মঙ্গলবার (৩১ মে ) রাত সাড়ে ৯ টায় কলকাতার একটি হাসপাতালে ভারতের বিখ্যাত সংগীতশিল্পী কৃষ্ণকুমার কুন্দন ওরফে কেকে না ফেরার দেশে চলে গেছেন।তার বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার কলকাতায় গুরুদাস কলেজের এক অনুষ্ঠানে পারফর্ম করেন কেকে। সেখানে গান গাওয়ার সময় অসুস্থ হয়ে পড়লে তিনি হোটেলে চলে যান। পরে সেখান থেকে কলকাতা সিএমআরআই হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসকদের ধারণা, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই এ শিল্পীর মৃত্যু হয়েছে।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে পশ্চিমবঙ্গের বিদ্যুৎমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস বলেন, গায়ক অনুপম রায় আমাকে ফোন করে বলেছিলেন যে, তিনি হাসপাতাল থেকে খারাপ কিছু শুনতে পাচ্ছেন। এরপর হাসপাতালে যোগাযোগ করি। তারা বলেছে, তাকে মৃত অবস্থায় আনা হচ্ছে। তারপর হাসপাতালে ছুটে যাই।

কেকের মৃত্যুতে শোকের ছাড়া নেমে এসেছে ভারতের সংগীত ও চলচ্চিত্র জগতে। গত তিন দশকে ভারতীয় সংগীত প্রেমীদের বহু হিট গান উপহার দিয়েছেন কেকে। তার ছেলেবেলা কাটে নয়াদিল্লিতে। তিনি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক পাস করে। পরে তিনি পা রাখেন বলিউডের গ্ল্যামার দুনিয়ায়।

১৯৯৭ সালে ‘হম দিল দে চুকে সনম’ ছবিতে প্রথম প্লেব্যাক করেছিলেন কেকে। ১৯৯৯ সালে তার প্রথম অ্যালবাম ‘পাল’ প্রকাশ পায়। এরপর ‘কেয়া মুঝে পেয়ার হ্যায়’ (কেকে), ‘দিল কিউ ইয়ে মেরা শোর কারে’, ‘জিন্দেগি দো পাল কি’ (কাইটস), ও ‘তুনে মারি এন্ট্রিয়া’ (গুন্ডে) মতো অসংখ্যা গান গেয়ে মুগ্ধ করেছিলেন সংগীত প্রেমীদের। তিনি হিন্দি, বাংলা, তামিল, তেলুগু, কন্নড়, মালয়ালাম, গুজরাটি ভাষায় গান গেয়েছিলেন।

Previous articleঅভিনেত্রী জয়া আহসানকে রানু মণ্ডলের সঙ্গে তুলনা করে কটাক্ষ
Next articleগায়ক কেকের মৃত্যুতে শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী

Leave a Reply