জমজমাট প্রতিবেদন:

গতকাল নিজের ফেইসবুক আইডিতে পরপর দুটো স্ট্যাটাস দেন চিত্রনির্মাতা ও বিএনপির অঙ্গ সংগঠন জাসাস এর কেন্দ্রীয় নেতা তরিকুল ইসলাম ওরফে সায়মন তারেক। একটা স্ট্যাটাস এ তিনি ঘোষণা দেন নিজের কিডনী বিক্রীর, যা দেশের প্রচলিত আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। অন্য স্ট্যাটাসে তিনি ভারতের একটা অজ্ঞাত ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও শেয়ার করেন, যেখান বাংলাদেশ সম্পর্কে মারাত্মক অপপ্রচার চালিয়ে বলা হয় বাংলাদেশ নাকি ৫-৬ মাসের মধ্যেই শ্রীলংকার মতো দুর্দশায় পড়বে। এধরনের ভিডিও শেয়ার করা ডিজিট্যাল নিরাপত্তা আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আগেও বিএনপি ঘরানার এই নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি থেকে ৬ মাসের জন্যে সাসপেন্ড হন।

শুধু তরিকুল ইসলামই নন, রাষ্ট্র বিরোধী একটি চক্র বেশ কিছুকাল যাবত বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্টের প্রতিযোগিতায় নেমেছে। এদের মধ্যে অন্যতম ইন্টারপোল ওয়ান্টেড সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গী অর্থায়নকারী শহীদ উদ্দিন খান, সুইডেনে লুকিয়ে থাকা জনৈক তাসনিম খলিল, হাঙ্গেরিতে পালিয়ে থাকা জনৈক জুলকারনাইন শায়ের সামি, কানাডায় পালিয়ে থাকা শহিদুল ইসলাম, আমেরিকায় পালিয়ে থাকা কনক সরোয়ার, ইলিয়াস হোসেন, মিনা ফারাহ-সহ বিএনপি-জামাত ঘরানার আরো কিছু দুর্বৃত্ত।

এরই মাঝে ওই চক্রের সাথে মিলে আবারও দেশ বিরোধী অপপ্রচারে নেমেছেন ২০১৮ সালে সড়ক আন্দোলনের নামে ছাত্রদের উস্কে দিয়ে সরকারের পতন ঘটানোর চক্রান্তের অন্যতম পাণ্ডব শহিদুল আলম। সম্প্রতি তাসনিম খলিল তার ফেইসবুক আইডিতে শহিদুল আলমের ‘দৃক নিউজ’ নামের এক অখ্যাত ওয়েব সাইটে পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে প্রকাশিত একটি বিভ্রান্তিকর “সম্পাদকীয়” মানুষকে বিভ্রান্ত করার অপউদ্দেশ্যে শেয়ার করেন। দৃক নিউজ ওয়েব সাইটটি ঘুরে দেখা গেছে কৌশলে এটির সাথে সম্পৃক্তদের নামধাম গোপন রাখা হয়েছে।

শহিদুল আলম, তাসনিম খলিল এবং জুলকারনাইন শায়ের সামীর মাঝে মূল মিল হলো এরা তিনজনই আওয়ামীলীগ বিরোধী এবং তিনজনের সাথে কাতারের জঙ্গিবান্ধব নিউজ চ্যানেল আল জাজিরার গভীর মাখামাখি। এরা এই চ্যানেলটি বহুবার বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারে ব্যবহার করেছে।

এরই মাঝে বাংলাদেশ বিরোধী এই চক্রটি ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার মিশন নিয়ে জোরেশোরে অপপ্রচার শুরু করেছে। এরা ওই নির্বাচনে ইভিএম মেশিন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েও অহেতুক প্রশ্ন তুলছে। অথচ ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, কোরিয়াসহ পশ্চিমা সব দেশেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ইভিএম ম্যাশিনের সাহায্যেই।

আরো জানা গেছে, তাসনিম খলিল, জুলকারনাইন শায়ের সামি, শহীদ উদ্দিন খান গং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়নে জামাত-বিএনপির লবিস্টদের মাধ্যমে ক্রমাগত অপপ্রচার চালাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। এমনকি এরা পশ্চিমাদের সরাসরি হস্তক্ষেপে ২০২৩ সালের নির্বাচন অনুষ্ঠানের অমূলক দাবী তুলছে, যা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি অবমাননাকর।

রাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর উচিত সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম এবং অবৈধ ওয়েব সাইটগুলোর প্রতি নজরদারি বাড়িয়ে এসব দুষ্কৃতিকারীর অশুভ চক্রান্ত নস্যাৎ করে দেয়া।

Previous articleসঙ্গীত তারকা জেমস বাংলালিংকের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করলেন
Next articleকোভিড কি বিদায় নিয়েছে?

Leave a Reply