আজ টিভি পর্দার গুণী অভিনেত্রী তাজিন আহমেদের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১৮ সালের ২২ মে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যান তিনি। দেখতে দেখতে তার প্রয়াণের চারটি বছর হয়ে গেলো।

অভিনেত্রী হিসেবে দেশের মানুষের কাছে পরিচিত হলেও তাজিন আহমেদ সাংবাদিকতা ও উপস্থাপক হিসেবে দক্ষতার পরিচয় রেখেছেন। গুণবতী এই তারকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর শেষ করে দীর্ঘদিন সাংবাদিকতায় যুক্ত ছিলেন।

অভিনেত্রী তাজিন আহমেদের জন্ম নোয়াখালী জেলায়। কামাল আহমেদ এবং দিলারা জলির কন্যা তাজিন আহমেদ। তার ডাক নাম ছিল জল। ১৯৯২ সালে এইচএসসি পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে ভর্তি হোন।

ছাত্রজীবন থেকেই তিনি সাংবাদিকতা করতেন। ১৯৯৪ সালে ভোরের কাগজ ও ১৯৯৭ সালে প্রথম আলোতে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে সাংবাদিকতা করেন। ১৩ বছর সাংবাদিকতা করেছেন তাজিন। এক পর্যায়ে সাংবাদিকতা ছেড়ে যুক্ত হন কর্পোরেট জীবনে। মার্কেন্টাইল ব্যাংকে পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তাজিনের মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। মায়ের কাজেও সাহায্য করেছেন তিনি। মায়ের হাত ধরেই অভিনয় জগতে প্রবেশ। সাবলীল অভিনয়ের কারণে দ্রুত জায়গা করে নেন দর্শক হৃদয়ে। মা দিলারা জলি রচিত ও শেখ নিয়ামত আলী পরিচালিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তাজিন আহমেদের অভিনয় যাত্রা শুরু হয়েছিল। নাটকটি ১৯৯৬ সালে বিটিভিতে প্রচার হয়েছিল। এরপর তিনি অসংখ্য নাটক-টেলিছবি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন।

অভিনয়ের পাশাপাশি রেডিও এবং টেলিভিশনে উপস্থাপনাও করেছেন। এনটিভিতে বাচ্চাদের প্রোগ্রাম ‘টিফিনের ফাঁকে’ দক্ষতার সাথে উপস্থাপনা করেন। ১০ বছর ধরে এই অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন তিনি। তবে বিটিভির ‘চেতনা’ নামের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই উপস্থাপনার যাত্রা শুরু করেছিলেন। তারপর অসংখ্য অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ছিলেন তাজিন আহমেদ।

তাজিন আহমেদ ‘পিপলস রেডিও’তে ‘শহুরে সন্ধ্যা’ নামের একটি লাইভ অনুষ্ঠানের আরজেও ছিলেন। এছাড়া তিনি মঞ্চেও কাজ করেন। ছোট পর্দার পাশাপাশি সরব ছিলেন মঞ্চেও। কাজ করেছেন থিয়েটার দল ‘নাট্যজন’-এ। ২০০০ সালে ‘আরণ্যক’ নাট্যদলে যোগ দিয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তাজিন।

২০০৪ সালে তিনি নাটক লেখালেখি শুরু করেন। মোট ১২টি নাটক লেখেন ও পরিচালনা করেন। তাজিনের লেখা উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হচ্ছে ‘বৃদ্ধাশ্রম’, ‘অনুর একদিন’, ‘এক আকাশের তারা’, ‘হুম’, ‘সম্পর্ক’ ইত্যাদি। তার লেখা ও পরিচালনায় নির্মিত হয় ‘যাতক’ ও ‘যোগফল’ নামে দুটি নাটক।

তার অভিনীত নাটকগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- ড. মোহিত কামালের ‘মন’ উপন্যাস অবলম্বনে নাটক ‘মন’। দ্বীপঙ্কর দীপনের রচনা ও পরিচালনায় এক খণ্ডের নাটক ‘জলসত্ত্বা’ ও অরুণ চৌধুরীর রচনা ও পরিচালনায় ধারাবাহিক নাটক ‘নন্দন কানন’ নাটক। আরও আছে, ‘চাচা ইভেন্ট কোম্পানি’, ‘ভয়ংকর সুন্দর দিন’, ‘গ্রামের নাম শিমুলপুর’, ‘স্মৃতির আলপনা আঁকি’, ‘বিদেশি পাড়া’। অসংখ্য নাটকে তিনি অভিনয় করেন।

ছোট পর্দার পরিচালক এজাজ মুন্নাকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন তাজিন আহমেদ। তবে এই সংসার বেশিদিন টেকেনি। এর পরে তাজিন আহমেদ বিয়ে করেছিলেন এক মিউজিশিয়ানকে।

Previous articleসেন্সর বোর্ড ছাড়পত্র পেল জয়া আহসান’র ‘বিউটি সার্কাস’
Next articleজুনের ১০ তারিখে মুক্তি পাচ্ছে শান্ত খান-শ্রাবন্তী’র ‘বিক্ষোভ’

Leave a Reply