কলকাতার পশ্চিমবঙ্গের শোবিজ অঙ্গনের উঠতি মডেল বিদিশা দে মজুমদার আত্মহত্যা করেছেন। নাগেরবাজারের রামগড় কলোনির বাড়ি থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

জানা গেছে, এর আগেও দু’বার আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন বিদিশা। তবে বান্ধবী ও সহকর্মীদের বাধার মুখে তিনি কিছু করতে পারেননি। সবশেষ বুধবার (২৫ মে) ভোর রাত পর্যন্ত তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেন এক বান্ধবী। তবে শেষরক্ষা হলো না। ইতোমধ্যে বিদিশার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রের খবর, বিদিশার এক বান্ধবী থানায় ফোন করে খবর দেন। এরপর ফ্ল্যাটের দরজা ভেঙে বিদিশার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তার দেহের পাশে একটি সুইসাইড নোট পাওয়া গেছে। সেখানে তিনি নিজের মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করেননি।

তবে বিদিশার বান্ধবীরা অনুভব বেরা নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন। তাদের দাবি, গত কয়েক মাস ধরেই ওই যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে ছিলেন বিদিশা। তবে একই সঙ্গে একাধিক নারীর সঙ্গে প্রেমিকের সম্পর্ক থাকায় মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। আর সে কারণেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

পেশায় ব্যবসায়ী অনুভবের সঙ্গে ফেসবুকে পরিচয় বিদিশার। তারপর তাদের সম্পর্ক প্রেমে রূপ নেয়। এমনকি তারা একসঙ্গে রাতও কাটিয়েছেন বলে জানান বিদিশার বান্ধবীরা। প্রেমিকার মৃত্যুতে অবশেষে মুখ খুলেছেন অনুভব বেরা।

তিনি বলেন, আমার সঙ্গে বিদিশার বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল। ও (বিদিশা) আমাকে অনেকবার প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু আমি তাকে জানিয়ে দিই, কোনো সম্পর্কে জড়াতে পারব না। আমি যতটা পেরেছি ওকে মানসিকভাবে শক্তি জোগানোর চেষ্টা করেছি। কাজ না পাওয়ায় বিদিশা ডিপ্রেশনে ভুগছিল। সে আমাকে বলেছিল, ‘আমি কাজ পাচ্ছি না। আমি আর বাঁচব না।’ আমি বলেছিলাম, ‘চেষ্টা করো, আজ না হয় কাল ঠিক হবে।’

অনুভব আরও বলেন, ‘প্রথমে শোনার পর আমি বিষয়টি বিশ্বাস করিনি। ভেবেছিলাম, ওর বান্ধবীরা আমার সঙ্গে মজা করছে। রাতে খবরে যখন দেখলাম, তখন বুঝলাম ঘটনাটা সত্যি। তবে আমি ওর এভাবে চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছি না।’

বিদিশার প্রেমিক যোগ করেন, ‘আমার ফোন অন রয়েছে। পুলিশ ফোন করলে অবশ্যই কথা বলব। পুলিশের কাজে সহযোগিতা করব। ’

সূত্র: আনন্দবাজার

Previous articleফরিদুল হাসানের শর্টফিল্ম ‘দ্যা হাঙ্গার’’
Next articleআবারও নতুন করে কাজে ফিরতে চান চিত্রনায়িকা জলি

Leave a Reply