সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

আজ থেকে দুই যুগ আগে যখন জমজমাট এর ডিক্লারেশন চেয়ে ঢাকার জেলা প্রশাসক এর কাছে আবেদন করা হয়, তখন আমার সিদ্ধান্ত ছিলো জমজমাট হবে একটা সম্পূর্ন পারিবারিক ম্যাগাজিন, যেটায় রাজনীতি, অর্থনীতি, বিনোদন, অপরাধ, সাজগোজ, আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীসহ চারপাশের সবকিছুই থাকবে। ডিক্লারেশন পাওয়ার পর জমজমাট ওই অবয়বেই ছাপা হতো। তখন ইন্টারনেট খুব একটা জনপ্রিয় হয়ে ওঠেনি। তাই আমাদের একমাত্র অবলম্বন ছিলো হকার সমিতিগুলো। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের নিউজস্ট্যান্ডগুলোয় জমজমাট পাওয়া যেতো, বিক্রী হতো। শুরুর দিকে প্রতি সপ্তাহে পাঁচ হাজার কপি। এরপর ধীরেধীরে চাহিদা বাড়তে থাকে। কিন্তু ২০১২ সালে নানা কারণে জমজমাট-এর মুদ্রিত সংস্করণের প্রকাশনা ব্যাহত হয়। তখন থেকেই পত্রিকাটি অনলাইন নির্ভর হয়ে পরে। ক্রমশ এটা পরিণত হয় বিনোদন পত্রিকায়।

এরপর ২০২০ সালে জমজমাট পরিবারে যুক্ত হয় রঞ্জু সরকার। ও যেহেতু আপাদমস্তক বিনোদন সাংবাদিক তাই রাজনীতি কিংবা অন্য কোনো বিষয়ের প্রতি তার আগ্রহ কম। এরই মাঝে শুরু হয়ে যায় কোভিড তাণ্ডব। মানুষের মনে তখন আতঙ্ক। পত্রিকাগুলোর ছাপা সংস্করণের চাহিদা ভীষনভাবে কমে যায়। আমরাও বাধ্য হয়ে অনলাইন নির্ভর হয়ে পড়ি। পাশাপাশি, আমার সম্পাদনায় প্রকাশিত প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর মুদ্রিত সংস্করণ স্থগিত করে শুধুই অনলাইন সংস্করণ চলতে থাকে।

গত বছরের শেষ দিকে আমরা ব্লিটজ-এর মুদ্রিত সংস্করণ আবার চালুর সিদ্ধান্ত নিই। ফেব্রুয়ারী থেকে আবার বাজারে আসে এই পত্রিকার মুদ্রিত সংস্করণ। যারা ব্লিটজ-এর নিয়মিত পাঠক, ওনারা জানেন, এই পত্রিকার সাংবাদিকতায় তোতলামি নেই। ধারালো সাংবাদিকতার কারণে গোটা পৃথিবীজুড়ে ব্লিটজ-এর খ্যাতি আছে, গ্রহণযোগ্যতা আছে। এরই মাঝে রঞ্জু সরকারও ব্লিটজ-এ লিখতে শুরু করে। একই অফিসের একই ছাদের নিচে দুটো পত্রিকা। ব্লিটজ ছাপা হচ্ছে, জমজমাট চলছে অনলাইনে। প্রতি সপ্তাহে পাঠকের হাতে ব্লিটজ-এর হাজার-হাজার কপি যাচ্ছে। জমে উঠেছে ব্লিটজ-এর আয়োজন। লোকজন আসছেন, খোঁজ নিচ্ছেন, আগ্রহ দেখাচ্ছেন, পরামর্শ দিচ্ছেন। এসব দেখে আবদারের সুরে রঞ্জু বলেই ফেললো, “ভাই জমজমাট-এর প্রিন্টেড এডিশন করেন”। দুদিন ভেবে বললাম, ঠিক আছে। কিন্তু শুধুই বিনোদন নির্ভর কাগজ হিসেবে জমজমাট বাজারে যাবেনা। আর এটা শুধুই বিনোদন পত্রিকা নয়ও।

এরপর আরো কয়েকদিন। রঞ্জু ভাবছে। পরিকল্পনা করছে। অন্যদের মনেও একই ভাবনা। শেষতক সিদ্ধান্ত হলো, ডিসেম্বর থেকে জমজমাট-এর মুদ্রিত সংস্করণ বাজারে যাবে। এরই অংশ হিসেবে নতুন একটা টিম তৈরীর আয়োজন চলছে। মানে, রঞ্জুর সাথে আরো কিছু সাংবাদিক সংযুক্ত হবে। প্রতি সপ্তাহে এমন একটা পত্রিকা ওরা উপহার দেবে, যা পাঠকদের আগ্রহ তৈরীতে সক্ষম হবে।

কি থাকবে জমজমাট এর মুদ্রিত সংস্করণে, বা কি ধরনের আয়োজন নিয়ে আসছে পত্রিকাটা। এমন প্রশ্নের উত্তর পাঠকরা পাবেন ডিসেম্বরে। আপাতত এটুকুই বলবো, ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে জমজমাট-এ এমনকিছু আয়োজন থাকবে, যা পাঠকরা পছন্দ করবেন। আগামী বছরের নির্বাচনে যারা বিভিন্ন দল থেকে মনোনয়ন নেবেন তাদের কাছে জমজমাট জানতে চাইবে, নির্বাচিত হলে দেশের জন্যে কিংবা ভোটারদের জন্যে ওনাদের ভাবনাগুলো। নতুন প্রজন্ম এবং নতুন মুখ, যারা আগামী বছরের নির্বাচনে প্রার্থী হতে চাচ্ছেন, ওনাদের সাথে কথা বলবে জমজমাট টিম। জানবে ওনাদের কথা। তুলে ধরবে ওনাদের সবকিছু।

যারা ব্লিটজ পড়েন, ওনারা স্পষ্টভাবেই বোঝেন, আমরা ধর্মীয় উগ্রবাদ এবং জঙ্গিবাদের বিপক্ষে। আমরা সরকারের ইতিবাচক কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করতে কার্পণ্য করিনা। আমরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ শক্তি। পাশাপাশি, আমরা সত্য প্রকাশে সামান্য কুন্ঠিত নই। আগামী বছরের নির্বাচন বাংলাদেশের জন্যে খুবই গুরুত্বপূর্ন। আমরা চাই সব দলের অংশগ্রহণে উৎসবমুখর পরিবেশে ওই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক। আমরা চাই যোগ্য ব্যক্তিরাই যেনো বিভিন্ন দলের মনোনয়ন পান। আমরা চাই, নতুন প্রজন্মের অধিকতর উপস্থিতি, আগামী সংসদ। এই লক্ষ্যে জমজমাট টিম কাজ করবে। প্রতি সপ্তাহে ওরা এই গুরুত্বপূর্ন বিষয়গুলো তুলে ধরবে নির্মহ-নিরপেক্ষভাবে।

এরই মাঝে বদলে যেতে শুরু করেছে জমজমাট-এর আয়োজন। বিনোদন সংবাদের পাশাপাশি আসতে শুরু করেছে নানা ধরনের রিপোর্ট আর ফিচার। আমরা কথা দিচ্ছি, জমজমাট গৎবাঁধা পত্রিকা হবেনা।

Previous article১২ জুন থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ
Next articleফেব্রুয়ারীতে গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘কাজলরেখা’ মুক্তি পাবে

Leave a Reply