জমজমাট ডেস্ক

বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা:) কে উদ্দেশ্য করে
ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)’র সাময়িক বরখাস্ত মুখপাত্র নূপুর শর্মার আপত্তিকর বক্তব্যের প্রতিবাদে আগামীকাল শুক্রবার সারাদেশে ব্যাপক বিক্ষোভের আয়োজন করছে জামাতে ইসলামী, হেফাজতে ইসলামসহ বেশ কয়েকটি ধর্মভিত্তিক সংগঠন। তবে এই ইস্যুকে পুঁজি করে দেশে অরাজকতা ছড়িয়ে দেয়ার পাশাপাশি ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশন অভিমুখে মিছিলের পরিকল্পনা করছে হেফাজতে ইসলাম। পাশাপাশি এই সংগঠনগুলো ভারতীয় পন্য বয়কটের ডাক দেবে বলেও জানা গেছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে আরো জানা গেছে, নূপুর শর্মা ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে দেশে ভারত ও হিন্দু বিরোধী জনমত সৃষ্টির নির্দেশ দিয়েছে বিদেশে পালিয়ে থাকা জামাতের “হাইকমান্ড”। বিশেষ করে মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর হওয়া যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীর পরিবার শুধু আগামীকালের বিক্ষোভ কর্মসূচির পেছনেই কয়েক কোটি টাকা দিচ্ছে বলেও জানা গেছে।

এদিকে নূপুর শর্মা ইস্যুকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছেন ব্রিটেনে পালিয়ে থাকা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কারাগারে আটক তার বন্ধু গিয়াসউদ্দিন মামুন এবং একান্ত সহযোগী মিয়া নুরুদ্দিন অপুকে ফোন করে তারেক রহমান বলেছেন নূপুর শর্মা ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশে কিছু নাশকতা চালানোর বিষয়ে কারাগারেই আটক জঙ্গিগোষ্ঠী জামাতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ বা জেএমবি (যা বর্তমানে আল কায়েদার আঞ্চলিক গ্রুপ আকিস-এর স্থানীয় অংশ হিসেবে আনসার আল ইসলাম নাম ধারণ করেছে)-এর শীর্ষ নেতাদের সাথে পরামর্শ করতে। পাশাপাশি তিনি ভারতে পালিয়ে থাকা বিএনপির আরেক নেতা সালাউদ্দিন আহমেদকে নির্দেশ দিয়েছেন সেদেশে পালিয়ে থাকা জেএমবি বা আনসার আল ইসলাম শীর্ষ জঙ্গি সালাউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ওপর জঙ্গি গোষ্ঠী হিজবুল মুজাহিদীন এর সহায়তায় বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তবর্তী জেলাগুলোয় নাশকতা চালাতে।

আরেকটি সূত্র জানায়, আগামীকাল জুমার নামাজের আগেই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন মসজিদে জামাতে ইসলামী, হেফাজতে ইসলামসহ ধর্মভিত্তিক দলগুলোর হাজার-হাজার কর্মী ও সমর্থক ফেস্টুন, ব্যানার ইত্যাদি নিয়ে অবস্থান নেয়ার পাশাপাশি রাজপথে নূপুর শর্মা, নরেন্দ্র মোদী, ও বিজেপির শীর্ষ কিছু নেতার কুশপুত্তলিকার পাশাপাশি ভারতীয় পতাকা পোড়ানোর পরিকল্পনা এঁটেছে।

এবিষয়ে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাংবাদিক ও জঙ্গীবাদ বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক সালাহ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী বলেন, “নূপুর শর্মা যে কাজটা করেছে সেটা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। সে আমাদের প্রিয় নবীর প্রতি চরম অবমাননা দেখিয়েছে, যা কোনো মুসলমান মেনে নেবেনা। কিন্তু নূপুর শর্মা ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে জামাত-হেফাজতসহ ধর্মীয় উগ্রপন্থী এবং জিহাদ সমর্থক অপশক্তি যেনো কোনো ধরনের নৈরাজ্য চালাতে না পারে সেদিকে আমাদের আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে সজাগ থাকতে হবে। ভারত আমাদের বন্ধুপ্রতিম দেশ। পাশাপাশি বাংলাদেশ হলো ধর্মীয় সম্প্রীতি এবং সব ধর্মের অনুসারীদের শান্তিপূর্ন সহাবস্থানের দেশ। এদেশে আমরা কোনো ধরনের ধর্মীয় উগ্রতা বরদাস্ত করতে পারিনা।”

Previous articleদক্ষিণী অভিনেত্রী নয়নতারা পরিচালক বিগনেশ শিবানকে বিয়ে করলেন
Next articleপ্রাণ হারানো ব্যক্তিদের স্মরণে কোক স্টুডিও কনসার্টে ১ মিনিট নীরবতা

Leave a Reply