জমজমাট রিপোর্ট

অনেকেই যখন ভাবছেন হোয়াটস অ্যাপে কথা বলা কিংবা টেক্সট আদান-প্রদান খুবই নিরাপদ এবং এসব কেউ জানতে পারেনা, তখন মার্কিন গণমাধ্যম বলছে ভিন্ন কথা। সম্প্রতি ইসলামিক ষ্টেট-এর এক সদস্য আমেরিকায় গ্রেফতার হন। অভিযোগ, তিনি আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছিলেন। এই জঙ্গিকে গ্রেফতার করে এফবিআই তার হোয়াটস অ্যাপ বার্তায় আড়ি পেতে। আর তখনই জানা যায়, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো নিয়মিতভাবেই কয়েক হাজার ব্যক্তির হোয়াটস অ্যাপ একাউন্টের ওপর নজরদারী করছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে আরো জানা যায়, ফেইসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটস অ্যাপ যদিও মার্কিন গোয়েন্দাদের মাঝেমাঝেই ব্যবহারকারীর গোপন তথ্য সরবরাহ করে থাকে, অন্য দুটো ম্যাসেজিং অ্যাপ, সিগন্যাল এবং টেলিগ্রাম এটা করতে বরাবরই নারাজ। মানে, সিগন্যাল এবং টেলিগ্রামের কথোপকথন ও বার্তাগুলো গোপন থাকছে। কিন্তু তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ আর সন্ত্রাসবাদ নিয়ে যারা গবেষণা করেন তারা বলছেন ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, শুধু হোয়াটস অ্যাপ নয়, বরং যেকোনো কমিউনিকেশন অ্যাপস, যেমন সিগন্যাল, টেলিগ্রাম ইত্যাদির ব্যবহারকারীদের গোপন তথ্যও মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো চাইলে এটা তাদের কাছে দিতে কোম্পানিগুলো বাধ্য। এক্ষেত্রে আইনী বাধ্যবাধকতা আছে।

অন্য একটি সূত্র বলছে, সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বিশ্ব
ব্যাপী সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বেড়ে যাওয়ার ফলে কেবল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোই নয় বরং বিশ্বের অনেক দেশেই এখন হোয়াটস অ্যাপ ব্যবহারকারীদের ওপর নজরদারী চলছে।

সূত্রটি আরো বলে, গোয়েন্দা সংস্থাগুলো ছাড়াও অন্য যে কেউ পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে নির্দিষ্ট মোবাইল ফোনে আড়িপাততে পারে।

Previous articleসিলেটে করোনার পর বন্যার ধাক্কা, হাজার কোটি টাকার ক্ষতি
Next articleদীর্ঘ চার বছর পরে এক সাথে রোমিও-চমকতারা

Leave a Reply