ঈদুল ফিতরের দিন থেকে জামালপুর সদরের শিল্পকলা নতুন অডিটোরিয়াম ভবন (শীততাপ নিয়ন্ত্রিত), ইসলামপুরে ফরিদুল হক খান দুলাল অডিটোরিয়াম (শীততাপ নিয়ন্ত্রিত), মাদারগঞ্জে নুরুন্নাহার মাল্টিপারপাস অডিটোরিয়াম (শীততাপ নিয়ন্ত্রিত)—এ বিশেষ ব্যবস্থায় প্রদর্শনী হয়ে আসছিল এস এ হক অলিক পরিচালিত চিত্রনায়ক শাকিব খান ও চিত্রনায়িকা পূজা চেরি জুটির প্রথম সিনেমা ‘গলুই’। মুক্তি পাওয়ার দিন থেকেই সিনেমাটি দেখতে ভিড় জমাচ্ছেন দর্শকরা। এ সিনেমার শুটিং হয়েছে জামালপুরের বিভিন্ন লোকেশনে। তাই খুব উৎসাহ নিয়ে দর্শক সিনেমাটি দেখতে আসছেন। জামালপুর প্রতিদিনই ‘গলুই’ দেখতে হাজির হচ্ছে শত শত দর্শক।

তবে হঠাৎ করেই জামালপুরের অডিটোরিয়াম তিনটির সিনেমা প্রদর্শনী বন্ধ করে দেয়া হয় সেখানকার জেলা প্রশাসক মুর্শেদা জামানের নির্দেশে। কারণ হিসাবে জানা গেছে, ১৯১৮ সালের আইন অনুযায়ী প্রেক্ষাগৃহ ব্যতীত সিনেমা প্রদর্শনী নিষেধ। জামালপুরে একটি মাত্র প্রেক্ষাগৃহ থাকায় দর্শকদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থায় তিনটি অডিটোরিয়াম ভাড়া করে ‘গলুই’ প্রদর্শনী হচ্ছিল। সিনেমাটি দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে হাজারো দর্শক। তবে আইন বলছে, এমন ব্যবস্থায় সিনেমা চালানো অনুমতি নেই। যার কারণে সিনেমাটির প্রদর্শনী বন্ধ করে দেয়া হয়।

কেন বন্ধ করা হচ্ছে ‘গলুই’য়ের প্রদর্শনী? এ বিষয়ে পরিচালক এস এ হক অলিক আক্ষেপ করে বলেন, ১৯১৮ সালের একটি পুরনো আইনের দোহাই দিয়ে জামালপুরের ডিসি সিনেমাটির প্রদর্শনী বন্ধ করে দিচ্ছেন। ওই আইনে আছে, প্রেক্ষাগৃহ ব্যতীত অন্য কোথাও বাণিজ্যিকভাবে সিনেমা প্রদর্শন করা যাবে না। এখন দেখেন একমাত্র মেলান্দহ ছাড়া জামালপুরের আর কোথাও কোনো প্রেক্ষাগৃহ নেই। সিনেমাটি দেখানোর বিকল্প পথ হিসেবে আমরা অডিটোরিয়ামগুলোকে বেছে নিয়েছিলাম। যেখানে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত সিনেমা শিল্পকে সহায়তা করতে বলেছেন সেখানে জামালপুরের ডিসির এমন নির্দেশনায় আমরা সত্যিই হতবাক হয়েছি। ডিসির এমন অসহযোগিতা কাম্য নয়।

যোগ করে তিনি আরও বলেন, শতবর্ষের একটি পুরনো আইন দেখিয়ে সিনেমাটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত তিন দিন ধরে ইসলামপুরে প্রদর্শনী বন্ধ, আজকের পর থেকে মাদারগঞ্জ শো বন্ধ হয়ে যাবে। হঠাৎ করে কেন পুরনো আইন দেখিয়ে সিনেমাটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বুঝতে পারছি না। অথচ ঈদের সিনেমা দিয়ে আবারও দর্শক প্রেক্ষাগৃহে আসতে শুরু করেছে। প্রতিদিনই বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে হাউজফুল যাচ্ছে। শিল্পকলার অনুমতি নিয়েই সিনেমাটি প্রদর্শনী করছিলাম। তাছাড়া, ডিসির সঙ্গে আমার নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। তাকে সিনেমাটি দেখার দাওয়াতও দিই। সবকিছুই ঠিকঠাক যাচ্ছিল। হঠাৎ এ ধরনের সিদ্ধান্ত কোনো ষড়যন্ত্র হলেও হতে পারে।

বিষয়টি জানতে জামালপুরের প্রথম নারী ডিসি মুর্শেদা জামানের মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন দেয়া হলেও তার সাড়া পাওয়া যায়নি।

তবে সিনেমাটির প্রদর্শনী বন্ধের খবরে এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট অনেকেই। প্রতিবাদ করে চলচ্চিত্র নির্মাতা অপূর্ব রানা বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অনুদানপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘গলুই’-এর প্রদর্শনী বন্ধ করেছে জামালপুরের ডিসি মহোদয়! করতেই পারেন সেটা তার নীতিমালার মধ্যে পড়লে। আমার ব্যক্তিগত কথা হলো—ঈদের চলচ্চিত্রগুলো যেখানে এই দুঃসময় কাটিয়ে চলচ্চিত্র শিল্প বাঁচানোর চেষ্টা করছে সেখানে এই সামান্য অজুহাতে (শিল্পকলা একাডেমিতে সিনেমা প্রদর্শনী করা যাবে না) প্রদর্শনী বন্ধ করা উচিত হয়েছে? এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই।

প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, আমি যতটুকু জানি শিল্পকলা একাডেমির অনুমতি নিয়েই চলচ্চিত্রটির প্রদর্শনের আয়োজন করেছিল প্রযোজনা সংস্থা। শিল্পকলা একাডেমি কার জন্য? বিনোদন শিল্পের সর্বোচ্চ শিল্প যেখানে চলচ্চিত্র সেখানে একটি সরকারি অনুদান পাওয়া সম্পূর্ণ পারিবারিক চলচ্চিত্র ‘গলুই’-এর রানিং শো বন্ধ করে দেয়া কতটা যৌক্তিক? আমার মনে হয় চলচ্চিত্র প্রেমী সকল মানুষের এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো উচিত।

প্রসঙ্গত, ২০২০-২১ অর্থ বছরে সরকারি অনুদানের ‘গলুই’ সিনেমা নৌকাবাইচ ও একটি পিরিওডিক্যাল গল্পকে কেন্দ্র করে নির্মিত হয়েছে। গত ২৯ ডিসেম্বর সিনেমাটি সেন্সর থেকে মুক্তির অনুমতি পায়। শাকিব-পূজা ছাড়াও সিনেমায় আরও অভিনয় করেছেন আলী রাজ, সুচরিতা, সমু চৌধুরী, তাজিম প্রমুখ।

Previous article‘গলুই’ দেখে টাকা ফেরত চাইলেন দর্শক
Next articleআজ বৈশাখি টেলিভিশনে প্রচার সিদ্দিকুর রহমানের একক নাটক ‘খোদা হাফেজ ঢাকা’

Leave a Reply