকে ভুয়া বলে জানিয়েছেন। ২০১৮ সাল থেকে অসুস্থ পারভেজ মোশাররফ।

তিনি বিরল রোগ এমিলোইডোসিসে আক্রান্ত। এপিএমএল প্রেসিডেন্ট আফজাল সিদ্দিকি জানিয়েছেন, এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মোশাররফের নার্ভ সিস্টেম দুর্বল হয়ে পড়েছে। বর্তমানে তিনি লন্ডনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এর আগে শুক্রবার তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ভারতের বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে তার মৃত্যুর খবর প্রচারিত হয়। তবে পাকিস্তানের নির্ভরযোগ্য গণমাধ্যমগুলোতে এমন খবর না পাওয়ায় বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়। পরে তার পরিবার এবং এপিএমএল দল থেকে তার মৃত্যুর খবর অস্বীকার করে বিবৃতি দেয়া হলো।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে প্রেসিডেন্ট থাকার সময় বেআইনিভাবে সংবিধান বাতিল ও জরুরি অবস্থা জারির দায়ে ২০১৩ সালে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়। ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ মোশাররফ অভিযুক্ত হন। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে বিশেষ আদালতের কাছে বিচারের জন্য সব তথ্যপ্রমাণ পেশ করা হয়। তবে আপিল ফোরামে মামলাটি তোলার পর বিচারকাজ দীর্ঘায়িত হয়ে পড়ে এবং মোশাররফ ২০১৬ সালের মার্চ মাসে পাকিস্তান ছেড়ে চলে যান। চিকিৎসার জন্য তাকে দেশত্যাগের অনুমতি দেয়া হয়েছিল।
তবে এর পর থেকে তিনি আর স্বদেশে ফেরেননি। তার কয়েক মাস পরেই পাকিস্তানের একটি বিশেষ আদালত তাকে অপরাধী ঘোষণা করে। বারবার আদালতে হাজির না হওয়ায় পাকিস্তানে থাকা তার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন আদালত। বাতিল হয় তার পাসপোর্ট এবং পরিচয়পত্রও। রাষ্ট্রদোহের ওই মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে ২০১৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর ইসলামাবাদের বিশেষ আদালত পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। পাকিস্তানের ইতিহাসে এ ধরনের রায়ের ঘটনা ছিল এটিই প্রথম। যদিও ২০২০ সালের জানুয়ারিতে পাকিস্তানের সাবেক সামরিক শাসকের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করেন দেশটির একটি আদালত। যে প্রক্রিয়ায় পারভেজ মোশাররফের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছিল, তাকে অসাংবিধানিক উল্লেখ দিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়।

বর্তমান পাক প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফের ভাই সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে হটিয়ে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ১৯৯৯ সালে ক্ষমতা দখল করেছিলেন পারভেজ মোশাররফ। ২০০১ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। ২০০৭ সালের নভেম্বরে তিনি পাকিস্তানের সংবিধান বাতিল করে জরুরি অবস্থা জারি করেন। এর বিরুদ্ধে ওই সময় ব্যাপক বিক্ষোভ হয়। এরপর অভিশংসনের ঝুঁকি এড়াতে তিনি ২০০৮ সালে পদত্যাগ করেন।

Previous articleরাজধানীর গুলশানে চলন্ত তুরাগ বাসে আগুন
Next articleখালেদা জিয়াকে মধ্যরাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে

Leave a Reply