বিশেষ প্রতিবেদন

সীতাকুণ্ডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডকে কেন্দ্র করে নতুন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চর্চা হচ্ছে বেশ কিছু গুজবের।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার এবং হোয়াটসঅ্যাপে ‘ডিএমপি পরিচালক’-এর বরাত দিয়ে প্রচারিত হচ্ছে একটি গুজব। যেখানে বলা হয়েছে- ‘১০/১৫ দিনের মধ্যে কোন বৃষ্টি আসলে কেউ এটা তে ভিজবেন না, চট্টগ্রাম শহর, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সহ আশে পাশের এলাকার মানুষজন আগামী কয়েকদিন অন্তত বৃষ্টিতে ভিজবেন না। ঘর থেকে বের হলে সর্বক্ষণ সাথে ছাতা রাখুন। হাইড্রোজেন পার অক্সাইড একটি অম্লধর্মী অক্সাইড বিধায় দূষিত বাতাসের সাথে বৃষ্টির পানি মিশে এসিড বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। তাই যতদূর সম্ভব বৃষ্টি এড়িয়ে চলুন। বিশেষ করে বৃদ্ধ দের বৃষ্টির সময় ঘর থেকে বের হতে দিবেন না।

যতটুকু খারাপ ঘটে গিয়েছে এরচেয়ে বেশি কিছু যাতে না ঘটে, সবাই সচেতন থাকুন নিজের অবস্থান থেকে। সকলকে সর্তক বার্তাটি প্রধান করুন, নিজে বাঁচুন, অন্য কে ও সাহায্য করুন৷

এ বিষয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত উপ কমিশনার (এডিসি মিডিয়া) হাফিজ আল আসাদ সময়ের আলোকে বলেন, কোনো একটি চক্র মিথ্যা গুজব ছড়াচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে এ ধরনের বিভ্রান্ত ছড়ানো হচ্ছে। আমাদের সাইবার টিম গুজবকারিদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করছে।

তিনি আরো বলেন, ডিএমপি এ ধরনের কোনো বার্তা দেয়নি। প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ দেখা দিলে সেটি সাধারণত আবহাওয়া অধিদফতর থেকে নির্দেশনা দিবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া অপর এক গুজবে বলা হচ্ছে, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বাতিল করে ফায়ার সার্ভিসের জন্য তিনটি হেলিকপ্টার কিনতে বলেছেন।’

কিন্তু এটি সম্পূর্ণ গুজব। উল্টো পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জন্য আজ (সোমবার) ঘোষণা করা হয়েছে ১৪ সদস্যের একটি ‘মূল কমিটি’। এই কমিটির উপদেষ্টা হিসেবে রয়েছেন স্বয়ং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এই মূল কমিটির অধীনে আরো ছোট ছোট সাব-কমিটি গঠন করা হবে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জন্য।

এ ছাড়াও একাধিক ছোট ছোট গুজব ছড়ানো হয়েছে এই অগ্নিকাণ্ডের কারণ নিয়ে। এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর বিভিন্ন সময়ে একাধিক মন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয়েছে অগ্নিকাণ্ডের কারণ নিয়ে। কিন্তু তাদের কাছে করা প্রশ্নটি ছিলো- ‘এর পেছনে কোন নাশকতামূলক কার্যক্রম ছিলো কিনা?’ যার উত্তরে অধিকাংশরাই বলেছেন, ‘এর পেছনে নাশকতা বা সন্ত্রাসী কোন কার্যক্রম ছিলো কিনা, তা তদন্ত সাপেক্ষে জানানো হবে।’ কিন্তু এই অগ্নিকাণ্ডকে ‘সন্ত্রাসী হামলা’ বা নাশকতা মূলক হামলা বলে প্রচার করা হচ্ছে বেশ কিছু ক্ষেত্রে।

অগ্নিকাণ্ডের কারণ কী জানতে চাইলে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মিডিয়া শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহজাহান সিকদার জানান, তদন্ত সাপেক্ষে বিস্তারিত জানানো হবে। কিভাবে আগুন লেগেছে তা হঠাৎ করে জানানো সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য বাংলাদেশে যে কোন বড় দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে গুজব বেশ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এ বিষয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের একাধিক নির্দেশনা রয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যতীত অন্য কোন কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে বা কোন তথ্য সূত্র ছাড়াই তথ্য ছড়িয়ে গুজব রটানো হয়।

গুজব প্রতিরোধে বিটিআরসি, আইসিটি মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে রয়েছে একটি গুজব প্রতিরোধ কমিটি। এ ছাড়া তথ্য অধিদফতর সব মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে পৃথক আরেকটি দল নিয়ে কাজ করছে যারা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত ভুল তথ্য বা মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে পড়লে তা মোকাবীলায় সমন্বয়ের মাধ্যমে সঠিক তথ্য সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করে।

Previous articleএবার ভাইজান খ্যাত সালমান খানের সঙ্গে তার বাবা সেলিম খানকে হত্যার হুমকি!
Next article‘সোলাস্তা’ ফ্যাশন ব্র্যান্ডের ফটোশুটে গৌতম সাহা’র কোরিওগ্রাফিতে দীঘি

Leave a Reply