জমজমাট প্রতিবেদন:

পদ্মা সেতু হওয়ার আগে বিএনপি জামাত ঘরাণার লোকজন বলে বেড়াতো এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে না। এখন যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে পদ্মা সেতু বাস্তবে পরিনত, তখন বিএনপি-জামাত ঘরাণারই খেক শিয়ালগুলো তারস্বরে বলার চেষ্টা করছে, এই সেতু নির্মাণে আমরা অনেক টাকা খরচ করে ফেলেছি। ২০১৮ সালে বিতর্কিত কথিত ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম পান্ডব শহীদুল আলম যারপর নাই চেষ্টা করেছেন এটিকে কাজে লাগিয়ে আওয়ামীলীগ সরকারের পতন ঘটানোর। এখন তিনিই ‘দৃক নিউজ’ নামের এক অখ্যাত ওয়েব সাইটে পদ্মা সেতুকে ঘিরে অপপ্রচারে নেমেছেন। ২১ মে তারিখে ওই ওয়েব সাইটে একটি সম্পাদকীয় ছাপা হয়েছে যার শিরোনাম “চুবানোর সংস্কৃতি ও চুপচাপ গণমাধ্যম”। উৎসাহ নিয়ে এটি ফেসবুকে শেয়ারও করেছে বাংলাদেশের শত্রু তাসনিম খলিল। এসব কি রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট সংস্থা গুলো দেখে না..?

একইভাবে স্বদেশ প্রেমের দোহাই দিয়ে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ও জামাত ঘরানার লোকজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলাদেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ক্রমাগত অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। জাতীয়বাদী দল বিএনপি’র অঙ্গসংগঠন জাসাস এর কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃস্থানীয় একজন চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক তারিকুল ইসলাম ভূঁইয়া (সায়মন তারিক) ২৫ মে তারিখে তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, “থাকার চিন্তা ছেড়ে বাড়ছে যাবার চিন্তা। যাবার আগে রেখে যাবো চোখ দান করে, দেহ দান করে শুধু বিক্রি হবে কিডনী তাছাড়া উপায় কিছু নেই। রক্তের গ্রুপ A +। যোগযোগ করুন ইনবক্সে”। এছাড়াও তার ফেসবুক ওয়াল দেখতে গিয়ে পাওয়া যায়, তিনি ভারতীয় এক অখ্যাত ওয়েব সাইটের ভিডিও লিংক শেয়ার করেছেন। সেখানে দাবী করা হচ্ছে, ”শ্রীলংকার পর এবার বাংলাদেশ দেউলিয়ার পথে”।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিডনী বিক্রির ঘোষনা দেয়া ফৌজদারী অপরাধ এবং কোন এক অখ্যাত ইউটিউব চ্যানেলে প্রচারিত বাংলাদেশ সম্পার্কিত মিথ্যে এবং বিভ্রান্তিমূলক অপপ্রচার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করা দেশের প্রচলিত ডিজিট্যাল সিকিউরিটি আইনে দন্ডনীয় অপরাধ। এখন প্রশ্ন হলো সায়মন তারিকের আসল উদ্দেশ্য কি?

ওরা কি চাইছে এসব অপপ্রচার চালিয়ে দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলবে? এর আগেও ২০১৬/১৭ সালে সায়মন তারিক তার ফেসবুকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর নামে কটুক্তি করে স্ট্যাটাস দেয়ায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি শাস্তি হিসেবে ছয় মাসের জন্য সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছিলো। সায়মন তারিক বিএনপি’র সহযোগী সংগঠন জাসাস-এর শীর্ষনেতা। ওই সংগঠনের অনেকেই রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গভীর চক্রান্তে জড়িত বলেও অভিযোগ আছে। এদের অন্যতম কথিত চিত্রনায়ক হেলাল খান ও ঘাপটি মেরে থাকা জাসাস পান্ডব বাবুল আহমেদ। বিএনপি জমানায় এই বাবুল আহমেদ বিটিভিতে একচেটিয়া প্যাকেজ প্রোগ্রাম সাপ্লাই করে কোটি কোটি ঢাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ওনার ও হেলাল খানের সাথে কুখ্যাত হাওয়া ভবনের সম্পর্ক ছিলো দহরম মহরম।

উল্লেখ্য, পরিচালক সায়মন তারিকের আর্থিক অবস্থান যথেষ্ট ভালো। তিনি কিছুদিন আগেও আলোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়ার প্রযোজনায় একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন।

বাংলাদেশের মানচিত্র খাঁমছে ধরতে চাচ্ছে বিএনপি জামাতের কুলাঙ্গারগুলো। এসব অপকর্ম কোনোভাবেই অবজ্ঞা করা ঠিক হবে না। সায়মন তারিকদের মতো আত্মস্বীকৃত কিংবা আত্মঘোষিত দেশবিরোধীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে এদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে না পারলে আমাকে অতীব দুঃখের সাথে বলতেই হবে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশেপাশে যারা বছরের পর বছর ফায়দা লুটে আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন ওদের এক্ষুনী ভাগাড়ে পাঠাতে না পারলে আখেরে আমাদের কপালে দুঃখ আছে।

Previous articleকীর্তিমান ব্যক্তিত্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা ইমামুল কবীর শান্তকে নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাতা সোয়েব সাদিক সজীব’র প্রামাণ্যচিত্র ‘দীপ্তপ্রান’
Next articleরায়হান রাফির ‘রাস্তা’র অপেক্ষায় স্নিগ্ধা

Leave a Reply