জনপ্রিয় গায়ক কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ ওরফে কেকে এর আগে কলকাতায় বহুবার এসেছেন। সেখানকার মানুষজন প্রতিবারই জনপ্রিয় এই গায়ককে ভালোবাসায় ভরিয়ে দিয়েছেন । এবারও গোটা পশ্চিমবঙ্গ ভালোবাসা জানাল তাকে। তবে অন্যান্যবারের চেয়ে আলাদা ছিল তা। অশ্রুসিক্ত সেই ভালোবাসা জানানোর মুহূর্তে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়, পরিবার ও সহকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) মুম্বাইয়ের ভারসোভার মুক্তিধাম শ্মশানে গায়কের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। এই শ্মশানেই শেষকৃত্য হয়েছিল কেকে-র মায়ের। ভারসোভার পার্ক প্লাজা কমপ্লেক্সে থাকতেন কেকে। সেখানে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২ পর্যন্ত প্রিয় শিল্পীকে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন সাধারণ মানুষ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেকের স্ত্রী-সন্তানসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। কেকের নিথর দেহ ঘিরে কান্নার মাতম তোলেন তারা। সে সময় এই কণ্ঠশিল্পীর পরিবারের শোকাতুর সদস্যদের সান্ত্বনা দেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি তাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন।

এরপর কেকের কফিনে মালা দিয়ে সম্মান জানান তার স্ত্রী জ্যোতি কৃষ্ণা এবং পুত্র নকুল কৃষ্ণা কুন্নাথ। এ সময় সবার উপস্থিতিতে গান স্যালুট দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয় প্রয়াত এই শিল্পীকে।

শেষবারের মতো গায়ককে দেখতে ছুটে আসেন জাভেদ আখতার, আকৃতি কক্কর, শঙ্কর মহাদেবন, অভিজিৎ ভট্টাচার্য, পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজ, শ্রেয়া ঘোষাল, রাঘব সাচার, সুদেশ ভোঁসলে, অলকা ইয়াগনিক, সেলিম মার্চেন্ট, জাভেদ আলি, হরিহরণ প্রমুখ।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় কলকাতা থেকে মুম্বাইয়ে পৌঁছায় কেকে-র নিথর দেহ। কলকাতা থেকে গান স্য়ালুটে বিদায় জানানো হয় তাকে।

মঙ্গলবার (৩১ মে) কলকাতায় একটি লাইভ কনসার্টে অংশ নিয়েছিলেন কেকে। সেখান থেকে ফেরার পথে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। অসুস্থ এই গায়ককে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

Previous articleসুমন ধর পরিচালিত দীঘি-ইয়াশ রোহান’র ‘শেষ চিঠি’
Next articleআদর-বুবলীর ‘তালাশ’ দেখা যাবে অর্ধশতাধিক প্রেক্ষাগৃহে

Leave a Reply