অকাল প্রয়াত ভারতের কয়েকটি ভাষার জনপ্রিয় গায়ক কেকে – কে নিয়ে আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশ করে পুরে ভারত জুড়ে সমালোচিত ও নিন্দিত হচ্ছেন কলকাতার গায়ক রূপঙ্কর বাগচী। তার নিজ প্রদেশ পশ্চিমবঙ্গ জুড়েও তাকে নিয়ে নিন্দার ঝড়। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাকে নিয়ে নিন্দার ঝড় বইছে আন্তর্জাতিক ভাবে বাংলা ভাষাভাষীদের মধ্যেও। রূপঙ্কর বাগচীকে কলকাতার পতিতা পল্লী সোনাগাছির দালাল উল্লেখ করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশী নারী সাংবাদিক মিলি সুলতানা। তার সেই পোস্টটি তুলে ধরা হলো –

খুব ভাল লাগছে সোনাগাছির দালাল রূপঙ্কর বাগচীর বিরুদ্ধে কলকাতাবাসীর অব্যাহত প্রতিবাদ আর ঘৃণা দেখে। পশ্চিমবঙ্গের মানুষদের কুর্নিশ জানাই বাগচীকে একেবারে ভরিয়ে টইটম্বুর করে দিচ্ছেন তারা । গত ৩১ মে’ থেকে কেকে’র অকাল মৃত্যুর শোকে বুকটা ভারী হয়ে আছে এখন পর্যন্ত। কেকে’ একটা জেনারেশনের নস্টালজিয়া। রাত জাগার নস্টালজিয়া। প্রেম বিরহ বন্ধুত্ব – কোথায় নেই কেকে’ ?? আমি কেকে’র নিবেদিত ভক্ত। আমার ছেলেমেয়ে দু’টোও কেকে’র ভক্ত। দুই জেনারেশন ভাগাভাগি করে নিয়েছে মিউজিক জিনিয়াস কেকে’ কে। তাঁর মৃত্যুর পর থেকে সবার মন বিষন্ন। তিনি মরে গিয়ে অমর হয়েছেন। তবে রূপঙ্কর বাগচী জীবিত হয়েও সবার কাছে মৃত। নিজের স্বভাবদোষে মানুষের মনে “মৃত” হয়েই আছেন। এমন লজ্জার দায় থেকে মুক্ত হবার মানসিকতা বাগচীর নেই। কারণ তিনি যে উৎকৃষ্ট মানের নির্লজ্জ। কলকাতাবাসীকে স্যালুট জানাই। তারা কেকে’র জন্য রূপঙ্কর বাগচীকে তিরস্কার করছেন, ঘৃণা করছেন।

কেউ বলছেন রূপঙ্কর বাগচী সোনাগাছির দালাল। কেউ বলছেন মুচি। রূপঙ্কর কেমন গায়ক তা নিয়ে সন্দেহ না থাকলেও মানুষ হিসেবে কেমন তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ আছে। কেকে ভারতের কয়েকটি প্রদেশের ভাষায় গান গেয়েছেন। গায়কীর দিক দিয়ে তার বাহাদুরি করার কথা। যদিও তা তিনি করেননি। তাঁর বিনয় আর নিরহঙ্কারী স্বভাবের জন্য আজ মানুষ তার জন্য শোকগ্রস্ত হচ্ছে, কষ্ট পাচ্ছে। জেনারেশন টু জেনারেশনগানের যে ডাইমেনশন কেকে তৈরি করেছেন তার ত্রিসীমানায় উঁকি মারার যোগ্যতা রূপঙ্কর বাগচীর যদি থাকতো তাও মানা যেত। কেকে সবসময় প্রচারবিমুখ ছিলেন বলে সোনাগাছির বাগচী হয়ত কেকের চেহারা দেখেননি। তাঁর গানও শোনেননি। বোঝাই যাচ্ছে সব দোষ সোনাগাছির। এই সোনাগাছিই রূপঙ্কর বাগচীর সব প্রতিভা কেড়ে নিয়েছে।

Previous articleসিয়াম-পুজার ‘শান’ সিনেমা পার্বত্যবাসীদের বিকল্প ব্যবস্থায় দেখানো হচ্ছে
Next articleমুক্তিযোদ্ধা ও পপসম্রাট আজম খানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী

Leave a Reply