প্রতিভাবান তরুণ কণ্ঠশিল্পী আতিফ আহমেদ নিলয়
না ফেরার দেশে চলে গেছেন। সোমবার বিকালে নিজ বাসা থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ধাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য বর্তমানে রাখা হয়ছে। প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে এ তরুণ গায়ক নিলয় আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু কোন অভিমানে ঝরে গেল এমন একটি প্রতিভা?

এ প্রসঙ্গে কণ্ঠশিল্পী তাসনিম মীমের জানান, তিনি দির্ঘদিন নিলয়ের সঙ্গে কাজ করছিলেন। কিছুদিন আগে আতিফ আহমেদ নিলয়ের বাবা ক্যানাসরে ভুগে মারা যান। সেই থেকে পারিবারিকভাবে তিনি একটু ডিপ্রেশনে ছিলেন। এ নিয়ে নিলয় ফেসবুকে মাঝেমধ্যে হতাশাজনক স্ট্যাটাস পোস্টও দিতেন।

নিলয় তার ফেসবুকে শেষ স্ট্যাটাস পোস্ট দেন গত ২১ মে। সেখানে তিনি লিখেন, ‘আল্লাহ আমার উপর হেদায়েত দান করুন। দিন দিন কেমন জানি হয়ে যাচ্ছি। নিজের অজান্তে কেন যেন সবাইকে কষ্ট দিয়ে কথা বলি। কিছু বুঝতে পারতেছি না কেন এমন হচ্ছে’।এই পোস্ট দেওয়ার দুইদিনের মাথায় আত্মঘাতি প্রান দিলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বন্ধু জানিয়েছেন তবে শুধু বাবাকে হারানোর বেদনা নয়। নিজ পরিবারের সমস্যা নয়, স্ত্রী নওশীন আক্তারের পরিবার নিয়েও নিলয় ডিপ্রেশনে ভুগতেন।

এর প্রমাণ মেলে নওশীনের দেওয়া একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে। সেখানে তিনি দুটি ছবি পোস্ট করেন। তাতে দেখা যায়, নওশীনের কপাল বেয়ে রক্ত ঝরছে। ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘আমি যদি মারা যাই, আমার মৃত্যুর জন্য দায়ী থাকবে আমার বাবা-মা’।যদিও পোস্টটি পরে ডিলিট করে দেন নওশীন। তবে সেটির স্ক্রিনশট রেখে দেন নিলয়ের এক বন্ধু।

এদিকে, নিলয়ের মরদেহ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে- এমন একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। সেখানে মরদেহ জড়িয়ে ধরে একটি মেয়েকে হাউমাউ করে উচ্চস্বরে কাঁদতে দেখা যায়। তিনি বিলাপ করছিলেন। যদিও তার সব কথা বোঝা যায়নি।

কাঁদতে কাঁদতে অস্পষ্ট স্বরে ওই মেয়েটি নিলয়কে উদ্দেশ্য করে বলছিলেন, ‘আমি তোমাকে এভাবে যেতে দেব না। একবার তুমি আমার সাথে কথা বলো। আমি তোমাকে ছাড়া কীভাবে থাকবো।’ ধারণা করা হচ্ছে, ওই মেয়েটি নিলয়ের স্ত্রী নওশীন।

বেশ কয়েকটি দর্শকশ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন আতিফ আহমেদ নিলয় তার মধ্যে – ‘কার বাসর ঘুমাও বন্ধু’ ও ‘বোকা পাখি আপন চিনলি না’সহ আরো অনেক গান । তরুণ প্রজন্মের কাছে তিনি খবুই দর্শকজনপ্রিয় ছিলেন।

Previous articleরায়হান রাফির ‘রাস্তা’র অপেক্ষায় স্নিগ্ধা
Next articleআবারও জিয়াউদ্দিন আলমের পরিচালনায় নিলয়-অহনা’র ‘তাফালিং’

Leave a Reply