ঈদ উৎসবে মানুষের বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে মুক্তি পাওয়া নতুন সিনেমা দেখা। দর্শকরা ঈদের সময়েই সবচেয়ে বেশি সিনেমা দেখেন। তাই সবাই চান এ সময়ে তাদের সিনেমাগুলো মুক্তি দিতে। তবে মহামারি করোনার কারণে গত দুই বছরের চার ঈদে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়নি নতুন-পুরনো কোনো সিনেমা। এরপর নতুন স্বাভাবিক অবস্থায় সিনেমা মুক্তি পেলেও সেগুলো প্রেক্ষাগৃহে দর্শক টানতে ব্যর্থ হয়। ব্যবসায়িকভাবেও সিনেমাগুলো মুখ থুবড়ে পড়ে।

তবে এবারের ঈদুল ফিতরে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় বড় বাজেটের কয়েকটি সিনেমা। এসব সিনেমা দিয়ে আবারও চাঙা হয়েছে দেশের সিনেমা অঙ্গন ও প্রেক্ষাগৃহ। প্রায় দেড় শতাধিক প্রেক্ষাগৃহ নিয়ে উৎসবে যোগ দিয়েছে চারটি সিনেমা। এগুলো হলো শাহীন সুমন পরিচালিত ‘বিদ্রোহী’, এস এ হক অলিকের ‘গলুই’, এম রাহিমের ‘শান’ ও জুয়েল ফারসির ‘বড্ড ভালোবাসি’। এর মধ্যে বুবলীকে নিয়ে ‘বিদ্রোহী’, ‘গলুই’ সিনেমায় পূজা চেরিকে নিয়ে মাঠে লড়ছেন শাকিব খান। অন্যদিকে, পূজাকে নিয়ে ‘শান’ সিনেমা নিয়ে মাঠে রয়েছেন সিয়াম। আলোচনার বাইরে রয়ে গেছে ‘বড্ড ভালোবাসি’ সিনেমাটি।

ঈদের সিনেমা দিয়ে দেশের সিনেমাশিল্প আবারও চাঙা হয়ে উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম তো বটে, অনেক সংবাদমাধ্যমও এ ধরনের প্রতিবেদন ছাপাতে ব্যস্ত। অথচ বাস্তব চিত্র ভিন্ন। রাজধানীকেন্দ্রিক কিছু সিনেপ্লেক্স ছাড়া দেশের অন্য কোথাও ঈদের সিনেমা নিয়ে কোনো আলোচনা কিংবা আওয়াজ নেই।

চলচ্চিত্র পরিচালক এস এ হক অলিকের নিজ জেলা জামালপুরে শুটিং করায় সেখানকার কিছু মানুষের উচ্ছ্বাস ও জেলা প্রশাসক কর্তৃক শিল্পকলাসহ অন্যান্য অডিটরিয়ামে ‘গলুই’ সিনেমার প্রদর্শন বন্ধ করে দেওয়ার আলোচনাকে কেন্দ্র করে দেশি সিনেমার বিপ্লব ঘটিয়ে ফেলছেন অনেকেই। আদপে বাণিজ্যিক হিসাবে ঈদের সিনেমাগুলো হিট তো দূরের কথা, অ্যাভারেজের তালিকায়ও এখনও পৌঁছাতে পারেনি। ঈদের ছুটির দিনগুলোতে কিছু সংখ্যক প্রেক্ষাগৃহে দর্শকদের আনাগোনা দেখা গেলেও ছুটি শেষে পুরনো অবস্থায় ফিরে গেছে দৃশ্যায়ন।

মূলত ফেসবুকে আলোচনার হাইপ তুলে ঈদের সিনেমা দিয়ে সিনেমাশিল্প ঘুরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন কেউ কেউ। বিষয়টি মন্দ নয়। কিন্তু তাদের বুঝতে হবে, ফেসবুকে সচেতনতা আগের চেয়ে এখনও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। দু-একটি সিনেমা হলের একটি শোয়ের হাউজফুল দৃশ্য আপলোড করে দেশের সার্বিক অবস্থার মূল্যায়ন করা কখনও সম্ভব নয়।

ফলে দর্শকশূন্য প্রেক্ষাগৃহের চিত্রও দেখতে হয়েছে। বাণিজ্যিক হিসাব না করলে কোনো সিনেমারই সাফল্য বর্ণনা করা একেবারেই কঠিন, অথবা উচিতও নয়। সে হিসাবে বলা যায়, এবারের ঈদের সিনেমার সফলতা কেবল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেই সীমাবদ্ধ ছিল, প্রেক্ষাগৃহে নয়।

গত কয়েক বছর থেকে সিনেমার প্রচারণাতেও এসেছে ভিন্নতা। আগে শুধুমাত্র সিনেমা প্রচারের জন্য বেতার, পোস্টার, পত্র-পত্রিকায় বিজ্ঞাপন, আর মাইকিংয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। বর্তমানে ইন্টারনেটের কল্যাণে সেখানে এসেছে নতুন মাত্র। তাই তো বর্তমানে অনলাইন প্রচারণা বেড়েছে ফেসবুক, ফ্যানপেজ, টুইটার, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও থাকছে সিনেমা প্রচারের বিষয়টি। তবে এই অনলাইনের প্রচারে কতোটা লাভবান হচ্ছে সেটা সিনেমা সংশ্লিষ্টরাই বলতে পারবেন।

Previous articleঅভিনেত্রী ভাবনা ইংল্যান্ডের রেক্সহ্যাম গ্লিন্ডার ইউনিভার্সিটি থেকে গ্র্যাজুয়েশন করেছেন
Next articleমা হচ্ছেন নায়িকা ক্যাটরিনা কাইফ

Leave a Reply